ফের ভাঙ্গন তৃণমূলে! এবার তৃণমূলের দুই সাংসদ যোগ দিলেন বিজেপি শিবিরে।

সামনেই হতে চলেছে 2019 লোকসভা নির্বাচন এবং তার ঠিক দু বছর পরে অর্থাৎ 2021 সালে পশ্চিমবঙ্গের হবে বিধানসভা নির্বাচন। এবং তার আগেই রাজ্যের শাসক দলে এক বড়সড় ভাঙ্গন দেখা দিল। বিজেপির দেশপ্রেম এবং উন্নয়নমূলক কাজ কর্ম দেখে এবার রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস থেকে একের পর এক নেতামন্ত্রী যোগদান করছেন বিজেপিতে এবার আরও এক বড় তৃণমূল নেতা যোগদান করলেন বিজেপি তে।

শাসক দল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দানের ফলে এই রাজ্যের রাজ্য বিজেপি এই মুহূর্তে চরম লাভবান হচ্ছেন। কারণ তাদের সংগঠন দিনের পর দিন ব্যাপকহারে বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং শক্তিশালী হচ্ছে পশ্চিমবঙ্গে। এবার তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করলেন বাঁকুড়া জেলার বিষ্ণুপুর এর সংসদ সৌমিত্র খাঁ।

এইদিন ইনি বিজেপি দলে নিজের নাম নথিভুক্ত করে আসেন দিল্লিতে গিয়ে বিজেপির সদর দপ্তরে। এবং তিনি বিজেপিতে যোগদান করে জানিয়েছেন যে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যতে আর গণতন্ত্র বেঁচে নেই। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তৃণমূল দলে পুরোপুরিভাবে একনায়কতন্ত্র এবং পরিবার তন্ত্র চালাচ্ছেন। সেখানে অন্য কারোর কথা বলার কোন অধিকার নেই তিনি একাই সিদ্ধান্ত নেন এবং উন্নয়নে বাধা দেন।

তবে এবার সৌমিত্র খাঁ এর দেখানো পথে আরও বেশ কয়েক জন তৃণমূল নেতা তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করতে চাইছেন তাদের মধ্যে প্রথমে যার কথা আসে তিনি হলেন অনুপম হাজরা।

আপনাদের একটি বিশেষ তথ্য দিয়ে রাখি সেটা হলো এই অনুপম হাজরা হলেন একজন উচ্চশিক্ষিত রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব। তিনি কোনওদিনই কাউকে তোয়াক্কা করতেন না কারণ তিনি মনে করতেন নিজের মতামত রাখার অধিকার দেশের প্রতিটি মানুষের আছে। তাই তিনি তৃণমূলের একনায়কতন্ত্রের প্রতিবাদ করে এবার তৃণমূল ত্যাগ করে বিজেপিতে নাম লেখাতে চলেছেন।

কয়েকদিন আগে বিজেপি নেতা মুকুল রায় বলেছিলেন যে আরো অনেকেই তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করবেন। তার সম্পূর্ণ খবর আমার কাছে রয়েছে। তবে কি তাহলে এটাই তার শুরু করে দিলেন মুকুল রায়? এবার দেখা যাক লোকসভা ভোটের আগে আর কত জন তৃণমূল কর্মী তৃণমূলের ঘর ভেঙ্গে বিজেপিতে যোগদান করেন।
#অগ্নিপুত্র