১৯৬৫ সালে এক অন্যরকম যুদ্ধে হেরে গিয়েছিল ভারত কিন্তু তারপর ভারতীয় সেনাবাহিনী যেটা করে দেখিয়েছিল সেটা দেখার পর পাকিস্তান ভালোভাবে বুঝে গিয়েছিল ভারতের শক্তি সম্পর্কে এবং তারা ভয়ে ভীত হয়ে পড়ে। সেই যুদ্ধ ইতিহাসে “The Real Answer” নামে পরিচিত।

সেই সময় ভারত ও পাকিস্তান পরিস্থিতি চরমে পৌঁছে গিয়েছিল। পাকিস্তান জেনারেল পাকিস্তানের স্পেশাল সেনাবাহিনী কে এই দায়িত্বটা দিয়েছিল যাতে ভারতের অমৃতসর অঞ্চল দখল করে নেওয়া হয়। এবং ভারতীয় সেনাবাহিনী যাতে জম্মু-কাশ্মীরে এসে তাদের ফেলে যাওয়া অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে যেতে না পারে।

১৯৬২ সালে চীনের সঙ্গে যুদ্ধ হওয়ার পর সেই যুদ্ধের ক্ষত তখনও দাঁড়িয়ে উঠতে পারেনি ভারত। এমন পরিস্থিতিতে আমেরিকার সাহায্য নিয়ে অত্যাধুনিক যুদ্ধ অস্ত্র ব্যবহার করে পাকিস্তান ভারতের যথাযথ ক্ষতি করে ভারতকে হারিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছিল। কারণ সেই সময় তখনও ভারতীয় অত্যাধুনিক যুদ্ধাস্ত্র ব্যবহারের নীতি প্রয়োগ হয় নি।

৮ ই সেপ্টেম্বর ১৯৬৫ সালে পাঞ্জাবের এক এলাকায় ২২০ জন পাকিস্তান সেনাবাহিনী চালক এক ভয়াবহ হামলা। তাদের উদ্দেশ্য ছিল সেই সময় তাদের সামনে যায় আসুক না কেন সব কিছুকে একেবারে ধ্বংস করে দেওয়া। তাদের কে সেই সময় আটকানোর মত সেনাবাহিনী ভারতের প্রস্তুত ছিল না। কিন্তু জেনারেল হরবক্স সিং হাল ছাড়তে রাজি নন তিনি ওই মাত্র গুটিকয়েক ভারতীয় সেনাদের নিয়ে তৈরি করে ফেললেন পাকিস্তান বধের এক নতুন পরিকল্পনা। ভারতীয় সেনাবাহিনীকে তিন দিক থেকে একেবারে অন্য ছন্দে অর্থাৎ “U” আকৃতিতে সাজিয়ে ফেললেন। এবং তাদেরকে যথাযথ প্রস্তুত রাখলেন যাতে পাকিস্তানের প্রতিটি ট্যাঙ্কার কে একেবারে উড়িয়ে ধুলিস্যাৎ করে দেওয়া যায়।

সেই সময় পাকিস্তানী সেনাবাহিনীর ভেবেছিল সেখানে কোন ভারতীয় আর্মি নেই। তাই তারা সহজেই সেখানে প্রবেশ করেছিল। আর ভারতীয় আর্মিরা খুব কাছেই লুকিয়ে ছিল আখের ক্ষেতে, তাই যখনই তারা সেখানে প্রবেশ করে ভারতীয় সেনাবাহিনী একের পর এক পাকিস্তানের ১৭০ টি ট্যাংকার উড়িয়ে দেয়। এবং সেখানে শুধুই মৃতদেহ পড়তে থাকে পাকিস্তানি ট্যাঙ্কারের। অপরদিকে ভারতের মাত্র ৩২ টি ট্যাঙ্কারের ক্ষতি হয়েছিল।

উল্লেখ্য এখনো পৃথিবীর সমস্ত সেনাবাহিনী স্কুলে জেনারেল হরবক্স সিং এর এই সাহসী পরিকল্পনার কথা পড়ানো হয়ে থাকে। এবং এর ফলে অনেক সেনা জাওয়ান উদ্বুদ্ধ হন দেশের জন্য নিজের শেষ প্রান নিশ্বাস পর্যন্ত লড়াই করে যাওয়ার।
#অগ্নিপুত্র