ফের পশ্চিমবঙ্গে আত্মঘাতী কৃষক। তৃণমূল কংগ্রেসের আমলে একের পর কৃষক মৃত্যু এরাজ্যে।

0
42

ফসলের দাম না পেয়েই কী আত্বহত্যা পশ্চিমবঙ্গে? কয়েক লক্ষ টাকা ৠন নিয়ে আলু চাষ করে বর্ধমানের গোলাম আম্বিয়া মল্লিক। সেই টাকা শোধ করতে না পেরে আত্বঘাতী হয়েছে এক কৃষক। ঠিকানা জামালপুর থানার পাঁচড়ার সরকারডাঙা এলাকায়।

মৃতের স্ত্রী কলিমা বেগম জানান গোলাম আম্বিয়া মল্লিক মোট ১৫ বিঘা জমিতে আলু চাষ করেন। যার মধ্যে ৮ বিঘা ছিল লিজে নেওয়া। চাষের জন্য তিনি ৩ লক্ষ টাকা কেসিসি এবং মহাজনের কাছে ৠন হিসাবে নেন।
উৎপন্ন হয়েছিল ১২০০ বস্তা আলু ,যার মধ্যে থেকে মাত্র ২০০ বস্তা আলু তিনি মাঠ থেকেই বিক্রি করেন। বাকি আলু তিনি হিমঘরে রাখেন। এবং সেখান থেকে আরো ২০০ বস্তা আলু তিনি বিক্রি করেন।

নতুন আলু মাঠ থেকে ওঠায় পুরোনো আলুর বস্তা হিমঘর থেকে ৪০-৫০ টাকা দরে নিলাম করা হচ্ছিল। দাম কমের জন্য তিনি আলু বের করেননি। এবছরও তিনি ব্যংকে ৩ ভরি সোনা বন্ধক রেখে ৠন নিয়ে ১০-১২ বিঘা জমিতে আলু চাষ করেন।

শুক্রবার সকাল ১০ টার পর ঘর থেকে বেরোলে তাকে সারাদিন ধরে খোঁজাখুঁজি করলে রাত ১০ টার কাছাকাছি বাড়ির পাশে একটি ঘরে গলায় দড়ির ফাঁস দেওয়া ঝুলন্ত অবস্থায় দেখা যায়।এরপর পুলিশ এসে মৃতদেহ উদ্ধার করে।

ঘটনার কারন বিশ্লেষন করতে গিয়ে পাঁচড়া গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান বলেন আলুর দাম না পাওয়ার জন্যই আত্যহত্যা করেছেন গোলাম আম্বিয়া মল্লিক। আবার পুর্ব বর্ধমান জেলা পরিষদের সহকারি সভাপতির মতে আলুর দাম না পাওয়া আত্যহত্যার কারন নয়। তাহলে কী নিজেদের দোষ এড়িয়ে যেতে চাইছে জেলার উচ্চপদাধিকারীরা। বর্ধমান যেটা একটা কৃষি প্রধান জেলা সেই জেলায় যদি এই ভাবে কৃষকদের মৃত্যু হয় তাহলে কীভাবে আমাদের রোজকার খাবার জোগাড় হবে। রাজ্য সরকার তাহলে কি করছেন। নিজেদের দায়িত্ব এড়িয়ে এই ভাবে আর কতদিন চলবে। কৃষক হত্যাকারী রাজ্য সরকার জবাব দিন।