fbpx
আন্তর্জাতিকনতুন খবর

বড় খবর! প্ৰবল চাপে পাকিস্তান, পাকিস্তানের উপর ব্যালাস্টিক মিশাইল হামলা করার জন্য প্রস্তুত ইরান সরকার। প্রতিবেশীর চাপ জড় ইমরান খান।

ভারতের পুলওয়ামার জঙ্গী হানার সময় ইরানেও জঙ্গী হানা হয়েছিল৷ যার জেরে ইরানের একুশ জন জওয়ান প্রাণ হারিয়েছে৷ এই ঘটনায় সরাসরি পাকিস্থানকেই দায়ী করেছিল ইরান সরকার৷ তাই পাকিস্থানের আলকায়দা জঙ্গীদের ইরানের হাতে তুলে দেওয়ার জন্য পাকিস্থানের কাছে আবেদন করেছিল ইরান সরকার৷ এমনিতেই ইরান সীমান্তে প্রাচীর তুলে দেওয়া নিয়ে পাকিস্থানের প্রতি ইরানের একটা ক্ষোভ রয়েইছে তারওপরে জঙ্গী হানার ঘটনায় ক্রমইশই উত্তপ্ত হচ্ছে ইরানের জাতীয় রাজনীতি৷ তাই পাকিস্থানের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ নিতে প্রস্তুতি নিচ্ছে ইরান৷ তাঁদের লক্ষ্য বেলুচিস্তানের জাস-উল-আদাল-এর ক্যাম্প৷
ইরানের সিয়া মুসলিমদের প্রতি আক্রমন পাকিস্থানের প্রতি ইরানের বিদ্বেষকে আরও বাড়িয়ে দিয়েছে৷ তারওপরে আলকায়দা জঙ্গীদের ইরানের হাতে তুলে না দেওয়ায় ইরান সরকারের ক্ষোভ ফুঁসছে৷

গোপন সূত্রে খবর পাওয়া যাচ্ছে ভারত যেমন বোমা বিস্ফোরণ করে পাকিস্থানের বালাকোটে জইশ ঘাঁটি উড়িয়েছে তেমনই ব্যালাস্টিক মিশাইল ফেলে ইরানও পাকিস্থানের বেলুচিস্তানে জাস-উল-আদাল এর ক্যাম্প নিকেশ করতে চাইছে৷ এমনকি ইরান মিসাইল ছোঁড়ার প্রস্তুতি জোরকদমে নিচ্ছে বলেও সামাজিক মাধ্যমে খবর মিলেছে৷ ইরানের পক্ষ থেকে সরাসরি কিছু ঘোষনা না করা হলেও সামাজিক মাধ্যমে কিন্তু ইরানের ব্যালাস্টিক মিসাইল হানার আশঙ্কা প্রবল৷ ইরানের পূর্বরাগ ও সাম্প্রতিক জঙ্গী হানার ঘটনা তাহলে পাকিস্থানের আরও বড় কোনো ক্ষতি করবে। তা নিয়ে বেশ চাপে পাকিস্থান৷
তাই একদিকে ভারতের সঙ্গে সাময়িক যুদ্ধ, অন্যদিকে ইরানের মিসাইল হানার আশঙ্কা কার্যত চাপে ফেলেছে পাকিস্থানকে৷ পার্শ্ববর্তীদেশ গুলির এভাবে দূরে সরে যাওয়া চিন্তায় ফেলেছে পাকিস্থানকে৷  আর এরফলে ভারতের সন্ত্রাসদমনে চিনকে পাশে পাওয়ার পর পরোক্ষভাবে ইরানকেও যে পাশে পেল তা বোঝাই যাচ্ছে৷

তবে ভারতের ওপর জবাব দিতে যে হুমকি দিয়েছিল ইমরানের সরকার তা কতটা সাফল্য পাবে তাও দেখার৷
প্রসঙ্গত, কাশ্মীরের পুলওয়ামায় সেনা জওয়ানদের কনভয়ে জঙ্গীহানার ঘটনা এখনও ভারতবাসীর মনে ক্ষোভের আগুন জ্বালিয়ে রেখেছে৷ পুলওয়ামায় নিহত জওয়ানদের জন্য দেশবাসী যেভাবে সোচ্চার হয়েছিলেন তার যোগ্য জবাব দিয়েছে মঙ্গলবার ভারতীয় বায়ুসেনারা৷ পাকিস্থানে জইশ বংশ প্রায় নিশ্চিহ্ণ হওয়ার পথে৷ ভারত সরকারের সন্ত্রাস দমনের প্রথম ধাপের সাফল্য দেশবাসীর কাছে নিহত জওয়ানদের প্রতিশোধ৷ ইতিমধ্যেই ভারতের পাশে সন্ত্রাস দমনে দাঁড়িয়েছে বিশ্বের মহা শক্তিশালী দেশগুলি৷ তারওপরে আফগানিস্থান ও ইরানও বিমুখ৷ এমন অবস্থায় পাকিস্থানের অবস্থা কতটা আশঙ্কাজনক তা বুঝতে পারছে ইমরান খানের সরকার৷

এখন পাকিস্তান সরকার ভালোভাবেই বুঝে গিয়েছে যে, এই মহা এশিয়ার আর কোনো দেশ সন্ত্রাসবাদ সহ্য করবে না। সেই সাথে যে দেশ সন্ত্রাসবাদে মদত দেবে সেই দেশকেও উপযুক্ত জবাব দেওয়া হবে। এরফলে সন্ত্রাসবাদের জন্মদাতা পাকিস্তান পুরোপুরি ভাবে কোণঠাসা হয়ে পড়েছে।

Open

Close