মুখ্যমন্ত্রীর কয়েক হাজার কোটি টাকার পারিবারিক সম্পত্তির হদিশ দিলেন দিলীপ ঘোষ

রোজ সকালেই প্রাতঃভ্রমণে বের হন বঙ্গ বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh)। সেখান থেকে তিনি নানারকম মন্তব্য করে রাজ্য সরকারকে নিশানা করেন। বাদ গেলনা আজও। আজ সকালে প্রাতঃভ্রমণে বেরিয়ে রাজ্য সরকারকে আবারও একহাতে নেন দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেন, ‘হরিশ চ্যাটার্জি স্ট্রিট এখন মমতা ব্যানার্জী (Mamata Banerjee) স্ট্রিট হয়ে গেছে। মুখ্যমন্ত্রী এখন গোটা বাংলাকে নিজের জমিদারি বলে ভাবছেন।

জানিয়ে রাখি, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়ির ঠিকানা হল 30 B Harish Chatterjee Street। বিরোধীরা বরাবরই অভিযোগ করে আসছে যে, সেখানে অন্তত ৩৫ টি প্লটের মালিক মুখ্যমন্ত্রী পরিবারের সদস্যরা। বিরোধীদের অভিযোগ অনুযায়ী, ওই ৩৫ টি প্লটের বাজার মূল্য কয়েক হাজার কোটি টাকা। আর সেই নিয়েই আজ দিলীপ ঘোষ মুখ্যমন্ত্রীর পরিবারকে নিশানা করেন।

এছাড়াও আজ আজ সকালে মর্নিং ওয়াকে গিয়ে অমর্ত্য সেনকে নিশানা করলেন দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেন, যিনি দেশের মানুষের দুঃখ কষ্টে পাশে দাঁড়ান নি, তাঁর কাছ থেকে কোনও নীতিকথা শুনব না।

দিলীপ ঘোষ অমর্ত্য সেনকে আক্রমণ করে বলেন, ‘উনি বলেছেন বিজেপি শাসিত রাজ্য গুলো যেই ধর্মান্তকরণ আইন পাশ করাচ্ছে, সেগুলো অসাংবিধানিক। উনি এও বলেছেন যে, লাভ জিহাদিদের মধ্যে জিহাদ থাকতে পারে না। যে নিজেই তিনবার তিন ধর্মে বিয়ে করেছে, সে লাভ জিহাদ নিয়ে এরকমই মন্তব্য করবে।” দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘যিনি দেশ ছেড়ে পালিয়ে গিয়েছেন, যিনি দেশের মানুষের কষ্টে তাঁদের পাশে দাঁড়ান না, তাঁর নীতিকথা শুনতে চাই না আমরা। ওনার কথা যারা শুনেছে, তারাই ডুবেছে। আমরা ডুবতে রাজি না।”

বলে রাখি বিশ্বভারতীর জমি বিতর্ক নিয়ে সরব হয়েছেন অমর্ত্য সেন। একদিকে বিশ্বভারতী যেমন জানিয়েছে যে, অমর্ত্য সেন তাঁদের কিছু জমিতে অবৈধ ভাবে রয়েছে। তেমনই অমর্ত্য সেন বলেছেন, এরকম অভিযোগ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন দরকার পড়লে আমি আইনি পদক্ষেপ নেব। বিশ্বভারতী জমি বিতর্কে নোবেলজয়ী অমর্ত্য সেনের পাশে দাঁড়িয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি এই বিষয়েও বাঙালি-বহিরাগত ইস্যু তুলে ধরেছেন।

গতকাল বস্টনের একটি টিভি চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে নোবেলজয়ী বলেছেন, ‘মানুষের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করা হচ্ছে। স্বাধীন মানুষ নিজের ধর্ম বদলে যেকোনও ধর্ম গ্রহণ করতে পারে, এটা সাংবিধানিক। কিন্তু মানুষের সেই মৌলিক অধিকার কেড়ে নেওয়াটা কোনওদিনও সাংবিধানিক হতে পারে না।” উল্লেখ্য, বিজেপি শাসিত কয়েকটি রাজ্যে লাভ জিহাদ আর ধর্মান্তকরণ বিরোধী বিল পাশ করা নিয়েই অমর্ত্য সেন এই মন্তব্য করেছেন।