ব্রহ্মস মিসাইলকে আরও ঘাতক বানাচ্ছে ভারত-রাশিয়া, গোটা পাকিস্তান থাকবে নিশানায়

মাই ইন্ডিয়া ডেস্কঃ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী দুই দিবসিয় সফরে রাশিয়া গেছেন। সেখানে তিনি বাণিজ্য, প্রতিরক্ষা আর পরমাণু শক্তি নিয়ে চুক্তি করেন। আগামী দিনে দুই দেশই সুপারসনিক ক্রুজ মিসাইল ব্রহ্মস মিসাইলের রেঞ্জ ২৯০ কিমি থেকে বাড়িয়ে ৬০০ কিমি করার কাজ শুরু করবে। এরফলে শুধু পাকিস্তানই না, এই মিসাইলের টার্গেটে থাকবে ভারতের সমস্ত শত্রুরা। সহজেই শত্রুদের ধ্বংস করার জন্য ভারত আর রাশিয়া এই মিসাইলকে আরও উন্নত করতে চলেছে।

ব্রহ্মস মিসাইল কম দূরত্বের রেমজেট ইঞ্জিন যুক্ত সুপারসনিক ক্রুজ মিসাইল। এই মিসাইল ডুবো জাহাজ থেকে, জাহাজ থেকে, লড়াকু বিমান এবং জমি থেকেও ফায়ার করা যায়। রেমজেট ইঞ্জিনের সাহায্যে মিসাইলের ক্ষমতা তিনগুন বেড়ে যায়। যদি কোন মিসাইলের ক্ষমতা ১০০ কিমি দূর পর্যন্ত থাকে, তাহলে এই রেমজেট ইঞ্জিনের সাহায্যে সেই মিসাইলের ক্ষমতা ৩২০ কিমি পর্যন্ত বাড়ানো যাবে।

রাশিয়ার এনপিও মস্কোসট্রোনিয়া আর ভারতের ডিআরডিও সংযুক্ত রুপে এই মিসাইলকে বিকশিত করবে। এটা রাশিয়ার পি-৮০০ অঙ্কিস ক্রুজ মিসাইলের টেকনলজির উপর নির্ভর করবে। ব্রহ্মস মিসাইল এর নাম ভারতের ব্রহ্মপুত্র আর রাশিয়ার মস্কবা নদীর নামে রাখা হয়েছে। এই সুপারসনিক ক্রুজ মিসাইলের গতি শব্দের থেকেও তিনগুন বেশি।

হাওয়া থেকে ফায়ার করায় সক্ষম ২.৫ টনের ওজনের এই ব্রহ্মস মিসাইলের মারক ক্ষমতা ৩০০ কিমি। এই মিসাইলের এয়ার ভার্সনের পরীক্ষা লাগাতার চলছে। বায়ুসেনা শুখোই লড়াকু বিমান থেকে এই মিসাইলের বেশ কয়েকটি ফায়ার ট্রায়াল করা হয়েছে। ব্রহ্মস মিসাইল ক্রুজ মিসাইল শব্দের গতির থেকে প্রায় তিনগুন বেশি ২.৮ ম্যাক গতিতে লক্ষ্যে প্রহার করে।এই মিসাইল ফায়ার করার পর শত্রুরা নড়ার পর্যন্ত সময় পাবেনা। ব্রহ্মস মিসাইল দিন অথবা রাত, যেকোন আবহাওয়ায় ফায়ার করা যেতে পারে। ব্রহ্মস মিসাইলের মারক ক্ষমতা অভেদ্য।

বর্তমানে চীন আর পাকিস্তানের কাছে এখনো পর্যন্ত এরকম মিসাইল নেই, যেটা দিয়ে জমি, হাওয়া আর জল তিন যায়গা থেকে ফায়ার করা যায়। বর্তমানে ভারত আর রাশিয়া এই মিসাইলের গতি বাড়ানোর জন্য হাইপারসনিক গতির উপর কাজ করছে। যেকোন মিসাইল হাইপারসনিক হওয়ার মানে এই যে, সেই মিসাইলের ইঞ্জিন ৬ হাজার ২০০ কিমি প্রতি ঘণ্টার থেকেও বেশি গতি হবে। এই মিসাইলে লাগানো রেমজেট ইঞ্জিনে সলিড ফ্লুইডের ব্যাবহার করা হয়। ব্রহ্মস এয়রোস্পেস এর সিইও সুধীর কুমার মিশ্র কিছুদিন আগে বলেছিলেন যে, এই মিসাইলের প্রযুক্তি নিয়ন্ত্রণ ব্যাবস্থার সদস্য হওয়ার কারণে এবার ভারত আর রাশিয়া ব্রহ্মস মিসাইলের মারক দূরত্ব বাড়ানোর জন্য কাজ করছে।

 

Related Articles