fbpx
দেশনতুন খবরপশ্চিমবঙ্গমতামত

মোদী সরকারের হিন্দুত্ববাদী প্রভাব এসে পড়ল কলকাতা বইমেলায়, এবার বইমেলায় ব্যাপক হারে বিক্রি হচ্ছে হিন্দুত্ববাদী এই সমস্ত বই গুলি।

২০১৪ সালে কেন্দ্রে নরেন্দ্র মোদি সরকার আসার পর থেকে দেশজুড়ে হিন্দুত্ববাদের ঝড় বয়ে যাচ্ছে, এবার সেই ঝড়ের আঁচ এসে পড়ল পশ্চিমবঙ্গে। আর তারই প্রভাব দেখা গেল এই বছর কলকাতা বইমেলায়। এবার কলকাতা বই মেলায় হিন্দুত্ববাদী বই এর স্টল গুলিতে চোখে পড়ার মতো ভিড় লক্ষ্য করা গিয়েছে, এছাড়াও জানা গিয়েছে হিন্দুত্ববাদী বই কেনার চাহিদা প্রচুর যেটা গত পাঁচ-ছয় বছরের তুলনায় সর্বাধিক। সৌরিশ মুখোপাধ্যায় যিনি বিশ্ব হিন্দু পরিষদের মিডিয়া কো-অর্ডিনেটর তিনি নিজের মুখে একথা স্বীকার করেছেন।

সৌরিশ বাবু জানিয়েছেন যে প্রত্যেক বছরই মানুষ এসে ভিড় করে বিশ্ব হিন্দু পরিষদের বইয়ের স্টল গুলিতে। কিন্তু এবার যেন এক আলাদা পরিবেশ। এবার ভীড় যথেষ্ট বেশি অন্য বছর গুলির তুলনায়। উনি এ ব্যাপারে আরও জানিয়েছেন উনি জানিয়েছেন যে মানুষের বরাবরই একটা আলাদা টান থাকে হিন্দু ধর্মীয় বিষয়ক বইগুলির উপর কারণ এগুলিতে মানুষের আত্মার সাথে সম্পর্কিত এবং প্রাচীন ইতিহাস সম্বন্ধে অনেক কিছু জানা যায়, কিন্তু সেইসব এর মধ্যেও এ বছরের ধর্মীয় বইয়ের চাহিদা বেড়ে গিয়েছে অনেক বেশি, এর কারণ হিসেবে উনি তুলে ধরেছেন মোদি সরকার দেশে আসার পর হিন্দুত্ববাদী চর্চা আগের তুলনায় বেড়ে গিয়েছে আর সেজন্যই হিন্দু বইয়ের প্রতি মানুষের আকর্ষণ বেড়েছে। এবার মানুষ কোন কোন বই গুলি বেশি পরিমাণে ক্রয় করছেন এই ব্যাপারে উনি জানিয়েছেন যে, ভগবান শ্রী রাম চন্দ্রের জন্মভূমির উপর যেসমস্ত বই গুলি রয়েছে সেগুলির চাহিদা সবচেয়ে বেশি। তবে এই সবের পাশাপাশি স্বামী বিবেকানন্দের আত্মজীবনী মূলক বই এর চাহিদা রয়েছে প্রবল।

এছাড়া উনি জানিয়েছেন যে ভারতের শ্রেষ্ঠ মহাকাব্য ”মহাভারত” ও ”রামায়ণের” চাহিদা আজও পর্যন্ত মানুষের মধ্যে একই রকম রয়ে গিয়েছে। অনেক দিন আগে থেকে এই বইগুলি পাওয়া গেলেও এখনও পর্যন্ত এই বইগুলি প্রতি আকর্ষণ এতটুকু কমেনি তাই এই বই গুলির বিক্রি প্রচুর পরিমাণে হচ্ছে বলে জানা গিয়েছে। এছাড়াও গান্ধীজির হত্যাকারী গডসে এর লেখা বই “আমি গডসে বলছি” এই বইটি চাহিদা রয়েছে প্রবল।
#অগ্নিপুত্র

Open

Close