এবার কাশী বিশ্বনাথ মন্দির থেকে মসজিদ সরানোর জন্য উদ্যোগী হলেন সাধু-সন্তরা, করলেন মেগা প্ল্যান

Gyanvapi mosque.

 অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণ শুরু হওয়ার সাথে সাথে মথুরা আর কাশী বিশ্বনাথ মন্দির (Kashi Vishwanath Temple) পরিসরকে জ্ঞানব্যাপী মসজিদের (Gyanvapi Masjid) থেকে মুক্ত করা সাধু-সন্তরা সোমবার গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে বসতে চলেছে। এই বৈঠক প্রয়াগরাজে সকাল ১১ টা থেকে শ্রীমঠ বাঘম্বরিতে করা হচ্ছে। এই বৈঠকের নেতৃত্বে থাকবেন অখিল ভারতীয় আখারা পরিষদের (Akhil Bhartiya Akhara Parishad) সভাপতি মহন্ত নরেন্দ্র গিরী মহাশয়। বৈঠকে সমস্ত ১৩ জন আখারা পদাধিকাররা উপস্থিত থকবেন।

সাধু সন্তদের সর্বোচ্চ সংস্থা অখিল ভারতীয় আখারা পরিষদ এবার কাশী আর মথুরাকে মুক্ত করার দাবি তুলেছে। দ্বাদশ জ্যোতির্লিঙ্গের মধ্যে একটি কাশী বিশ্বনাথ মন্দির পরিসরে থাকা জ্ঞানব্যাপী মসজিদকে সরানোর জন্য রণনীতি তৈরি হচ্ছে। আর এই কারণেই অখিল ভারতীয় আখারা পরিষদের গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক ডাকা হয়েছে।

আখারা পরিষদের সভাপতি মহন্ত নরেন্দ্র গিরীর নেতৃত্বে হওয়া এই বৈঠকে প্রতি বছর প্রয়াগরাজে হওয়া মাঘ মেলা আর প্রয়াগরাজ পরিক্রমা মার্গের ইস্যু নিয়ে চর্চা হবে। এই বৈঠকে সমস্ত আখারার পদাধিকার উপস্থিত থাকবেন। মহন্ত নরেন্দ্র গিরী বলেন, মুঘলরা কাশী বিশ্বনাথ মন্দিরের উপর জ্ঞানব্যাপী মসজিদ তৈরি করেছিল। এখন যখন এখানে খনন কাজ চলছে, তখন মন্দিরের ধ্বংসাবশেষ আর সুড়ঙ্গ পাওয়া যাচ্ছে। এটা দেখে স্পষ্ট যে সেখানে আদ্যিকালে মন্দির ছিল। উনি বলেন, এবার কৃষ্ণ জন্মভূমি কাশী বিশ্বনাথ মন্দিরকে মুক্ত করানোর সময় হয়ে এসেছে।

নরেন্দ্র গিরী বলেন, করোনা মহামারীর বেড়ে চলা প্রকোপের কারণে ২০২১ এ সঙ্গমে মাঘ মেলায় প্রভাব পরতে পারে। এইজন্য করোনা কালে প্রয়াগ্রাজে মাঘ মেলার আয়োজন কীভাবে হবে, সেটা নিয়ে এই বৈঠকে চর্চা হবে। নরেন্দ্র গিরী বলেন, এই বৈঠকে কেন্দ্র আর রাজ্য সরকারের করোনা নিয়ে জারি করা গাইডলাইন গুলোকে সম্পূর্ণ ভাবে পালন করা হবে।