বড়খবর! গোপনে বিজেপির সাথে যোগাযোগ রাখছেন পাঁচ জন তৃণমূল বিধায়ক। লোকসভার আগে চিন্তার ভাঁজ তৃণমূলে।

0
26

ইতিমধ্যে বাংলার শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস দলের চরম বিপর্যয় নেমে এসেছে। দলের একের পর এক বড় বড় নেতা-মন্ত্রীরা তৃণমূল ছেড়ে দলে দলে যোগদান করছেন বিজেপিতে। কয়েক মাস আগে তৃণমূল নেত্রী মমতা ব্যানার্জীর সবচেয়ে কাছের মানুষ মুকুল রায় যোগ দিয়েছেন বিজেপিতে। তারপর এই মাত্র কয়েকদিন আগে আর এক তৃণমূল সাংসদ সৌমিত্র খান তৃণমূল ত্যাগ করে বিজেপিতে যোগদান করলেন। এর ফলে এই মুহূর্তে বিজেপির রাজনৈতিক চালের কাছে একেবারেই মাথা নত হয়ে গিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেসের।

আর এই সকল ধাক্কা গুলি কাটিয়ে ওঠার আগেই আর একবার জোর ধাক্কা খেল তৃণমূল কংগ্রেস। বিশেষ সূত্রে জানা গিয়েছে যে এই মুহূর্তে তৃণমূল দলের পাঁচ জন সংসদ গোপন ভাবে যোগাযোগ রাখছে বিজেপি রাজ্য নেতৃত্বের সঙ্গে। আর এই খবর পাওয়ার পরই কপালে চিন্তার ভাঁজ পড়েছে তৃণমূলের শীর্ষ নেতৃত্বের।
আর এই ব্যাপারে বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ জানিয়েছেন যে আমরা তো আগেই বলে দিয়েছিলাম যে মুকুল রায় আসার পর থেকেই তৃনমূল কংগ্রেসের ভাঙ্গন ধরিয়ে দিয়েছি। আর এই ২০১৯ সালে একের পর এক বড় বড় খবর আসতে চলেছে। সৌমিত্র খানকে দলে যোগ ঢুকিয়ে আমরা সবে মাত্র শুরু করলাম এরপর দেখে যান লোকসভা ভোটের আগে আরো কি কি হয়।

আর এই খবর আসার পর থেকেই একদিকে তৃণমূল কংগ্রেসের অন্দরে দ্বন্দ্ব বেঁধে গিয়েছে যে, কে কে এই পাঁচ জন বিধায়ক? এটা জানার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু অন্যদিকে এটা স্পষ্ট যে শুধুমাত্র বাংলার সাধারণ মানুষই নয় বরং তৃণমূল কংগ্রেসের বড় বড় নেতা মন্ত্রীরা পর্যন্ত তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন।
#অগ্নিপুত্র