আজ বীর বীরাঙ্গনা ঝাঁসির রানী লক্ষী বাইয়ের জন্মদিন, যার নাম শুনে কাঁপত ব্রিটিশরা

0
51

মাই ইন্ডিয়া ডেস্কঃ ১৮২৭ সালের ১৯ নভেম্বর তিনি মহারাষ্ট্রের মারাঠার ব্রাহ্মণ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। ১৮৪২ সালে ঝাঁসির মহারাজা গঙ্গাধর রাও নিওয়াকরের সঙ্গে তাঁর বিয়ে হয়। এভাবেই তিনি ঝাঁসির রানি (Rani of Jhansi) হিসেবে পরিচিতি পান। বিয়ের পর তাঁর নতুন নাম হয় লক্ষ্মী বাঈ।

১০ মে ১৮৫৭ সালে মিরাটে বিদ্রোহের সূচনা হয়। চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে, লি এনফিল্ড রাইফেলের আচ্ছাদনে শূকরের মাংস আর গরুর চর্বি ব্যবহার করা হয়। এরপরও ব্রিটিশ শাসকগোষ্ঠী রাইফেলে শূকরের মাংস ও গরুর চর্বির ব্যবহার অব্যাহত রাখে। তারা বিবৃতি দেয়, যারা এই রাইফেল ব্যবহারে অসম্মতি জানাবে, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আদেশ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে শুরু করে ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষ। এই বিদ্রোহে সিপাহিরা অনেক ব্রিটিশ সেনাসহ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানিতে নিযুক্ত কর্মকর্তাদের হত্যা করেন।

সমগ্র ভারতবর্ষে গণ-আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ে। লক্ষ্মী বাঈ ঝাঁসির নেতৃত্বে ঝাঁসিতে শান্ত ও শান্তিপূর্ণ অবস্থা বজায় ছিল। ব্রিটিশ সৈন্যরা স্যার হিউজ রোজের নেতৃত্বে ঘাঁটি গেড়ে বসে এবং ২৩ মার্চ ১৮৫৮ তারিখে ঝাঁসি অবরোধ করে। লক্ষ্মী বাঈ তাঁর বাহিনীর সামনে দাঁড়িয়ে নেতৃত্ব দেন। ঝাঁসি আর লক্ষ্মী বাঈকে মুক্ত করতে ২০ হাজার সৈন্যের একটি দলের নেতৃত্ব দেন অন্যতম বিদ্রোহী নেতা তাতিয়া টোপি। ব্রিটিশ সৈন্য দলে সৈনিকের সংখ্যা ছিল মাত্র ১ হাজার ৫৪০ জন। এরপরও তাতিয়া টোপি ব্রিটিশ সৈন্যদের অবরোধ ভাঙতে পারেননি।

কারণ ব্রিটিশ সৈনিকেরা ছিল প্রশিক্ষিত ও শৃঙ্খলাবদ্ধ। রানি লক্ষ্মী বাঈয়ের বাহিনী এ আক্রমণ সহ্য করতে পারেনি। আক্রমণের তিন দিন পর ব্রিটিশ সৈন্যরা দুর্গের দেয়ালে ফাটল ধরায় এবং ঝাঁসি শহরে নিজেদের শাসন প্রতিষ্ঠা করে। এর আগেই এক রাতে দুর্গের দেয়াল থেকে সন্তানসহ লাফ দিয়ে লক্ষ্মী বাঈ প্রাণ রক্ষা করেন ও পালিয়ে যান।

রানি কাল্পিতে যান। সেখানে তিনি অন্য বিদ্রোহী বাহিনীর সঙ্গে যোগ দেন। এরপর রানি লক্ষ্মী বাঈ এবং তাতিয়া টোপি গোয়ালিয়রের দিকে রওনা দেন। সেখানে তাদের যৌথ বাহিনী গোয়ালিয়রের মহারাজার দলকে পরাজিত করে। পরাজিত বাহিনীর সদস্যরা পরে যৌথ বাহিনীর সঙ্গে যোগ দেয়। কৌশলগত অবস্থানে থাকা গোয়ালিয়রের কেল্লা দখল করে লক্ষ্মী বাঈ আর টোপির সম্মিলিত বাহিনী। ১৭ জুন ১৮৫৮ সালে ফুল বাগ এলাকার কাছাকাছি কোটাহ-কি সেরাইয়ে রাজকীয় বাহিনীর সঙ্গে যুদ্ধে নিহত হন রানি লক্ষ্মী বাঈ।