সুখবরঃ মোদী সরকারের আমলে বিশ্বের পঞ্চম বৃহৎ অর্থনীতির দেশ হয়ে উঠল ভারত! পিছিয়ে ফ্রান্স-ব্রিটেন

0
221

ভারতের অর্থনীতির (Indian Economy) জন্য বড় খবর। আমেরিকার গবেষণা সংস্থা ওয়ার্ল্ড পপুলেশন রিভিউ (World Population Review) একটি রিপোর্ট জারি করে বলছে যে, ভারত বিশ্বের পঞ্চম সবথেকে বড় অর্থনীতির দেশে পরিণত হয়েছে। ২.৯৪ ট্রিলিয়ন ডলারের ইকোনমির সাথে ভারত ২০১৯ সালে ব্রিটেন আর ফ্রান্সকে পিছনে ফেলে দিয়েছে। আপনাদের জানিয়ে দিই, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে ভারতকে ৫ ট্রিলিয়ন ডলারের অর্থনীতির দেশ বানানোর লক্ষ্য রেখেছে।

World Population Review নিজেদের রিপোর্টে বলেছে যে, আত্মনির্ভর নির্ভর হওয়ার নীতি নিয়ে ভারত এখন এগিয়ে চলছে, আর সেই হিসেবেই একটি খোলা বাজার হিসেবে নিজেদের অর্থব্যবস্থাকে উন্নত করছে।

সংবাদ সংস্থা পিটিআই অনুযায়ী, ব্রিটেনের অর্থব্যবস্থা ২.৮৩ ট্রিলিয়ন ডলার। আর ফ্রান্সের অর্থনীতি ২.৭ ট্রিলিয়ন ডলারের। ক্রয় শক্তি সমানতা এর ভিত্তিতে ভারতের জিডিপি ১০.৫১ ট্রিলিয়ন ডলার। ভারত এই হিসেবে জাপান আর জার্মানির থেকেও আগে। যদিও ভারতে অত্যাধিক জনসংখ্যার কারণ প্রতি ব্যাক্তি জিডিপি মাত্র ২১৭০ ডলার। আমেরিকায় ব্যাক্তি পিছু জিডিপি ৬২,৭৯৪ ডলার। রিপোর্টে এও বলা হয়েছে যে, ভারতের প্রকৃত জিডিপি বৃদ্ধি দর লাগাতার তৃতীয় তৈমাসিকে কম হতে পারে আর সেটি ৫ শতাংশের আশেপাশে থাকতে পারে।

রিপোর্টে বলা হয়েছে যে, ভারতে আর্থিক উদারনীতি (কংগ্রেস আমলে) ১৯৯০ এ শুরু হয়। শিল্পর নিয়ন্ত্রণ মুক্ত করা হয়েছে আর বিদেশী ব্যবসা এবং বিনিয়োগের উপর কম নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে। সাথে স্তাহে সরকারের কোম্পানি গুলোকে বেসরকারিকরণ করা হয়েছে। আর এই কারণে ভারতে আর্থিক বৃদ্ধি দ্রুত গতিতে এগোনর সম্ভাবনা আছে। রিপোর্ট জারি করা মাএরিকার সংস্থা একটি স্বাধীন সংগঠন।

জিডিপি গ্রোথের মামলায় ভারতীয় অর্থব্যবস্থার পরিস্থিতি এখন খুব একটা ভালো না। সম্প্রতি অনেক কয়েকটি রেটিং এজেন্সি জিডিপি বৃদ্ধির দর কমিয়ে দিয়েছে। রেটিং এজেন্সি মুডিজও ভারতের জিডিপি বৃদ্ধির দক কমিয়েছে। মুডিজ ভারতের আর্থিক বৃদ্ধি ২০২০ সালে ৬.৬ থেকে কমিয়ে ৫.৪ শতাংশ করে দিয়েছে। আরেকদিকে, ২০২১ সালেও জিডিপি বৃদ্ধির অনুমান ৬.৭ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৫.৮ শতাংশ করে দিয়েছে এই সংস্থা।