মসজিদ তৈরিতে বাধা দিয়েছিল জিয়াগঞ্জের পরিবার, তাই হয়েছে হত্যা! দাবি সাইবার এক্সপার্টের

মাই ইন্ডিয়া ডেস্কঃ মুর্শিদাবাদ হত্যাকান্ড নিয়ে দেশজুড়ে প্রতিবাদ তীব্র হচ্ছে। পশ্চিমবঙ্গে তেমন কোনো বড়ো প্রতিবাদ দেখা না গেলেও দেশের অন্যান্য প্রান্তে এই ইস্যুতে তীব্র প্রতিবাদ দেখা গেছে। বিহার, ঝাড়খন্ড, উত্তরপ্রদেশের মানুষ পথে নেমে ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়েছেন। মুর্শিদাবাদ হত্যাকাণ্ড নিয়ে পুলিশ কার্যবাহী শুরু করলেও ঘটনার রহস্য লাগাতার ঘনীভূত হচ্ছে। কারণ প্রথম দিকে কিছু দালাল মিডিয়া প্রমান ছাড়াই বন্ধুপ্রকাশ পালের স্ত্রীর চরিত্র নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিল। কিছু মিডিয়া দাবি করেছিল এই ঘটনার পেছনে পরকীয়া সম্পর্কিত ইস্যু রয়েছে। যদিও সেই সমস্ত মিডিয়াগুলো এনিয়ে কোনো প্রমাণ দিতে পারেনি।

এরপর পুলিশ ও CID তদন্ত করে যে দাবি করেছে তাও অনেকে মানতে পারেননি। পুলিশ ও CID এটাকে টাকা পয়সা সংক্রান্ত বিষয়ে সাথে জড়িত বলে দাবি করেছে। কিন্তু টাকা পয়সায় কারণে গর্ভবতী মহিলা ও শিশুর নৃশংস হত্যা কিভাবে কেউ করতে পারে সেটা নিয়ে অনেকেই প্রশ্নঃ তুলেছেন। এখন মুর্শিদাবাদ হত্যাকান্ড নিয়ে যে দাবি সামনে আসছে তা খুবই গম্ভীর ও চাঞ্চল্যকর। আর এই দাবি সোশ্যাল মিডিয়া সূত্রেই সামনে এসেছে। সাইবার এক্সপার্ট ও ডেটা সায়েন্টিস্ট গৌরব প্রধান এই ঘটনাকে মসজিদ নির্মাণের সাথে জুড়েছেন। টুইট করে মুর্শিদাবাদ হত্যাকাণ্ড নিয়ে গম্ভীর অভিযোগ তুলেছেন গৌরব প্রধান।

গৌরব প্রধান অভিযোগ করেছেন যে মসজিদ নির্মাণের বিরুদ্ধে চিঠি ফাঁসের কারণে আরএসএস সদস্য ও পরিবারকে হত্যা করা হয়েছে। দেশজুড়ে যখন হিন্দুদের পবিত্র দুর্গাপুজা উৎসব চলছিল তখন বন্ধুপ্রকাশ পাল, তার গর্ভবতী স্ত্রী বিউটি ও তাদের ৮ বছরের ছেলেকে নির্মম হত্যা করা হয়েছিল। গৌরব প্রধান মুর্শিদাবাদ হত্যা মামলায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারের বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ তুলে ঘটনার CBI তদন্তের দাবি তুলেছেন।

 

গৌরব প্রধান এর দাবি অনুযায়ী, মুর্শিদাবাদের মুসলিম বহুল এলক জিয়াগঞ্জের লেবুতলায় ১৭ কাঠা জমির উপর মসজিদ বানাতে চেয়েছিল মুসলিমদের এক কমিটি। সেই মসজিদ নির্মাণ আটকাতে চেয়ে বন্ধুপ্রকাশ পাল একটা চিঠি লিখেছিলেন যা লিক হয়ে যায়। যারপর কমিটির লোকজন বন্ধুপ্রকাশ পাল ও তার পরিবারকে জেহাদী কায়দায় হত্যা করে। গৌরব প্রধান মমতার সরকারের চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে CBI বা NIA তদন্ত করার কথা বলেছেন। গৌরব প্রধান বলেছেন, আমি চ্যালেঞ্জ করে বলছি যদি মমতা ব্যানার্জীর সাহস থাকে তাহলে তদন্ত CBI বা NIA কে দিক।