সোশ্যাল মিডিয়ায় মীরের ট্রলের শিকার ‘হাম কাগজ নেহি দিখায়েঙ্গে” এর তারকারা

গোটা দেশ সিএএ, এনআরসি আর এনপিআর নিয়ে উত্তাল। আরেকদিকে মোদী সরকার গত ১০ই জানুয়ারি থেকে গোটা দেশে সিএএ কার্যকর করে দিয়েছে। সিএএ এর বিরুদ্ধে সবথেকে বেশি সরব হয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী আর কেরলের বাম মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন। কেরলের মুখ্যমন্ত্রী প্রথমে কেরল বিধানসভায় সিএএ এর বিরুদ্ধে প্রস্তাব পাশ করিয়ে নেন। আর এরপর একদিন আগেই সুপ্রিম কোর্টে সিএএ এর বিরুদ্ধে চ্যালেন জানান। কেরলই দেশের প্রথম রাজ্য যারা সিএএ নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে গেছে।

আরেকদিকে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী সিএএ নিয়ে সবথেকে বেশি সরব হয়েছেন। তিনি প্রায় দিনই রাজ্যের চারিদিকে একের পর এক সিএএ বিরোধী সভা করেই চলেছেন। এমনকি শাসক দল তৃণমূলও রাজ্য জুড়ে সিএএ বিরোধী সভা করছে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী কার্যত হুঁশিয়ারির সুরে বলেছেন যে, তিনি যতদিন বেঁচে থাকবেন ততদিন এরাজ্যে সিএএ লাগু হতে দেবেন না। উনি ন্যাশানাল পপুলেশন রেজিস্টারেও না জানিয়েছেন। আরেকদিকে কেন্দ্র সরকার ফের নোটিফিকেশন জারি করে সমস্ত রাজ্যে এনপিআর শুরু করার কথা জানিয়েছে।

সিএএ এর বিরুদ্ধে দিন কয়েক আগেই মুখ খুলেছিলেন টলিউডের অভিনেতা, অভিনেত্রী এবং গায়কেরা। অভিনেত্রি স্বস্তিকা মুখোপাধ্যায়, কঙ্কনা, অভিনেতা সব্যসাচী চক্রবর্তী, গায়ক রুপম ইসলামরা সিএএ এর বিরুদ্ধে একটি ভিডিও জারি করেছিলেন। ওই ভিডিওতে ওনারা বলেছিলেন যে, ওনারা কাগজ দেখাবেন না। এরপরেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রলের বাহার শুরু হয়। অনেকেই বিদ্রুপ করে বলেছেন, এনারা ট্রেন, বিমানে উঠেও কাগজ দেখাবেন না। আবার অনেকেই ছয় বছর আগে স্বস্তিকার বিদেশে একটি কান্ড তুলে ধরে স্বস্তিকাকে আক্রমণ করেছেন।

এরই মধ্যে টলিউডের আরেক অভিনেতা মীর আফসার আলী এবার যারা কাগজ দেখাবে না বলেছিল, তাঁদের নিয়ে ট্রল করলেন। মীর নিজের সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্টে একটি ছবি পোস্ট করে ক্যাপশন দেন ‘কাগজ আমি দেখাবো না! নিজের পয়সায় কিনুন আর পড়ুন!” ওনার এই পোস্ট স্বস্তিকা, কঙ্কনা, সব্যসাচী, রূপম ইসলামদের ওই ভিডিও শেয়ার হওয়ার পরেই এসেছে। আর এই পোস্টে উনি যে হালকা করে তাঁদের বিদ্রুপ করেছেন সেটা বোঝাই যাচ্ছে। আরেকদিকে উনি নিজের অ্যাকাউন্ট দিয়ে ওনার আর ওনার মেয়ের একটি ছবি শেয়ার করেছিলেন। সেখানে একজন ওনার মেয়ের ফোন নম্বর চাওয়াতে উনি যা রিপ্লাই দিয়েছিলেন সেটাও এই কাগজ দেখাব না কেই বিদ্রুপ করে করা হয়েছিল।