NRC লিস্ট থেকে বাইরে হওয়া লোকেদের জন্য করা হচ্ছে ডিটেনশন ক্যাম্প!অনুপ্রবেশকারীদের রাখা হবে এই ক্যাম্পে।

আসামে ১৯ লক্ষেরও বেশি লোককে জাতীয় নাগরিক নিবন্ধকের (এনআরসি) চূড়ান্ত তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে। তবে তারা তাদের নাগরিকত্ব প্রমাণ করার জন্য অনেক সুযোগ পাবেন। তবে যারা তালিকার বাইরে থাকবে অর্থাৎ বিদেশী নাগরিকদের রাখার জন্য আসামের গোলপাড়াতে সবচেয়ে বড় আটক কেন্দ্র (শিবির) তৈরি করা হচ্ছে। আজকাল এটির কাজ দ্রুতগতিতে চলছে। আসামের গোলপাড়া জেলার পশ্চিম মাটিয়া অঞ্চলে ভারতের প্রথম ডিটেনশন সেন্টারে (ক্যাম্প) নির্মাণ কাজ পুরোদমে চলছে।

অসমবাসী হলে আপনি 14 ই সেপ্টেম্বর থেকে আসাম ফাইনাল এনআরসি তালিকাতে অনলাইনে নিজের নামটিও দেখতে পাবেন। এই তালিকায় চূড়ান্ত তালিকায় যারা অন্তর্ভুক্ত ছিল তাদের নাম রয়েছে। প্রায় ৪৬ কোটি টাকা ব্যয়ে এই ডিটেনশন কেন্দ্র (শিবির) তৈরি করা হচ্ছে। জুনিয়র ইঞ্জিনিয়ার রবিন দাস ANI কে বলেছিলেন, ‘প্রকল্পটির কাজ 2018 সালের ডিসেম্বরে শুরু হয়েছিল। আমাদের লক্ষ্য এটি 2019 সালের ডিসেম্বরের মধ্যে শেষ করা, যার ব্যয় হবে প্রায় 46 কোটি টাকা।” দাস আরও বলেন যে এই কেন্দ্রে পৃথক শৌচাগার, হাসপাতাল, রান্নাঘর, খাবারের জায়গা, বিনোদন কেন্দ্র এবং  স্কুল থাকবে।

31 আগস্ট 2019 এ প্রকাশিত NRC চূড়ান্ত তালিকায় 19 লক্ষাধিক লোককে বাদ দেওয়া হয়েছিল। বাদ পড়া ব্যক্তিদের 120 দিনের মধ্যে আসামে স্থাপিত 300 বিদেশী ট্রাইব্যুনালে আবেদন করার সুযোগ দেওয়া হয়েছে। এনআরসি তালিকার উদ্দেশ্য হ’ল আসামে বসবাসকারী সেই নাগরিকদের আলাদা করা যারা বাংলাদেশ থেকে অবৈধভাবে এই রাজ্যে প্রবেশ করেছে। তবে এক্ষেত্রে হিন্দু শরণার্থীদের উপর কোনোভাবেই চাপ প্রয়োগ করা হবে না বলে মনে করা হচ্ছে। কারণ হিন্দুরা যারা বাংলাদেশ থেকে পালিয়ে এসেছেন তারা সকলেই মৌলবাদীদের অট্টাচার থেকে বাঁচতে পালিয়ে এসেছেন। আর ভারত ছাড়া তাদের কাছে যাওয়ার কোনো স্থান নেই।