fbpx
আন্তর্জাতিকদেশ

সিংহ খাঁচায় থাকুক বা বনে, সে জঙ্গলের রাজাই থাকে। আর সেটাই প্রমান করলেন বায়ুসেনার পাইলট অভিনন্দন মিশ্র। বুক ফুলিয়ে জবাব দিলেন পাকিস্তানকে।

ভারতীয় সেনা আর পাকিস্তানী সেনার মধ্যে একটাই পার্থক্য সেটা হল বীর এবং কাপুরুষের। অর্থাৎ ভারতীয় সেনা যতটা বীর ঠিক ততটাই কাপুরুষ হল পাকিস্তানী সেনা। পাকিস্তানী সেনা কাশ্মীরের মুসলিম যুবকের ধর্মীয় দিক দিয়ে ব্রেন ওয়াশ করে তাদের জঙ্গি তৈরি করে এবং নিজেরা সামনে থেকে লড়াই করতে না পেরে জঙ্গি হামলা করায়। আর ভারত মাতার বীর সন্তানরা বীরের মতন দেশ রক্ষা করে। আজ আবার পাকিস্তানের কাপুরুষোচিত মুখোশ খুলে গেল। ভারতীয় বায়ুসেনা পাকিস্তানের সমস্ত জঙ্গি ঘাঁটি ভেঙ্গে গুঁড়িয়ে দিয়েছে আর সেই জন্য সামনে থেকে ভারত কে আটকাতে না পেরে পাকিস্তানী সেনারা তাদের ফাইটার জেট নিয়ে লুকিয়ে লুকিয়ে ভারতীয় সেনাবাহিনীকে নিশানা করতে চেয়েছিল কিন্তু তাদের সেই চেষ্টা ব্যার্থ করে দেয় উইং কম্যান্ডার অভিনন্দন মিশ্র। পাকিস্তানী বিমান ভারত কে আঘাত করার জন্য ভারতে ঢুকলে সেই বিমান কে ধ্বংস করার জন্য মিগ-২১ নিয়ে উড়ে যায় কম্যান্ডর অভিনন্দন মিশ্র।

উনি পাকিস্তানের সেই বিমান কে পরাস্ত করেন সেই সময় উনার বিমানটিও ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তারফলে উনি বিমান থেকে প্যারাসুটের সাহায্যে ঝাঁপিয়ে পড়েন কিন্তু দুঃখের বিষয় উনি ভারতের বদলে গিয়ে পড়েন পাকিস্তানে। আর তারপরই দল বেঁধে পাকিস্তানি সেনা উনার উপর চড়াও হন উনাকে ব্যাপক অত্যাচার করেন। উনার নাক, মুখ দিয়ে রক্ত বের করে দেয়। এর ফলে পাকিস্তান সরাসরি জেনেভা কানেকশন লঙ্ঘন করে। নিয়ম রয়েছে যুদ্ধের সময় কেউ যুদ্ধবন্দি হলে তার সাথে ভালো ব্যবহার করে তাকে নিজের দেশে ফেরত পাঠানো কিন্তু পাকিস্তান তার উল্টো করল। অত্যাচার করল যুদ্ধ বন্দির সাথে। পাকিস্তানি সেনারা ওনাকে ধরে সঙ্গে সঙ্গে বন্দি করে ফেলেন এবং তারপর তাকে উনার নাম, উনার কাজ এবং উনার পরিচয়, ধর্ম জিজ্ঞাসা করেন কিন্তু অবাক করা ব্যাপার এটা হল যে উনি পাকিস্তানের হাতে পড়ে কোন রকমের সংকোচ বোধ করেননি।

উনি নিজের বুক ফুলিয়ে সমস্ত জবাব দিয়েছেন এবং পাকিস্তানকে বলেছেন যে উনি ভারতীয় বায়ুসেনার একজন পাইলট। সেই সাথে ওনাকে ভারতীয় বায়ুসেনার পরবর্তী পদক্ষেপ জিজ্ঞাসা করা হলে উনি সরাসরি জানিয়ে দেন যে আমি সেই ব্যাপারে কিছু জানাতে পারবো না, কারণ পাকিস্তান হলো ভারতের শত্রু দেশ। আর এতেই বোঝা যায় সে ভারতবর্ষের সেনা জওয়ান পৃথিবীর যে প্রান্তেই থাকুক না কেন তারা সবসময় সিংহের মতো গর্জন করবে। সেই সাথে উনি বুঝিয়ে দেন ভারতীয় সেনা কারুর কাছে মাথা নত করতে শেখেনি, আর পাকিস্তানের কাছে তো নয়ই। সে প্রমাণ করে দেন মরতে হলে বীরের মতন মরবেন কিন্তু দেশের ক্ষতি হতে দেবেন না।

অপরদিকে পাকিস্তান যদি উনাকে অক্ষত অবস্থায় ফিরিয়ে না দেয় তাহলে সেটা হবে তাদের অন্যতম একটা বড় ভুল। এই ভুলের বড় মাশুল দিতে হবে ইমরান খান কে।
#অগ্নিপুত্র

Open

Close