ভূমি পুজোর দিনে লকডাউন না প্রত্যাহার করলে ভুগতে হবে সরকারকে! হুঁশিয়ারি দিলীপ ঘোষের

 এবার রাম মন্দির ভূমি পুজোর দিনে লকডাউন ডাকা নিয়ে সরব হলেন দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh)। উনি বলেন, রাজ্য সরকার মানুষের ধর্মীয় আবেগে আঘাত হেনেছে। এদিন দিলীপ ঘোষ জানান, আগামী পাঁচই আগস্ট গোটা ভারত এই দিনটি ধুমধাম করে পালন করবে, কিন্তু আমাদের বাংলার মানুষ সেটা করতে পারবে না। কারণ ওই দিনেই লকডাউন ডেকেছেন মমতা ব্যানার্জী (Mamata Banerjee)। দিলীপ ঘোষ বলেন, রাজ্য সরকারের এই সিদ্ধান্ত অমানবিক। দিলীপ ঘোষ বলেন, লকডাউনের নিয়ম যখন চারবার পাল্টেছেন, তাহলে আরও একবার পাল্টাতে আপত্তি কোথায়?

উনি বলেন, রাজ্যের মানুষকে এই খুশি থেকে বঞ্চিত রাখার সাজা পাবেন মুখ্যমন্ত্রী। উনি এও বলেন যে, কোন সমস্যার স্থায়ী সমাধান করা হচ্ছে না। সবসময় শুধু পরীক্ষামূলক কাজ করা হচ্ছে, আর এই এক্সপেরিমেন্ট করতে করতে একদিন হাতের বাইরে চলে যাবে পরিস্থিতি। উনি জানান, দীর্ঘস্থায়ী ব্যাবস্থা নিয়ে অন্য রাজ্য হাতেনাতে ফল পেয়েছে। কিন্তু আমাদের রাজ্যে দীর্ঘস্থায়ী ব্যবস্থা নিতে প্রস্তুত না।

উনি রাজ্য সরকারকে আক্রমণ করে বলেন, করোনার আটকাতে ব্যর্থ হয়েছে রাজ্য সরকার, আরেকদিকে, এই পরিস্থিতির মধ্যে শাসক দলই রাজ্যের রাজনৈতিক হিংসা ছড়াচ্ছে। উনি জানা, এক মাসের মধ্যে বিজেপির পাঁচজন কর্মী শাসক দলের হাতে নিহত হয়েছে। মেরে ঝুলিয়ে দেওয়া হচ্ছে। করোনা, হিংসা কোনকিছুই আটকাতে পারছে না সরকার। সন্ত্রাসই সরকারের পলিসি হয়ে দাঁড়িয়েছে বলে জানান তিনি। উনি এও বলেন, রাজ্য জুড়ে যা পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে সেটা দেখে এই সরকারের ক্ষমতায় থাকার কোন অধিকার নেই।

মমতা সরকারকে কটাক্ষ করে দিলীপ ঘোষ বলেন, মুখ্যমন্ত্রী প্রথমে শ্রমিক স্পেশ্যাল ট্রেনকে ঢুকতে দেন নি রাজ্যে। এরপর আবার শ্রমিক ট্রেনকে করোনা এক্সপ্রেস বলেছেন। বিমান পরিষেবা বন্ধ রেখেছেন। আমরা দিল্লীতে বৈঠকে যোগ দিতে পারছি না, দিল্লীর নেতা-মন্ত্রীরাও এই রাজ্যে আসতে পারছেন না। উনি বলেন, রাজ্যবাসীকে ইচ্ছে করে কষ্ট দেওয়া হচ্ছে। দেশ থেকে বাংলাকে বিচ্ছিন্ন করার ষড়যন্ত্র চলছে এ রাজ্যে।