কেরলে বিজেপির ভয়ে জোট করে গেরুয়া শিবিরের ২৫ টি পঞ্চায়েত গঠন আটকে দিল বাম-কংগ্রেস

সিপিএমের কেরল লবিকে বলা হয় কট্টরপন্থী। তারা কংগ্রেস ও বিজেপির বিষয়ে আপসহীন। দক্ষিণের রাজ্যটির কংগ্রেসও তেমন কট্টর সিপিএম বিরোধী। সেই কেরলেই এবার জোট বেঁধে ফেল বাম-কংগ্রেস!

সম্প্রতি কেরলের স্থানীয় প্রশানের নির্বাচন হয়েছে। বিপুল জয় পেয়েছে সিপিএম নেতৃত্বাধীন এলডিএফ। দ্বিতীয় স্থানে কংগ্রেস নেত্রিত্বাঢ্র ইউডিএফ এবং একেবারে প্রান্তিক শক্তি এনডিএ তথা বিজেপি।

বিজেপি-র ফল খারাপ হলেও অন্তত গোটা ২৫ গ্রাম পঞ্চায়েতে একক বৃহত্তম দল হয়েছিল তারা। কিন্তু একটাতেও বোর্ড গঠন করতে পারেনি তারা। ওই পঞ্চায়েতগুলিতে ভোট পরবর্তী জোট করে বিজেপিকে ঠেকিয়ে দিয়েছে সিপিএম ও কংগ্রেস।

যা নিয়ে কংগ্রেসসিপিএমের বিরুদ্ধে তীব্র আক্রমণ শানিয়েছে কেরল বিজেপি। রাজ্য বিজেপির এক মুখপাত্র বলেছেন, অনৈতিক জোট করে বিজেপিকে আটকে দেওয়া হয়েছে। এটা মানুষের রায়কে অপমান করা।

পাল্টা সিপিএমের তরফে বলা হযেছে, এটা কোনও জোট নয়। ভোটের পর স্থানীয় পরিস্থিতির নিরিখে বোঝাপড়া হয়েছে। বিজেপি বড় বিপদ। এই মৌলিক বোঝাপড়া থেকেই যা হওয়ার হয়েছে।

কেরলের বিরোধী দলনেতা চেন্নিথালা বলেছেন, কেরলে লড়াই বামেদের সঙ্গে কংগ্রেসের। কিন্তু কোনও ভাবেই এই মাটিতে যাতে বিজেপি মাথাচাড়া দেওয়ার সুযোগ না পায় সেটা অন্যতম অগ্রাধিকার। তার ভিত্তিতেই যা হওয়ার হয়েছে।

একুশে বিধানসভা ভোট রয়েছে কেরলে। তার আগে ত্রিস্তর পঞ্চায়েত এবং পুরসভা, কর্পোরেশনের ভোট ছিল কার্যত সেমিফাইনাল। কারণ গ্রামীণ ও শহর দুই এলাকার মানুষেরই প্রতিফলন ধরা পড়েছে। তাতে দেখা গিয়েছে ২০১৫ সালের থেকেও বেশি আসন নিয়ে জিতেছে বামেরা।

Related Articles