বেলেঘাটায় ভর্তি করোনায় আক্রান্ত রোগীরা সেরে উঠছেন, কিভাবে এই মিরাক্যাল করল ডাক্তাররা?

চেনা ওষুধেই কলকাতায় করোনার উপশম হচ্ছে কলকাতায়। শুক্রবার এমনটাই জানিয়েছেন বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালের এক চিকিৎসক। তিনি জানিয়েছেন, বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে ভর্তি করোনাভাইরাসে সংক্রমিত রোগীরা প্রত্যেকেই সুস্থতার দিকে এগোচ্ছেন। তবে WHO-র নির্দেশিকা মেনে হাসপাতাল থেকে ছুটি দেওয়া হবে তাঁদের।

কলকাতায় প্রথম করোনাআক্রান্তের খোঁজ মেলে ১৭ মার্চ। বহু টালবাহানার পর করোনাভাইরাস সংক্রমিত অবস্থায় বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে ভর্তি হন নবান্নের আমলার ছেলে। তার পর দেড় সপ্তাহ কাটলেও এখনো হাসপাতাল থেকে ছুটি পাননি তিনি। যদিও চিকিৎসকরা জানিয়েছিলেন, ওই যুবকের দেহে সংক্রমণের কোনও উপসর্গ ছিল না।

এর পর গত দেড় সপ্তাহে একে একে আরও ৯ জন করোনাভাইরাস রোগীর সন্ধান মিলেছে কলকাতায়। ১ জন বাদ দিলে এদের প্রত্যেকেই বিদেশ সফর থেকে ফিরেছিলেন। তাদের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ১ জনের। ১ জন বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। বাকিরা ভর্তি রয়েছেন বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালের বিশেষ ওয়ার্ডে।

শুক্রবার হাসপাতালের এক চিকিৎসক জানিয়েছেন, প্রত্যেক রোগীই চিকিৎসায় সাড়া দিচ্ছেন। দ্রুত সুস্থতার দিকে এগোচ্ছেন তাঁরা। তবে করোনা রোগীদের ছুটি দেওয়ার ব্যাপারে যে হাসপাতাল সতর্ক তাও জানাতে ভোলেননি তিনি। জানিয়েছেন, WHO-র নিয়ম মেনে ছুটি দেওয়া হবে রোগীদের। সেক্ষেত্রে আলাদা আলাদা সময় নেওয়া ২টি নমুনার রিপোর্ট নেগেটিভ এলে তবেই ছুটি পাবেন রোগী।

চিকিৎসক জানিয়েছেন, করোনাভাইরাসের চিকিৎসায় বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে ব্যবহার করা হচ্ছে চেনা সব ড্রাগ। এর মধ্যে রয়েছে, হাইড্রক্সি ক্লোরোকুইন, যা দিন কয়েক আগে করোনায় কার্যকর বলে ঘোষণা করেছিল ICMR. এছাড়া অন্যান্য সংক্রমণ কমাতে ব্যাবহার করা হয়েছে অ্যাজিথ্রোমাইসিনের মতো সহজলভ্য অ্যান্টিবায়োটিক।