Home Blog Page 64

লোকসভা নির্বাচনের আগে এই রাজ্যে ৪৫০০ কোটি টাকার প্রজেক্ট কেন্দ্রীয় সরকারের। নুতন বছরের উপহার দিলেন নরেন্দ্র মোদী।

আগামী পাঁচ বছর কে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে সেই নিয়ে বিরোধী দল থেকে শুরু করে শাষক দলের প্রস্তুতি তুঙ্গে। সবচেয়ে কৌতুহলের বিষয় হল নরেন্দ্র মোদী কোন স্থান থেকে ভোটে দাড়াবেন। আর এই সময় ওড়িশাতে ৪৫০০ কোটির কেন্দ্রীয় সরকারি প্রোজেক্ট লঞ্চ করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

জানা গেছে লোকসভা নির্বাচনের সময় ওডিশায় বিধানসভা নির্বাচন চলবে। তাই আগে থেকেই প্রস্তুতি নিচ্ছে বিজেপি। কারন উড়িষ্যা কে হাতছাড়া করতে চান না বিজেপি শিবির।

২৪ শে ডিসেম্বর ওড়িশার খুদড়া শহড়ে একটি জনসভায় প্রোজেক্ট লঞ্চের কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ওড়িশাবাসীর কাছে যা নতুন বছরের উপহার। প্রধানমন্ত্রী আরো জানান ২০১৯ এ রাজ্যের আরো উন্নতি হবে। সেই তালিকায় রয়েছে পরিবহন, সড়ক, রেল, পেট্রোলিয়াম, পাসপোর্ট সার্ভিস। এছাড়াও তিনি উদ্বোধন করেন পোষ্ট অফিসে পাসপোর্ট সেবার ও নতুন প্যাইসেন্জার ট্রেনের।

এই ব্যাপারে বিজেপি বিধায়ক প্রদীপ পুরোহিত জানান ওডিশার পুরী থেকেই নরেন্দ্র মোদী নির্বাচনের জন্য লড়াই করার সম্ভাবনা আছে। প্রায় ৯০ শতাংশ সম্ভাবনা বর্তমান তিনি বলেন। দলের শীর্ষ নেতৃত্ব ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী সেই বিষয়ে আগ্রহী।

এবার রাফায়েলের নাম পর্যন্ত ভুলে যাবে কংগ্রেস। রক্ষামন্ত্রী নির্মলা সীতারমন পর্দাফাঁস করলেন কংগ্রেসের।

এই মুহূর্তে দেশের রাজনীতিতে সবচেয়ে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে বিজেপি দল। দেশের বেশিরভাগ মানুষ চাইছেন যে পরবর্তী অর্থাৎ সামনের লোকসভাতে বিজেপি জিতুক এবং দেশের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হোক মাননীয় নরেন্দ্র মোদী মহাশয়। আর এটাই সব থেকে বড় অসুবিধার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে কংগ্রেসের কাছে। তাই বিজেপি এবং মোদীজির জনপ্রিয়তা নষ্ট করার জন্য কংগ্রেসের তরফ থেকে বারবার রাফায়েল বিমান নিয়ে মানুষকে ভুল বোঝানোর চেষ্টা করা হয়েছে। যেখানে সুপ্রিম কোর্ট রায় দিয়ে জানিয়ে দিয়েছে যে লাফায়েল নিয়ে কোনো দুর্নীতি করেননি বিজেপি দল। সেখানে কংগ্রেস বারবার একই কথা বলে মানুষের মধ্যে বিজেপি নিয়ে একটা ভুল ধারণা ঢুকিয়ে দেবার চেষ্টা করছে।

কিন্তু এই মুহূর্তে যখনই কংগ্রেসের তরফ থেকে রাফয়েল নিয়ে কোনো কথা উঠছে তখন তারা নিজেদের কথায় নিজেরাই ফেঁসে যাচ্ছেন। তার আরও একবার প্রমাণ পাওয়া গেল এই দিনের লোকসভায়।
গত শুক্রবার দিন লোকসভায় এই রাফায়েল বিমান নিয়ে চরম তর্ক বিতর্ক চলে। এরপরে কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী নির্মলা সীতারামন জানিয়ে দেন যে খুব তাড়াতাড়ি অর্থাৎ 2022 সালের মুহূর্তে ভারতীয় বায়ুসেনার হাতে রাফায়েলের সবকটি বিমান চলে আসবে। এবং তার সাথে তিনি আরো জানান যে এবছরের সেপ্টেম্বর মাসে অর্থাৎ সেপ্টম্বর 2019 সালের একটি রাফায়েল বিমান ভারতীয় বায়ু সেনার হাতে চলে আসবে।।

নির্মলা সীতারামন এর এই উক্তির পরেই কার্যত মুখ বন্ধ হয়ে যায় কংগ্রেসের। এবং রাজনৈতিক মহল মনে করছেন যে এরপর থেকে আর কোনোদিন রাফায়েল নিয়ে মিথ্যা আরোপ লাগানোর চেষ্টা করবে না কংগ্রেস কারণ সিতারাম সিতারাম জানিয়ে দিয়েছেন যে খুব তাড়াতাড়ি ভারতীয় বায়ুসেনা পেয়ে যাচ্ছে রাফায়েল বিমান।
#অগ্নিপুত্র

আগামী ১৬ এবং ২৪ শে জানুয়ারি রাজ্যে আসতে চলেছেন অমিত শাহ। খবর পেয়ে ভীত নড়ে গেল তৃণমূল কংগ্রেসের।

২০১৯ সালের শুরুতেই রাজ্যে আবার পা রাখতে চলেছেন সর্বভারতীয় বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ। জানুয়ারী মাসের ১৬ এবং ২৪ তারিখে বাংলায় আসতে চলেছেন অমিত অনিল চন্দ্র শাহ। ১৬ তারিখ তিনি রাজ্য নেতৃত্বের সঙ্গে সাংগঠনিক বৈঠক করবেন। এরপর কলকাতায় ২৪ তারিখ সভা করতে পারেন।

২০১৯ এ লোকসভা নির্বাচনের আগে বেশ কয়েকবার রাজ্যে আসার কথা সর্বভারতীয় বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ এর। এর আগে ২০১৮ সালে জুলাই মাসে কলকাতায় এসে একটি প্রেক্ষাগৃহে বঙ্কিম গবেষক ও বুদ্ধিজীবিদের সঙ্গে দেখা করেন এবং বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় স্মারক ভাষন দেন।

কলকাতায় কোনো জনসভা না করলেও তিনি পুরুলিয়ার রাজনৈতিক জনসভায় ভাসন দেন। ১১ ই অগষ্ট কলকাতার মেয়ো রোডে সভা করেছিলেন সর্বভারতীয় বিজেপি সভাপতি এবং সেখানেই রাজ্য থেকে তৃনমূল কংগ্রেসকে ক্ষমতাচ্যুত করার আহবান দেন অমিত শাহ।

অমিতজির প্রতিটি সভায় রাজ্যের মানুষের জন সুমদ্র দেখে এটাই বোঝা যাচ্ছে যে, এবার রাজ্যে আসতে চলেছে বিজেপি। অমিত শাহ জি এর আগে রাজ্যে এসে বলে গিয়েছিলেন যে এই রাজ্য থেকে লোকসভায় ২২ টি সিট দখল করবেন। আর এবারও এইরকমই অনেক কিছু পরিকল্পনা নিয়ে রাজ্যে আসছেন উনি।

কিডনিতে পাথর? বাড়িতে তুলসি পাতা থাকলে চিন্তার কোনো কারণ নেই। নিয়ম মেনে পান করুন তুলসি পাতার রস।

আমাদের প্রত্যেকের বাড়িতে কমবেশি তুলসী গাছ সকলেরই আছে। আর এই তুলসী পাতার রয়েছে অনেক ঔষধী গুণ; যার ফলে আমাদের দৈনন্দিন জীবনে অনেক কাজে আসে তুলসী পাতা। আমাদের প্রায় দিনই কোনো না কোনো ছোটখাটো অসুখ লেগে থাকে শরীরের মধ্যে। তাই যদি বাড়িতে তুলসী পাতা থাকে তাহলে সেই সব রোগ নিরাময় খুব সহজেই করা যায়। আসুন এ রকমই কয়েকটি রোগের কথা আপনাদের সামনে তুলে ধরি যেগুলি তুলসী পাতার মাধ্যমে খুব সহজে নিরাময় হয়ে যায়।

১) গলায় ব্যাথা:- এই শীতকালে আমাদের প্রত্যেকেরই কম বেশী গলায় ব্যথা হয়ে থাকে। একটু ঠান্ডা লাগলে প্রথমে আমাদের গলায় ব্যথা শুরু হয়ে যায়। তাই এই গলা ব্যথা থেকে বাঁচার জন্য তুলসী পাতা অত্যন্ত উপকারী। সামান্য গরম জলে কয়েকটি তুলসী পাতা ফেলে দিন; তারপর কিছুক্ষণ পর পর সেই জলটি পান করুন দেখবেন আপনার গলায় ব্যথা খুব সহজেই নিরাময় হয়ে গিয়েছে।

২) সর্দি কাশি:- শীতকাল হোক বা গ্রীষ্ম-বর্ষা যে কোনো ঋতুতে এই সর্দি কাশি আমাদের চরম ভাবে শারীরিক কষ্ট দেয়। প্রায় সময়ই আমাদের এই সর্দি লেগে থাকে। তাই এই সর্দির হাত থেকে বাঁচার জন্য তুলসী পাতা হচ্ছে অত্যন্ত উপকারী। কয়েকটি তুলসী পাতা মুখের মধ্যে রেখে কিছুক্ষণ চিবিয়ে সেই রসটি পান করে নিন। দেখবেন সহজেই সর্দি থেকে আপনি নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখেছেন।

৩) ত্বকের সমস্যা:- অনেকের মুখেই দেখি অত্যন্ত বন বের হয়। আর বন বেরোনোর জন্য তাদের মুখের সৌন্দর্য নষ্ট হয়ে যায়। তাদের জানিয়ে রাখি তুলসী পাতা যদি লাগানো হয় আপনাদের বন-তে তাহলে সহজেই আপনাদের বন চলে যাবে। এবং সেইসাথে মুখের সমস্ত রকম দাগ এলার্জি পর্যন্ত মিলিয়ে যাবে এই তুলসী পাতার কারণে।

৪) কিডনির সমস্যা:- কিডনির যে কোন সমস্যা নিরাময়ে তুলসী পাতা এক বিরাট ভূমিকা গ্রহণ করেন। কয়েকটি তুলসী পাতা নিয়ে সেগুলি রস করে যদি কোন ব্যক্তি প্রতিদিন একগ্লাস করে খেতে পারেন তাহলে তার কিডনিতে কোনো দিন স্টোন হবে না। অর্থাৎ কিডনিতে স্টোন হওয়ার সম্ভাবনা প্রায় শেষ হয়ে যাবে তুলসী পাতার রসের গুনের কারনে।
এছাড়াও যদি কোন ব্যক্তির কিডনিতে স্টোন জমে গিয়েছে। তাহলে উনার সেই স্টোনকে নিরাময়ের ক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা গ্রহণ করবে তুলসী পাতা। যদি সেই ব্যাক্তি টানা ছয় মাস তুলসী পাতার রস নিয়মিত ভাবে সেবন করতে পারেন তাহলে তার সেই স্টোন মূত্রের মাধ্যমে দেহের বাইরে বেরিয়ে আসবে এটা বৈজ্ঞানিকভাবে প্রমাণিত।
#অগ্নিপুত্র

ভারতীয় সেনাবাহিনীকে আরও বেশি মজবুত করার জন্য ভারতের হাতে আসতে চলেছে S-400। অক্টোবরেই ভারতের অস্ত্র ভাণ্ডারে আসছে S-400।

অবশেষে ভারতের অস্ত্রভান্ডার সম্বৃদ্ধ হতে চলেছে S-400 এর উপস্থিতিতে। যা আগামী বছরের মধ্যেই ভারতের কিছু অস্ত্রভান্ডারে আসতে চলেছে। প্রতিরক্ষামন্ত্রক প্রতিমন্ত্রী সুভাস ব্রক্ষ জানান 2020 সালের অক্টোবর মাসের মধ্যেই রাশিয়ার এই অত্যাধুনিক মিশাইল আসবে ভারতের কাছে। তিনি আরো জানান 2021 এর মধ্যে সব কটি S-400 ভারতে চলে আসবে।

প্রায় 40 হাজার কোটি টাকার বিনিময়ে চুক্তি সাক্ষরিত হয় ভারত এবং রাশিয়ার মধ্যে। S-400 ট্রায়াম্ফ ক্ষেপনাস্ত্রটি 400 কিলোমিটার এলাকা জুড়ে প্রায় 300 টি লক্ষ বস্তূকে চিহ্নিত করবে। পাশাপাশি ছত্রিশ লক্ষ বস্তুকে ধ্বংস করবে।

সুতরাং এই অস্ত্র আসার পর এই মুহূর্তে বিশাল সুরক্ষায় ভারতের নিরাপত্তা। পাক ও চিনা পরমানুর ক্ষেপনাস্ত্র আক্রমনের আতঙ্ক থেকে মুক্ত থাকবে ভারত। দেশের প্রধান পরমানু কেন্দ্র ও সরকারি ভবনগুলি যার ফলে নিরাপদ হবে।

এই S-400 এর বিশেষ বৈশিষ্ট্য হল অন্য রাডারে ধরা পড়ে না এমন বিশেষ কিছু স্টিল্থ এয়ারক্রাফটও এই মিশাইলের রাডারে ধরা পড়ে যাবে।

এর ফলে চিন,পাকিস্তান সহ ভারতের শত্রু দেশ গুলিও ভয়ে কাঁপছে। কারন এবার থেকে ভারত কে আক্রমণ করতে গেলে তাদের দুবার ভাবতে হবে।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হবেন প্রধানমন্ত্রী। মেনে নিলেন বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্মদিনের শুভেচ্ছা বার্তা পাঠালেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ মহাশয়।  মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে শুভেচ্ছা বার্তা পাঠিয়ে উনি বললেন যে মমতা বন্দোপাধ্যায় সুস্থ থাকুক এই কামনা করি। কারণ এই মুহূর্তে পশ্চিমবঙ্গের সমস্ত দায়িত্ব উনার হাতে তুলে দিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গবাসী। তাই উনার সুস্থ থাকা প্রয়োজন।

এই দিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে জন্মদিনের শুভেচ্ছা বার্তা পাঠানোর সাথে সাথে দিলীপ বাবু জানালেন যে দেশের প্রধানমন্ত্রী হওয়ার দৌড়ে সবথেকে এগিয়ে রয়েছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু উনি কি এই প্রসঙ্গটি শুধুমাত্র বাঙালি হিসেবে বললেন নাকি এর মধ্যে রয়েছে অন্য কোন রাজনৈতিক ইঙ্গিত সেটা এখনো পরিষ্কার ভাবে জানা যায়নি।

এছাড়া এইদিন দিলীপবাবু আরো বলেছেন, তিনি বলেছেন যে আমরা প্ৰনব মুখোপাধ্যায় কে পেয়েছি একজন বাঙালি রাষ্ট্রপতি হিসাবে। তাই এবার একজন বাঙালি প্রধানমন্ত্রী দরকার। তিনি বলেন যে এর আগে জ্যোতি বসুর সুযোগ ছিল বাঙালি প্রধানমন্ত্রী হওয়ার। কিন্তু তিনি নিজের হাতে সেই সুযোগ হাতছাড়া করেছেন তাই এবার বাঙালি প্রধানমন্ত্রী হওয়ার দিকে একমাত্র এগিয়ে আছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী।

কিন্তু দীলিপবাবু এই কথাকে পাত্তা দিতে নারাজ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তিনি বলেছেন যে আমার প্রধানমন্ত্রী হবার কোনো ইচ্ছা নেই আমি শুধু জনগণের সেবা করে যেতে চাই এবং সেটাই করে যাবো।

উল্লেখ্য এই দিন দীলিপবাবু মমতা বন্দোপাধ্যায় কে সরাসরি ফোন করে বা চিঠি লিখে জন্মদিনের শুভেচ্ছা বার্তা পাঠান নি। তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে শুভেচ্ছা বার্তা পাঠিয়েছেন মিডিয়ার মাধ্যমে।
#অগ্নিপুত্র

মমতার হাত ছাড়লেন ২০০০ মুসলিম তৃণমূল কর্মী। এর ফলে লোকসভা নির্বাচনের আগে বেশ চাপে তৃণমূল কংগ্রেস।

লোকসভা নির্বাচনের আগে শাষকদল তৃণমূল কংগ্রেস থেকে এক শীর্ষ নেতা সহ বিপুল পরিমান মুসলিম তৃণমূল কর্মী দলবদল করে বিশেষ ধাক্কা দিল রাজ্যের শাষকদল তৃণমূল কংগ্রেস কে।
বিজেপি এবং তৃনমূলের নেতা মন্ত্রী দের মতে ভারতের সবথেকে পুরাতন রাজনৈতিক দল কংগ্রেস রাজ্যে শুধুমাত্র সাইন বোর্ড হয়ে আছে। এই পরিস্থিতিতে রাজ্যের অন্য সকল রাজনৈতিক দল কে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে সহস্রাধিক রাজনৈতিক কর্মী কংগ্রেসে নিজেদের নাম তুললেন। যার মধ্যে তৃনমূলের দুই হাজার কর্মী রয়েছে।

দলবদলের তালিকায় অন্যতম বড়ো নাম তৃনমূলের সংখ্যালঘু সেলের সহ সভাপতি শাকিল আনসারি।এছাড়াও সিপিএম থেকেও সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের লোক কংগ্রেসে যোগ দিয়েছে।

সামনেই লোকসভা নির্বাচন আর তার আগেই এত বিশাল সংখ্যক সংখ্যালঘু রাজনৈতিক কর্মীদের তৃণমূল ছেড়ে দেওয়া ভোটের আগে যে তৃণমূল এর পক্ষে বেশ চাপের সেটা বলাই বাহুল্য।

হিন্দু সমাজ পেল বড় ধাক্কা! মাত্র ৩০ সেকেন্ড শুনানি করে রাম মন্দির মামলা পিছিয়ে দিল সুপ্রিমকোর্ট।

সংখ্যাগরিষ্ট হিন্দু সম্প্রদায়ের আস্থাকে আরো একবার ঝটকা পেতে হল সুপ্রিম কোর্টের কাছ; হতাশ হলেন হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষজন।
বামপন্থী ,কট্টরপন্থীরা কিছুদিন আগেই  সবারিমালার নিয়মভঙ্গ করে হিন্দুধর্ম নিয়ে খেলা করেছে।সেই ক্ষতপূরনের আগেই সুপ্রিম কোর্টের দেওয়া আরো একটি ক্ষতর সম্মুখীন হতে হল হিন্দু সমাজকে।

সুপ্রিম কোর্টে গতকাল রাম মন্দিরের শুনানির তারিখ ছিল। কিন্তু সুপ্রিম কোর্ট বিগত বছরগুলির মতোই এবারও শুনানির তারিখ পিছিয়ে দিল তাও ৩০ সেকেন্ডের মাথায়। চিফ গেস্ট রঞ্জন গগৈ জানান ১০ তারিখ একটি বেঞ্চ গঠন হবে। এবং এই বেঞ্চ ঠিক করবে পরবর্তী শুনানির তারিখ। হিন্দুবাদীদের দাবি বিষয়টিকে দীর্ঘ বছর ধরে ঝুলিয়ে রাখার পরিকল্পনা করেছে সুপ্রিম কোর্ট।

আগের তারিখে রাম মন্দির বিষয় টিকে রঞ্জন গগৈ কম গুরুত্বপূর্ন বিষয় বলেছিলেন। অনেকের দাবি সুপ্রিম কোর্টের সুনানির পিছনে কোনো রাজনৈতিক দলের প্রভাব আছে। কিন্তু বুদ্ধিজীবিদের মতে সুপ্রিম কোর্টের বিচার নিয়ে প্রশ্ন তোলা উচিত নয়।

কিছু হিন্দুবাদী ও রাষ্ট্রবাদীর দাবি করেছে যে সুপ্রিম কোর্ট জঙ্গিদের জন্য মধ্যরাতে দরজা খুলে দিলেও ,হিন্দুদের আস্থার জন্য একটুও সময় খরচ করতে রাজি নয়।

এবার কি তাহলে বিজেপিতে যোগদান করতে চলেছেন প্রাপ্তন ভারতীয় ফুটবলার বাইচুং ভুটিয়া? লোকসভার আগে এমনই প্রশ্ন ঘোরাফেরা করছে বিরোধীদের মুখে।

ভারতবর্ষের রাজনীতিতে বিভিন্ন বলিউডি অভিনেত্রী অভিনেতা এবং এছাড়াও অনেক তারকাদের প্রবেশ বেশ অনেক দিন ধরে দেখে আসছেন ভারতবর্ষের মানুষজন। এবার ভারতবর্ষে রাজনীতিতে পা রাখতে চলেছেন ভারতবর্ষের এক সময়ের সেরা ফুটবলার এবং জাতীয় দলের প্রাক্তন ক্যাপ্টেন বাইচুং ভুটিয়া।

এই ভাইচুং ভুটিয়া এর আগেও একবার রাজনীতিতে পা দিয়েছিলেন। তখন তিনি পশ্চিমবঙ্গের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের হয়ে আগামী লোকসভা নির্বাচন লড়াই করেছিলেন এবং তখন তিনি পরাজিত হয়েছিলেন।

কিন্তু এবার তিনি লড়াই করবেন তার নিজের রাজ্য অর্থাৎ সিকিমের রাজনৈতিক দল “হামারো সিকিম পার্টির” হয়ে। আর এই খবরে বিজেপির জন্য একটা সুসংবাদ এল। সেটা হল যে জানা গিয়েছে আগামী লোকসভা নির্বাচনের সিকিমের রাজনৈতিক দল “হামারো সিকিম পার্টি” পুরোপুরি ভাবে সাপোর্ট করবে দেশের একমাত্র জনদরদি রাজনৈতিক দল বিজেপি কে।

আর এই খবর পাওয়ার পর থেকে কংগ্রেস সহ সমস্ত বিজেপি বিরোধী দলগুলির মাথায় হাত পড়ে গিয়েছে। তাদের একটাই চিন্তা দেশের এত বড় একজন সেলিব্রিটি অর্থাৎ এত বড় একজন ফুটবলার যদি বিজেপিকে সাপোর্ট করেন তাহলে লোকসভা ভোটে বিজেপিকে আটকানোর সত্যি কঠিন হয়ে পড়বে দেশের বিজেপি বিরোধী দলগুলির।

এই বাইচুং ভুটিয়া জাতীয় দলের অধিনায়কের ভার দীর্ঘদিন সামলেছেন এছাড়াও তিনি বাংলার বিখ্যাত ফুটবল ক্লাব মোহনবাগান এবং ইস্ট বেঙ্গলের হয়ে দীর্ঘদিন খেলে গিয়েছেন। তিনি জাতীয় দলের সব থেকে সফল অধিনায়ক হিসেবে গ্রাহ্য পেয়েছেন।
#অগ্নিপুত্র

ফের একবার উত্তরপূর্ব ভারতে গেরুয়া ঝড় দেখা গেল। বামপন্থীদের সাফ করে ত্রিপুরায় দুর্দান্ত জয় পেল বিজেপি।

ফের একবার ত্রিপুরায় বিশাল মার্জিনে উত্তীর্ণ হল বিজেপি। বিজেপির জয়ের অনুপাত ৬৬:১ হ্যা এটাই ফলাফল। মানে বিজেপির পাওয়া আসন সংখ্যা ৬৬ আর প্রতিপক্ষ বামপন্থী সিপিএমের প্রাপ্ত আসন সংখ্যা মাত্র ১। অবাক হলেও পরিসংখ্যানটি বাস্তব। পানি সাগর পুরসভায় যে ১১টি আসনে ভোট হয়েছিল,তার মধ্যে থেকে মাত্র একটি আসন জিতে নিজেদের অস্তিত্ব ধরে রেখেছে বামপন্থীরা।

অন্যদিকে আগরতলা মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশনের ৪টি ওয়ার্ডেই হোয়াইটওয়াশ করেছে বিজেপি। ২০১৯ এ লোকসভা নির্বাচনের পূর্বে এই ফলাফল বিজেপি শিবিরে স্বস্থির পরিবেশ গড়ে তুলেছে।

তবে এখন ফলপ্রকাশের পর বামপন্থী সিপিএম এবং বিজেপি বিরোধী দলগুলি বিজেপির সমালোচনা করছে।ত্রিপুরার কিছু বামপন্থী সমর্থক বিজেপিকে সন্ত্রাসবাদী দল বলেছেন নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতে।

বিজেপি কিন্তু সমালোচনায় না গিয়ে ত্রিপুরার জনগনকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। এই উপনির্বাচনে ৮১ শতাংশেরও বেশি ভোট পড়েছে ।
হরিয়ানার পুরভোট ,গুজরাটের বিধানসভা ভোট, এবং ত্রিপুরার উপনির্বাচনের ফলাফল মধ্যপ্রদেশ,রাজস্থান,ও ছত্তিশগড়ের ফলাফলের ফলে সৃষ্ট হওয়া হতাশা কাটিয়ে দিয়ে মিডিয়ার সমস্ত প্রশ্নের জবাব দিয়েছে।

আর এই জয় লোকসভা নির্বাচনের আগে বিজেপি কে যে বাড়তি অক্সিজেন দেবে সেটা বলাই বাহুল্য। কারণ এই জয় সাধারণ মানুষের জয় দেশের জয়। জয় লাভের পর এমনই মন্তব্য করলেন ত্রিপুরা বিজেপি।

পেঁয়াজের রস এই পদ্ধতিতে খেলে তিনগুণ বেড়ে যাবে যৌন ক্ষমতা। জেনে নিন সঠিক পদ্ধতি।

এই মুহূর্তে আমরা ব্যস্ত হয়ে পড়েছি বিভিন্ন কাজে অর্থাৎ আমাদের পারিবারিক জীবন কাটছে অত্যন্ত ব্যস্ততার সাথে। তাই আমরা চাইলেও এখন নিয়মিত যৌনমিলন করতে পারিনা। পারিবারিক জীবন টিকিয়ে রাখার জন্য শারীরিক মিলন একটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। কিন্তু কষ্টের কথা এটাই যে দিনের পর দিন আমাদের এই যৌন কাজ কর্মের প্রতি এনার্জি কমে যাচ্ছে। বিভিন্ন ব্যস্ততার কারণে আমরা ঠিকঠাকভাবে আমাদের শারীরিক সম্পর্ক করে উঠতে পারি না। আবার অনেক সময় হয়তো আমাদের ইচ্ছে থাকে কিন্তু তার সত্ত্বেও করে উঠতে পারি না বিভিন্ন শারীরিক অসুবিধাজনিত কারণে।

কিন্তু আপনারা কি জানেন আপনাদের রান্না ঘরেই রয়েছে এমন এক সবজি যেটা সঠিক পদ্ধতিতে খেলে আপনাদের যৌন ক্ষমতা বেড়ে যাবে প্রায় তিন গুণ এবং আপনাদের দাম্পত্য সুখে কাটাবে।

আর এই সবজিটি হলো পেঁয়াজ। বিভিন্ন গবেষণার ফলে দেখা গিয়েছে যে, মানুষের যৌন বৃদ্ধিতে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নেওয়া হরমোন টেস্টোস্টেরন হরমোনের ক্ষরণ অনেকটাই বেড়ে যায় পেঁয়াজের রসের ফলে। এর ফলে মিলনে অনেক বেশি তৃপ্তি পাওয়া যায়। বিজ্ঞানী এলিসা ভিটি যিনি হলেন একজন হরমোন বিশেষজ্ঞ উনি জানিয়েছেন যে, যদি কোনো ব্যক্তি পেঁয়াজের রস ধীরে ধীরে সময় নিয়ে খেতে পারেন তাহলে তার যৌন ক্ষমতা অনেক গুন বেড়ে যাবে। যৌন অঙ্গ কে অনেক বেশি সক্রিয় করে তোলে পেঁয়াজ।

আর আপনি যদি একধাক্কায় আপনার যৌন ক্ষমতা তিনগুন বাড়িয়ে ফেলতে চান তাহলে রোজ সকালে উঠে কিছু পেঁয়াজ কুচি করে সেটাকে মাখনে ভেজে খেয়ে নিন।
#অগ্নিপুত্র

বিরাট কোহলি কে অপমান করায় এবার নিজের দেশের ক্রিকেট ভক্তদের যোগ্য জবাব দিলেন রিকি পন্টিং। কি বললেন উনি জেনে নিন।

ক্রিকেট হল ভদ্র মানুষের খেলা। আর এই কথাটি বারবার ভুলে যান অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেট ভক্তরা। তাই তারা বারবার অসভ্যতামির পরিচয় দিয়ে থাকেন ক্রিকেট গ্যালারিতে। এর আগেও বহুবার অস্ট্রেলিয়ান গ্যালারি থেকে বিপক্ষ দলের অধিনায়ক এবং প্লেয়ারদের অসভ্য গালি গালাজ করার ঘটনা সবার সামনে এসেছে। আর এবারও তাই হল, এবার অভিযোগ উঠেছে ভারতীয় ক্রিকেট দলের ক্যাপ্টেন বিরাট কোহলি কে লক্ষ্য করে অস্ট্রেলিয়ান গ্যালারি থেকে নানান অসভ্য ভাষা উড়ে এসেছে।

প্রথম দিন এমন ঘটনা ঘটেছিল মেলবোর্ন ক্রিকেট স্টেডিয়ামে, আর এবার এই ঘটনা ঘটল সিডনিতে। এই ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার প্রশাসনও। প্রশাসন জানিয়েছেন যে ফের যদি এরকম ঘটনা ঘটে তাহলে তারা আইনগত ব্যবস্থা নিতে বাধ্য হবেন।

আর বারবার এইভাবে বিপক্ষ দলের ক্যাপ্টেন কে গালিগালাজ করার প্রতিবাদ করলেন অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেট দলে সর্বকালের সেরা অধিনায়ক রিকি পন্টিং। তিনি এবার ক্রিকেট স্পিরিট বজায় রেখে অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেট ভক্তদের একহাত নিলেন।

এইদিন রিকি পন্টিং বলেন যে আমি বারবার থেকে আসছি যে বিরাট কোহলির বিরুদ্ধে এরকম গালিগালাজ উড়ে আসছে গ্যালারি থেকে। তাই আমি দর্শকদের উদ্দেশ্যে বলতে চাই যে বিরাট কোহলি হচ্ছেন একজন বিপক্ষ দলের ক্যাপ্টেন তাই উনার প্রতি সম্মান প্রদর্শন করা আমাদের দায়িত্ব। এই ভাবে বারবার বিপক্ষ দলের ক্যাপ্টেন কে গালিগালাজ করা মানে আমরা আমাদের নিজেদের দেশের সংস্কৃতি সারা বিশ্বের কাছে ছোট করছি। এমনই মন্তব্য করেন অস্ট্রেলিয়ান প্রাক্তন ক্যাপ্টেন রিকি পন্টিং।
কিন্তু এত কিছু করার পরও ভারতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক বিরাট কোহলি কিন্তু অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেট ভক্তদের বিন্দুমাত্র পাত্তা দিতে নারাজ। বরং উনি এটা বুঝিয়ে দিলেন যে যতই চেষ্টা করুক না কেন কেউ উনার খেলায় কিছু প্রভাব ফেলতে পরবে না সেটাই বিরাট বারবার প্রমান করে আসছেন।
#অগ্নিপুত্র