fbpx
আন্তর্জাতিকনতুন খবর

ইজরাইলের সাহায্য নিয়ে ফের পাকিস্তানে মারাত্মক আঘাত করতে চলেছে ভারত। মাথায় হাত ইমরান খানের।

ফেরও আশঙ্কায় ভুগছে পাকিস্তান৷ গোপনে দ্বিতীয় সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের মতো পাকিস্তানের ওপর আরও বড় আঘাত হানতে পারে ভারত৷ ইজরায়েলের সাহায্য নিয়েই বড় ধরনের হামলার আশঙ্কা রয়েছে পাকিস্তানে৷ আসলে এর আগেই ভারতকে যেকোনো বড় ধরনের যুদ্ধে সামরিক অস্ত্র সহ বিভিন্ন দিক থেকে সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল ইজরায়েল৷ এমনকি ভারতের পাশে যে তিনটি শক্তিধর দেশ রয়েছে তাদের মধ্যে ইজরায়েল এক নম্বরে রয়েছে৷ পুলওয়ামা কাণ্ডের পর পাকিস্তানের মাটিতে যেভাবে অভিযান চালিয়েছে তারপর পাকিস্তানের চাপ যেভাবে বেড়েছে তাতে দিল্লীর পক্ষ থেকে বিষয়টি অস্বাভাবিক নয় বলেই জানানো হয়েছে৷ তাই পাকিস্তানের কাছে ইজরায়েলের ভারতকে সাহায্য করার খবরে পাকিস্তান আর বেশি করে চাপের মুখে পড়েছে৷ প্রসঙ্গত, পুলওয়ামা কাণ্ডের পর ভারতের সন্ত্রাসবাদ দমনের জন্য ভারতের পাশে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছিল ইজরায়েল৷

এবার ইজরায়েলের শক্তিশালী সামরিক শক্তির সাহায্য নিয়ে পাকিস্তানের মাটিতে আবারও হামলা চালাতে পারে ভারত, তাই কার্যত বিষয়টি নিয়ে বেশ চিন্তিত ইমরান সরকার৷ মঙ্গলবার একটি প্রথম সারির সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত খবর আনুযায়ী পাকিস্তান নাকি ভারতের হামলার জন্য ভয়ে প্রহর গুণছে৷ ওই সংবাদ মাধ্যম সূত্রে আরও খবর মিলেছে অভিনন্দনকে না ছাড়লে যে ব্রহ্মোস হামলার কথা জানিয়েছিল মোদী সরকার তা আপাতত স্থগিত থাকলেও পাকিস্তানের মাটিতে ইজরায়েলের সামরিক শক্তির সাহায্য নিয়ে পাকিস্তানের মাটিতে আবারও হামলার গোপন পরিকল্পনা চালাচ্ছে৷ শুধু মাটিতেই নয় আকাশ পথেও চলতে পারে অভিযান৷ তবে এবার কাশ্মীর ইস্যু নয় রাজস্থান সীমান্ত থেকে ভারত পাকিস্তানের মাটিতে আঘাত হানবে বলেই আপাতত খবর৷ পাকিস্তানের সীমান্ত থেকে একশো মিটার দূরে রাজস্থানের এই এয়ার স্টেশন থেকে হামলা চালানোটা খুব একটি কঠিন হবে না বলেই খবর৷

তাই বায়ুসেনাদের এই সিদ্ধান্ত বলে ভারতীয় বায়ুসেনা দফতর সূত্রের খবর৷ তবে ভারত যে আকাশপথে আবারও হামলা চালাতে পারে এমন খবর আগে থেকেই পেয়েছে পাকিস্তান৷ পাকিস্তান এয়ার ফোর্সের প্রধান মার্শাল মুজাহিদ আনোয়ার খান জানিয়েছেন, ভারতের হামলার আশঙ্কা জানার পারই পাকিস্তানের সমস্ত এয়ার ফোর্সের অফিসারদের জোরদার প্রস্তুতি নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে৷ আসলে ভারতীয় বায়ুসেনা প্রধান বিএস ধানোয়া সাংবাদিক বৈঠকে ভারতের প্রত্যাঘাতের যে ইঙ্গিত দিয়েছিলেন সেখান থেকে পাকিস্তান সচেতন হয়ে গেছে৷ আসলে ভারতের দ্বিতীয়বার সার্জিক্যাল স্ট্রাইকই পাকিস্তানকে সচেতন করে দিয়েছে৷ কিন্তু ইজরায়েলের মতো শক্তিধর দেশের সামরিক শক্তির সঙ্গে পাকিস্তানের দুর্বল সামরিক বাহিনী কতটা পেরে উঠবে সেটাই প্রশ্নের বিষেয়৷

আর এই খবর প্রকাশ্যে আসার পর থেকেই ভারত এবং ইসরাইলের শক্তির উপর ধারণা করে পাকিস্তান ক্রমশ ভয় পেয়ে গিয়েছে। কারণ তারা জানে যে ভারত এবং ইজরাইল যদি একসাথে তাদের ওপর আঘাত আনে তাহলে তাদের অবশিষ্ট আর কিছু বেঁচে থাকবে না, পুরোপুরিভাবে ধ্বংস হয়ে যাবে পাকিস্তানে সামরিক বাহিনী।

Open

Close