গান গেয়ে অ্যামাজনের আগুন নেভাতে পারবেন বলে দাবি করলেন ‘নোবেল”

মাই ইন্ডিয়া ডেস্কঃ ‘পৃথিবীর ফুসফুস’এর অস্তিত্ব আজ চরম সংকটে। বৃষ্টি অরণ্যকে গোগ্রাসে গিলছে আগুন! বিরামহীন আগুন! অ্যামাজনের রেনফরেস্টে অগ্নিকাণ্ড কিছুটা স্বাভাবিক ঘটনা। কিন্তু, এ ভাবে সর্বগ্রাসী রূপ নিয়ে আগে কখনো আগুন ছড়ায়নি। গোটা বছরের হিসেব ধরলে, ২০১৯ সালে অ্যামাজনের আগুন ইতিমধ্যেই রেকর্ড করে ফলেছে। অবিশ্বাস্য কিন্তু সত্যি! এই অাগস্ট পর্যন্ত হিসেবে ধরলে, ৭২ হাজার ৮৪৩ বার আগুন ধরেছে ব্রাজিলের এই রেনফরেস্টে। আর সাত দিনের হিসেব নিলে, অগ্নিকাণ্ড ৯,৫০০ বারেরও বেশি।

বৃষ্টি অরণ্যের বেশিরভাগ বনাঞ্চল ব্রাজিলের মধ্যে রয়েছে, পেরুতে রয়েছে ১৩ শতাংশ, কলম্বিয়াতে ১০ শতাংশ, এছাড়াও রয়েছে ভেনিজুয়েলা, ইকুয়েডর, বলিভিয়া, গায়ানায় সামান্য পরিমাণে। চারটি দেশের তাদের প্রথম স্তরের প্রশাসনিক অঞ্চলের একটি নাম হিসাবে “অ্যামাজনাস” রয়েছে এবং ফ্রান্স তার বৃষ্টিপাতের সুরক্ষিত অঞ্চলের জন্য “গায়ানা অ্যামাজনিয়ান পার্ক” নামটি ব্যবহার করে। বিশ্বের বৃহত্তম এবং সবচেয়ে জৈববৈচিত্র্যপূর্ণ এই বৃষ্টি অরণ্যে পৃথিবীর প্রায় আনুমানিক ৩৯০ বিলিয়ন স্বতন্ত্র গাছ রয়েছে যা ১৬,০০০ প্রজাতির মধ্যে বিভক্ত। সমগ্র অ্যামাজন ৫,৫০০,০০০ বর্গ কিমি অঞ্চল নিয়ে বিস্তৃত।

আইএনপিই’র সমীক্ষা বলছে, গত বছর এই সময় পর্যন্ত তুলনা করলে, অ্যামাজনে অগ্নিকাণ্ড ৮৩% বেড়েছে। তার একটা কারণ অবশ্যই অপর্যাপ্ত বৃষ্টি। অর্থাৎ প্রকৃতির খামখেয়ালিপনা। ব্রাজিলের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা, আইএনপিই। তারা জানাচ্ছে, অ্যামাজনের জঙ্গল ধরে ইতিমধ্যেই ব্রাজিলের রোন্ডানিয়া, অ্যামাজোনাস, পারা, মাতো গ্রোসোর আংশিক অংশ আগুন গ্রাস করেছে। ঘন ঘন অগ্নিকাণ্ডে উদ্বিগ্ন ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জাইর বলসোনারো অবশ্য সন্দেহ করছেন এনজিওগুলিকে। তাঁর ধারণা, কেবল প্রাকৃতিক কারণে এই বিপুল আগুন ধরতে পারে না৷ প্রেসিডেন্টের বক্তব্য, এনজিও গুলি এই কাজ করছে। অর্থ অপচয় করায় বিভিন্ন এনজিওর ফান্ডিং কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। সেই রাগে তারা গিয়ে রেইনফরেস্টে আগুন ধরাচ্ছে। যদিও, এর সত্যতা কতোটা, তা জানা নেই। কারণ, ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট স্বীকার করেছেন এ বিষয়ে কিছু প্রমাণ নেই তার কাছে।

আইএনপিই বলেছে যে এই বন্য আগুনকে শুকনো মরশুম বা একা প্রাকৃতিক ঘটনার জন্য দায়ী করা যায় না। আইএনপিই গবেষক আলবার্তো সেত্তজার বলেছেন, “এ বছর জলবায়ু বা আমাজন অঞ্চলে বৃষ্টিপাতের বিষয়ে অস্বাভাবিক কিছু নেই”। স্যাটেলাইট চিত্রগুলিতে ৯,৫০০ টির অনেক বেশি অগ্নিকাণ্ডের সন্ধান পাওয়া গেছে, বেশিরভাগই অ্যামাজন বেসিনে, বিশ্বের বৃহত্তম গ্রীষ্মমন্ডলীয় বনভূমি এবং এটি বিশ্ব উষ্ণায়নের গতি কমিয়ে দেওয়ার জন্য অতীব গুরুত্বপূর্ণ হিসাবে দেখা গেছে।

অ্যামাজন বার্নের ফলে ব্রাজিল বনে আগুনে রেকর্ড তীব্রতার খবর দিয়েছে চিত্রগুলি রোমাইমা রাজ্যের উত্তরাঞ্চলীয় রাজ্যকে অন্ধকার ধোঁয়ায় আচ্ছাদিত দেখিয়েছিল, অন্যদিকে প্রতিবেশী অ্যামাজনাস এই রাজ্যের দক্ষিণে এবং এর রাজধানী মানাউসে একটি জ্বলজ্বলকে কেন্দ্র করে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছিল। পেরুর সীমান্তবর্তী একর আগুনের জেরে শুক্রবার থেকে সকলে সচেতন ছিল।

বলা হচ্ছে, বনাঞ্চলের বর্ধনের বিষয়ে আন্তর্জাতিক উদ্বেগকে উপেক্ষা করে কৃষক ও খনির জন্য অ্যামাজন অঞ্চলের বিকাশের প্রতিশ্রুতি জানুয়ারিতে বলসোনারো দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে আগুনে অভূতপূর্ব মাত্রা দেখা দিয়েছে। ব্রাজিলের শুকনো মরশুমে প্রায়শই ওয়াইল্ডফায়ার দেখা দেয় যা অক্টোবরের শেষের দিকে বা নভেম্বরের শুরুতে শেষ হয় তবে তারা ইচ্ছাকৃতভাবে গবাদি পশু পালনের জন্য অবৈধভাবে পরিষ্কার জঙ্গলের প্রয়াসেও শুরু হয়েছিল। তবে পৃথিবীর জন্য অ্যামাজনের অগ্নিকাণ্ড যে খুব একটা সুখকর নয়, তা সময় বলবে।

আর সেই অ্যামাজনের আগুন নেভানর জন্য দ্বায়িত্ব নিতে চলেছেন সারেগামাপা খ্যাত নোবেল। তিনি বলেছেন, তিনি অ্যামাজনের আগুন নেভাতে পারেন। তিনি গান গেয়ে অ্যামাজনের সব আগুন নিভিয়ে দেবেন, আর বিশ্বের মানুষের কাছে পৃথিবীর ফুসফুস ফিরিয়ে দেবেন তিনি। বাংলাদেশের একটি টভি চ্যানেলে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি কথা জানান। তিনি বলেন, আমার গানে ভারতের ১৩০ কোটি মানুষ পাগল হয়ে গেছিল। কিন্তু জি বাংলা আমাকে ইচ্ছে করে প্রথম হতে দেয়নি। ভারতের এতো মানুষকে যদি আমি পাগল বানাতে পারি, তাহলে এই অ্যামাজনের আগুন নেভাতে পারব না? নোবেলের এই দাবিতে অবাক সবাই। সোশ্যাল মিডিয়ায় ওনাকে নিয়ে চলছে নানারকম ট্রল।

Related Articles