সিএএ সাধারণ মানুষের ওপর জোর করে চাপিয়ে না দিয়ে তাঁদের বোঝানোর কথা আগেই বলেছিলেন। এর বিরোধিতায় আগেই মুখ খুলেছিলেন দলের অন্দরেই। এবার নেতাজির মূর্তির হাতে বিজেপির পতাকা গুঁজে দেওয়ার ছবি ভাইরাল হতেই ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছেন সুভাষচন্দ্র বসুর ভাইপো চন্দ্রকুমার বসু। এতে বাংলার তথা ভারতের সম্মান নষ্ট হয়েছেন বলেই মনে করছেন তিনি। এর পাশাপাশি সিএএ ইস্যুতে নিজের অসন্তোষ প্রকাশ করে বিজেপি ছাড়ারও ইঙ্গিত দিয়েছেন এই বিজেপি নেতা।

বৃহস্পতিবার নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর জন্মদিনের দিন, একটি ছবি সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল হয়। যেখানে দেখা যায়, নেতাজির মূর্তির সামনে থাকা গ্রিলে বিজেপির পতাকা লাগানোর পাশাপাশি তাঁর হাতেও একটি পতাকা গুঁজে দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে মুহূর্তের মধ্যে আলোড়ন শুরু হয় রাজ্যজুড়ে। নিন্দায় সরব হয়ে ওঠেন সমস্ত স্তরের মানুষ। বিষয়টি জানতে পেরে প্রচণ্ড অসন্তুষ্ট হন নেতাজির ভাইপো ও বঙ্গ বিজেপির সহ-সভাপতি চন্দ্র কুমার বসুও।

সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বলেন, ‘নেতাজি সুভাষচ্ন্দ্র বসু একজন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব হলেও তিনি বর্তমান রাজনীতির অনেক ঊর্দ্ধে। আমি মনে করি আজকের কোনও রাজনৈতিক দলই নেতাজিকে নিজেদের বলে দাবি করতে পারে না। কেউই তাঁর মূর্তির হাতে একটি দলের পতাকা ধরিয়ে দিয়ে তাঁর ওপর অধিকার দেখাতে পারে না। এটা খুবই দুর্ভাগ্যজনক। আমি এর তীব্র নিন্দা করি। আমার মনে হয় রাজ্যের বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষের খুব তাড়াতাড়ি এই বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া উচিত।’

এরপরই ফের সিএএ নিয়ে মন্তব্য করেন বঙ্গ বিজেপির সহ-সভাপতি। সামান্য কিছু পরিবর্তন করলে এই আইন মানতে তাঁর কোনও আপত্তি নেই বলেও উল্লেখ করেন তিনি। এই প্রসঙ্গে গান্ধীজির প্রসঙ্গ উত্থাপন করে হিন্দু-মুসলিম নির্বিশেষে সবাইকে সিএএ-র অন্তর্ভুক্ত করার পরামর্শ দেন। বলেন, ‘সামান্য কিছু পরিবর্তন হলেই আমি এই আইন সমর্থন করতে রাজি। গান্ধীজিও বলেছিলেন, আমাদের প্রতিবেশী দেশগুলি থেকে অত্যাচারিত কেউ ভারতে এলে তাঁকে আশ্রয় দিতে। কিন্তু, সেই ক্ষেত্রে কোনও নির্দিষ্ট ধর্মের কথা তিনি বলেননি। তিনি সবাইকেই এই সুযোগ দেওয়ার পক্ষপাতী ছিলেন। কিন্তু, তা যদি না হয়, তাহলে অন্য রাস্তা দেখতে হবে বলেও পরোক্ষে দলত্যাগের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি।