আমি যদি মারা শুরু করি, তাহলে বংশ লোপাট হয়ে যাবে! পুলিশের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক দিলীপ ঘোষ

মাই ইন্ডিয়া ডেস্কঃ ফের বেফাঁস মন্তব্য করে বিতর্কে জড়ালেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ। মুখ্যমন্ত্রীর দিঘা সফরের পর দিলীপ ঘোষের মেচেদা সফর ঘিরে তৈরি হয়েছে বিতর্ক। দলীয় সভা থেকেই পুলিশ ও তৃণমূলকে কড়া ভাষায় হুঁশিয়ারি দিলীপ ঘোষের। কার্যত খুনের হুমকি দিয়ে জড়ালেন বিতর্কে। পুলিশও তৃণমূলকে হুঁশিয়ারি দিয়ে দিলীপ ঘোষের মন্তব্য, ”আমার নামে একাধিক খুনের মামলা দেওয়া হয়েছে। আমি যদি একবার খুন শুরু করি, তাহবে বংশ লোপাট হয়ে যাবে। সন্তানদের মুখ কাউ দেখতে পারবে না।”

এখানেই থেমে না থেকে দিলীপ ঘোষের আরও মন্তব্য, ”আমি এখনও মারিনি। যেদিন খুন করতে শুরু করব, সেদিন বুঝতে পারবেন। কাউকে জেলে যেতে দেব না। আমাকে মেরেছে, খুনের চেষ্টা করেছে, ফোনের হুমকি দিয়েছে। আমি কাউকে খুন করিনি। আমি যদি খুন করতে শুরু করি, খুঁজে পাবে না। তোমার বাড়ির লোক তোমার মুখে আগুন দিতে পারবে না।”

দিলীপ ঘোষের এই মন্তব্য নিয়ে ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে রাজনৈতিক বিতর্ক। একজন প্রথম শ্রেণির নেতা কীভাবে সভায় দাঁড়িয়ে পুলিশকে খুন ও শাসক দলকে এভাবে হুমকি দিতে পারে তা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন। যদিও রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষকে খুব একটা হালকা চালে নেয়নি রাজ্যের শাসক দল। একাধিকবার তাঁর গাড়ি ধরে বিক্ষোভ, হেনস্থা, মামলা দেওয়ার মতো অভিযোগ উঠেছে। কিন্তু তা সত্ত্বেও এবার ঘুরে দাঁড়াতেই কি দিলীপ ঘোষের এই মন্তব্য? তা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন। তবে যদি শাসক তৃণমূলকে বিঁধতে তাঁর এই আক্রমণাত্মক মনোভাব হয়ে থাকে, তাহলে কেন তিনি এভাবে প্রকাশ্যে খুনের হুমকি দিলেন? তা নিয়ে যথেষ্ট বিতর্ক তৈরি হয়েছে।

অন্যদিকে, রাজ্য বিজেপি সভাপতি নির্বাচনের জন্য রাজ্যের সমস্ত বুথ সভাপতিকে আজ মঙ্গলবার বৈঠকে অংশগ্রহণের জন্য নির্দেশ পাঠানো হয়েছে। আইসিসিআর প্রেক্ষাগৃহে এই বৈঠকে দলের ১৮ জন সাংসদ, ১৪ জন বিধায়ক ও ৩৮ জন সাংগঠনিক জেলা সভাপতিকে অংশ নিতে বলা হয়েছে। ওই বৈঠক থেকেই রাজ্য সভাপতি নির্বাচনের প্রস্তুতি সেরা নেওয়া হতে পারে। সূত্রের খবর, ২০২১-এর বিধানসভা নির্বাচনে দিলীপ ঘোষকে মুখ করেই এগোতে চাইছে বঙ্গ বিজেপি। খুব সম্ভবত তাঁকেই করা হতে পারে বাংলার ভোটের মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী। আর সেই সূত্রেই দিলীপ ঘোষকে ফের রাজ্য সভাপতির পদে ফেরাতে চলেছে গেরুয়া শিবির।

Related Articles