Connect with us

আন্তর্জাতিক

পনেরো জন পাক সেনাকে উড়িয়ে দিল বালোচরা, ভারতের সাথে মিলেমিশে পাকিস্তানকে ধ্বংস করার ঘোষণা বালোচদের।

Published

on

পাকিস্থানের অবস্থা ক্রমশই শোচনীয় হয়ে উঠছে৷ এতদিন ধরে জোর করে যে বেলুচিস্তানকে নিজেদের দখলে রেখেছিল এবার সেই বালোচিস্তানের বাসিন্দা অর্থাৎ বালোচরা পাকিস্থানের বিরুদ্ধে সোচ্চার হল৷ পাকিস্থানের সবথেকে বড় রাজ্য বালোচিস্তান৷ পাকিস্থান সর্বদাই সেখানকার বাসিন্দাদের অত্যাচার করে ইচ্ছেমতো৷ নিজেদের আয়ত্তে আনতে বালোচদের ওপর নির্মম অত্যাচারের সত্ত্বেও এতদিন মুখ বন্ধ করেছিল তারা৷ কিন্তু এবার পাশে পেয়েছে ভারতকে৷ তাই এতদিনের বদলা নিতে মরিয়া হয়ে উঠেছে বালোচরা৷
বালোচিস্তানকে এতদিন অবধি নিজেদের দখলে রাখতে পাকিস্থান তাঁদের স্বাধীনতা কায়েম করার থেকে বঞ্চিত রেখেছিল৷ বারবার বালোচদের সোচ্চারে মাথা ঘামায়নি পাকিস্তান৷ বালাকোটের মতো বালোচিস্তানেও জঙ্গী ঘাঁটি গড়েছিল পাকিস্থান৷ এখন সেই ঘাঁটি ইরানের লক্ষ্য হয়ে উঠেছে৷ গোটা পাকিস্থানের নির্মমতায় ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে পাকিস্থান৷

কিন্তু পাকিস্থানের ওপর ভারতীয় মিরাজ বিমানের হামলায় বিপুল সংখ্যায় জঙ্গী মারা যাওয়ায় এবার মুখ খোলার সাহস পেয়েছে বালোচিস্তানবাসীরা৷ ভারতকে পাকিস্থান নিকেশ করার জন্য বালোচ নেতারা আবেদন জানাচ্ছে পাশাপাশি, সামাজিক মাধ্যমে বালোচদের একটি ভিডিও প্রকাশিত হয়েছে যেটিতে দেখা গেছে তাদের নিশানায় রয়েছে পাকিস্থান৷
সামাজিক মাধ্যমে বালোচদের এই ভিডিও দেখে এটা স্পষ্ট্য পাকিস্থান নিপাত করতে এবার বালোচরা এগিয়ে আসছেই৷ ভারতের কাছে পাকিস্থানের শেষ চাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সন্ত্রাসবাদার বিরুদ্ধে ভারতের পাশে বালোচরা আছে বলেও ঘোষনা করেছে৷ কার্যত পাকিস্থানকে ধ্বংস করতে মরিয়া বালোচরা৷ প্রথমে চিন তারপর ইরান এবার বালোচরা৷ পাকিস্থানের পার্শ্ববর্তী সমস্ত হাতিয়ারই এখন পাকিস্থানকে বিদায় জানিয়েছে৷ এতদিন যারা পাকিস্থানের ভয়ে মুখ খুলতে পারত না এবং পাকিস্থান যাদের নিজেদের রাজ্য বলে ঘোষনা করে আসছিল সেই বালোচিস্তান ভারতের মিরাজ বিমানের হামলার জন্যই এগিয়ে আসছে৷

যে চিন জেট ফাইটার দিয়ে সাহায্য করেছিল সেই চিনও ভারতের পাশে দাঁড়িয়েছে৷ আবার ইরানের জঙ্গী হানার বদলা নিতে গিয়ে ইরানও পাকিস্থানে ব্যালাস্টিক মিসাইল ছোঁড়ার পরিকল্পনা নিচ্ছে৷ তাই চাপের থেকেও প্রচন্ড আতঙ্কে রয়েছে পাকিস্থান৷ ইমরানের ভারতকে উপযুক্ত শাস্তি দেওয়ার হুমকি কার্যত ধোপে টিকছে না বলেই মত ভারতের আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞদের৷ কারণ, যেভাবে চিন, ইরান ও বালোচিস্তান সড়ে দাঁড়িয়েছে এরপর হয়তো সীমা লঙ্ঘন নিয়ে আফগানিস্থানও পাকিস্থানের ওপর হামলা চালানোর সিদ্ধান্ত নেবে এবং ভারতের পাশে দাঁড়াবে৷ তাই পাকিস্থানের ভীত ক্রমশই দূর্বল হয়ে পড়বে৷ তবে ভারতের সঙ্গে পাকিস্থানের সাময়িক যুদ্ধ কি বড় যুদ্ধের আকার নিতে পারে, এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজছে গোটা বিশ্ব৷
বিষেজ্ঞরা মনে করছেন এই সব কিছুই সম্ভব হয়েছে শুধুমাত্র প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর জন্য।

কারণ এর আগে পাকিস্তান অনেকবার ভারতে জঙ্গি হামলা করলেও তার জবাব দেয় নি কংগ্রেস। কিন্তু এখন মোদী জামানায় পাকিস্তান কে উপযুক্ত জবাব দিচ্ছে ভারত সেই সাথে মোদীর কূটনৈতিক চালে পাকিস্তান তাদের একের পর এক বন্ধুকে হারাচ্ছে।

আন্তর্জাতিক

জিনপিং এর কাছে আবারও হারল মোদী, এবারও এনএসজি গোষ্ঠীর সদস্য হচ্ছে না ভারত

Published

on

By

প্রতিবেশী দেশ চীন নিউক্লিয়ার সাপ্লায়ার্স গ্রুপ ( NSG ) তে ভারতের সদস্যতা নিয়ে আবারও নাক গলাল। চীন শুক্রবার জানায়, নন NPT সদস্য দেশগুলির জড়িত থাকার বিষয়ে একটি নির্দিষ্ট পরিকল্পনা পৌঁছানোর আগে, এই গোষ্ঠীতে ভারতের প্রবেশের বিষয়ে কোন আলোচনা হবে না। ২০১৬ সালে মে মাসে ভারত NSG এর সদস্যপদের জন্য আবেদন করেছিল।

আর তখন থেকেই চীন বলে আসছে যে, এই গোষ্ঠীতে সেই দেশ গুলোকেই যুক্ত করা হোক, যারা Treaty on the Non-Proliferation of Nuclear Weapons (NPT) চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছে। NSG ৪৮ টি দেশের একটি সংগঠন, যারা গোটা বিশ্বে পরমাণু হাতিয়ারের ব্যাবসা করে। ভারত আর পাকিস্তান NPT তে স্বাক্ষর করেনি। আর এই গ্রুপের সদস্য হওয়া জন্য ভারতের আবেদনের পরেই, পাকিস্তানও আবেদন করে।

NSG তে ভারতের সদস্যতা নিয়ে চীনের বিদেশ মন্ত্রালয় এর মুখপাত্র লু কাং বলেছেন, যারা NPT তে স্বাক্ষর করেনি, তাঁদের কোন বিশেষ পরিকল্পনা ছাড়া এনএসজি গ্রুপের সদস্য বানানো নিয়ে কোন চর্চা হবেনা। আর এই জন্য এই গোষ্ঠীতে ভারতের সদস্যতা নিয়েও কোন চর্চা হবেনা।

লু আরও বলেন, এনএসজি এর সদস্যতা নিয়ে চীন ভারতের পথের কাঁটা কোনদিনও ছিলনা। লু বলেন, বেজিং চায় এনএসজি-তে সব নিয়ম আর অনুশাসনের পালন হোক। কাজাকিস্তানে আগামী ২০-২১ জুন এনএসজি এর বৈঠক হচ্ছে। লু বলেন, ‘আমি যতদূর জানি, এটা পূর্ণ বৈঠক হচ্ছে, আর এই বৈঠকে এনপিটি-তে স্বাক্ষর না করা দেশ গুলোর সদস্যতা আর তাঁদের সাথে জড়িত রাজনৈতিক এবং আইনি ইস্যু গুলো নিয়ে চর্চা হবে।”

Continue Reading

আন্তর্জাতিক

ট্রাম্প, পুতিন আর জিনপিং কে হারিয়ে বিশ্বের সর্ব শক্তিশালী নেতার খেতাব পেলেন নরেন্দ্র মোদী

Published

on

By

গোটা বিশ্বে আরও একবার সর্ব শক্তিশালী ব্যাক্তি হিসেবে উঠে এলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে। ব্রিটিশ হেরাল্ডের একটি সমীক্ষায়, পাঠকেরা ২০১৯ এ বিশ্বের সবথেকে শক্তিশালী মানুষ হিসেবে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে বেছে নিলেন। এই সমীক্ষায় বিশ্বের আরও তাবড় তাবড় নেতাদের নামও ছিল। যেমন, ভ্লাদিমির পুতিন, ডোনাল্ড ট্রাম্প, জিনপিং ইত্যাদি ইত্যাদি। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সবাইকে পিছনে ফেলে এক নম্বর স্থান দখল করে নিলেন। ব্রিটিশ হেরাল্ডের এই সমীক্ষায়, বিশ্বের ২৫ টির ও বেশি শক্তিশালী নেতা তথা মানুষদের নাম ছিল।

পৃথিবীর সবথেকে শক্তিশালী মানুষের নির্বাচনের জন্য ব্রিটিশ হেরাল্ড শুধুমাত্র প্রতিটি নির্বাচনী বিঁধি পালনই করেনি, তাঁরা তাঁদের পাঠকদের ভোট দেওয়ার জন্য তাঁদের মোবাইলে ওয়ান টাইম পাসওয়ার্ডও পাঠিয়েছিল। আর এর প্রধান কারণ এটাই ছিল যে, কোন ব্যাক্তি যেন একটার বেশি ভোট না দিতে পারে। ভোটিং এর সময় সাইট ক্রাশ হয়ে গেছিল, কারণ একসাথে অনেক মানুষ ভোট দেওয়ার জন্য সাইট ভিসিট করেছিলেন।

ব্রিটিশ হেরাল্ডের পাঠকেরা সবথেকে বেশি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে ৩০.০৯ শতাংস ভোট দিয়েছেন। এই নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ওনার প্রতিদ্বন্দ্বী নেতা পুতিন, ডোনাল্ড ট্রাম্প আর জিনপিং কে অনেক পিছনে ফেলে দিয়েছিলেন। এই ভোটে পুতিন ২৯.৯ শতাংশ ভোট পেয়েছেন। ডোনাল্ড ট্রাম্প ২১.৯ শতাংস, আর চীনের রাষ্ট্রপতি জিনপিং ১৮.১ শতাংশ ভোট পেয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ছবি ব্রিটিশ হেরাল্ড ম্যাগাজিনের কভার ছবিতে জুলাইয়ের এডিশনে ছাপা হবে। এই এডিশন আগামী ১৫ই জুলাই মুক্তি পাবে।

প্রসঙ্গত, ২০১৯ এর লোকসভা নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর অভূতপূর্ব সাফলতার পর গোটা বিশ্বে ওনার সন্মান অনেক বেড়ে গেছে। পুলওয়ামা হামলার পর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী যেভাবে বালাকোটে এয়ার স্ট্রাইক করিয়েছিলেন। সেটার প্রশংসা গোটা দুনিয়ায় হয়েছে, আর এর জন্য ওনাকে বিশ্বের সবথেকে শক্তিশালী ব্যাক্তি রুপে তুলে এনেছে।

Continue Reading

আন্তর্জাতিক

মোদীর ৫৬ ইঞ্চির দমে ধ্বংস হল পাকিস্তানের অর্থনীতি, এক ঝটকায় পাকিস্তানের ৭০০ কোটি টাকায় চুনা লাগালো মোদী সরকার।

Published

on

পুলওয়ামা কাণ্ডের পরই মোদী শত্রু দেশ পাকিস্তানের বিরুদ্ধে 56 ইঞ্চির বদলা নেওয়ার হুমকি দিয়েছিলেন। পাকিস্তান হয়তো তা ঘুণাক্ষরেও বুঝতে পারেনি। কিভাবে 56 ইঞ্চির বদলা মোদী নেবেন তা দেখাই দেশবাসীর কাছে প্রধান লক্ষ্য হয়ে দাঁড়িয়েছিল। কিন্তু এবার যে মোদীর হুমকি সত্যি হল তার প্রমান মিলল। চলতি আর্থিক বছরে আশি হাজার কোটি টাকার বিনেবেশ পূরণ করেছে ভারত। শুধু তাই নয় লক্ষ্য পূরণের থেকেও বেশি রান করে ফেলেছে দেশের সরকার। শত্রু পাকিস্তানের সহায়তা নিয়েই ভারতের এই সাফল্য কিছুটা হলেও সম্ভব হয়েছে।

ভারতের এই সাফল্যের কথা প্রকাশ্যে এনেছেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুন জেটলি। চলতি আর্থিক বছরে ভারত সরকার পঁচাশি হাজার কোটি টাকা বিনেবেশ-এর লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করেছে। যা শত্রুদেশ পাকিস্তানের তিন হাজার কোটি টাকা শেয়ারের মাধ্যমেই এই বিনেবেশ সম্ভব হয়েছে। ভারত সাতশো কোটি টাকা আয় করতে পেরেছে শুধুমাত্র পাকিস্তানের জন্যই। আর সেই শেয়ার এখন ভারতীয় নিবন্ধিত বাজারেই স্থগিত আছে।

2018 সালেই কেন্দ্রীয় ক্যাবিনেটে শত্রুদেশের সাতশো কোটি টাকা শেয়ার বিক্রি করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় সেই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ডিপার্টমেন্ট অফ ইনভেস্টমেন্ট এন্ড পাবলিক অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট-এর তরফ থেকে শেয়ার বিক্রি করে পাঁচাশি হাজার কোটি টাকার বিনেবেশ পূরণ করে ফেলে ভারত। যার মাধ্যমে মোট দশ হাজার ছশো কোটি টাকা ভারতের ভান্ডারে যুক্ত হয়। এর পরবর্তী আর্থিক বছরে ভারতের বিনেবেশ-এর লক্ষ্য রয়েছে 90 হাজার কোটি টাকা।

শত্রু সম্পত্তি কি-
দেশভাগের পর থেকে চিন ও পাকিস্তানে বসবাসকারী ভারতীয়দের সম্পত্তিকে শত্রুদের সম্পত্তি বলে ধরা হয়। 1968 সালে সংসদ আইন অনুযায়ী সেই সম্পত্তির ওপর ভারতের অধিকার জন্মায়। আর তারপর থেকে সেগুলো স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের অধীনে রয়েছে। এরপর 2017 সালের নতুন নিয়ম অনুযায়ী ভারতের হাতে সেই সম্পত্তি থাকলেও চিন ও পাকিস্তানে বসবাসকারী মানুষদের সম্পত্তিকে শত্রু সম্পত্তি বলে ধরে নেওয়া হয়। আর এভাবেই শত্রু সম্পত্তি তিন হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়েছে।

Continue Reading

Trending