fbpx
আন্তর্জাতিকনতুন খবর

মোদীর কূটনৈতিক চাপে পাকিস্তান এখন ভিখারী! পরমাণু হুমকি দেওয়া ইমরান এখন মোদীর হাতে-পায়ে ধরছে।

পুলওয়ামায় ভয়াবহ জঙ্গি হামলার পর থেকে সারা দেশ রাগে ফুঁসছে, সেইসাথে বিশ্বের সমস্ত বড় বড় দেশ গুলি ভারতের পাশে দাঁড়ানোর কথা জানিয়েছেন। আর তারপরেই ভারতবর্ষের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ভারতীয় সেনা জওয়ানদের পূর্ণ স্বাধীনতা দিয়েছেন পাকিস্তানের উপর আক্রমণ করার জন্য। আর সেই খবর প্রকাশে চলে আসার পর থেকেই ক্রমশ ভয়ে ভীত হয়ে পড়ছে পাকিস্তান এবং তাদের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। এইদিন ভয়ে একেবারে ভীত হয়ে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান শান্তি স্থাপনের জন্য ভারতবর্ষের প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদির কাছে আবেদন করলেন। উনি এবার আবেদন করে জানালেন যে আমরা পুলওয়ামা হামলায় তদন্তের সমস্ত রকম সহযোগিতা করতে রাজি কিন্তু কোনোরকম যুদ্ধ করতে চায় না। এর থেকে বোঝা যাচ্ছে যে এই মুহূর্তে পাকিস্তান পুরোপুরিভাবে ভয় পেয়ে গিয়েছে ভারতকে।

প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদী রাজস্থানে একটি জনসভায় গিয়েছিলেন এবং সেখান থেকে পাকিস্তানকে কার্যত নিশানা করে বলেছিলেন যে পুলওয়ামা জঙ্গি হামলায় নিন্দা করে সারাদেশ এই মুহূর্তে ভারতবর্ষের পাশে দাঁড়িয়েছে। এটাই নতুন ভারত যাদের চারপাশে সমস্ত দেশ  দাঁড়াতে রাজি, সেই সাথে তিনি জানিয়েছিলেন যে কোনো শহীদের আত্মত্যাগ ব্যর্থ যাবে না শহীদের প্রত্যেকটি রক্তের ফোটার হিসাব আমরা ভালোভাবে নেব। এই কাপুরুষোচিত হামলার জবাব দেওয়া হবে পাকিস্তানকে। আর প্রধানমন্ত্রীর এহেনা মন্তব্যের পরই কার্যত ভয় পেয়ে ইমরান খান এই বিশেষ আবেদন জানিয়েছেন ভারত সরকারকে, উনি বলেছেন পাকিস্তান পুলওয়ামা ঘটনার তদন্তে সাহায্য করতে রাজি আছে।

ইমরান খান প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পরে জানিয়েছিলেন যে আমার লড়াই পাকিস্তানের গরিব দূর করা এবং অশিক্ষার বিরুদ্ধে এবং আমি পাকিস্তান থেকে সন্ত্রাসবাদ নির্মূল করতে চাই। কিন্তু উনি সেই কথাগুলি শুধুমাত্র ভোটের জন্য যে বলেছিলেন সেটা স্পষ্ট কারণ ভোটের পরে সন্ত্রাসবাদ দমনে কোন রকম পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি ইমরান খান। আর এবার ভীত হয়ে ভারতকে বলছি আমরা তদন্তে সাহায্য করতে রাজি এখন দেখা যাক সত্যিই কি ইমরান খান তদন্তে সাহায্য করবে নাকি শুধুমাত্র ভয় পেয়ে এখন মিথ্যা আশ্বাস দিচ্ছে ভারত সরকারকে।

কিছুদিন আগে পাকিস্তানের বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম এবং বিভিন্ন বড় বড় নেতা-মন্ত্রীরা ভারতকে জানিয়েছিল যে তারা ভারতে যে কোন মুহূর্তে পরমাণু হামলা করতে পারে। আর সেই হুমকি দেওয়ার এই কদিনের মধ্যেই তাদেরকে ভারতের হাতে পায়ে ধরতে হচ্ছে এর কারণ মোদী সরকারের কূটনৈতিক বুদ্ধি, কারণ মোদি সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে পাকিস্তানকে যুদ্ধে পরাজিত করার আগে তাদের কে অনাহারে মারার পরিকল্পনা নিয়েছে। আর সেই লক্ষ্যেই এই মুহূর্তে ভারত থেকে বিভিন্ন সবজির যাওয়া বন্ধ হয়ে গিয়েছে পাকিস্তান। এমনকি পাকিস্তান থেকে কোনরকম ব্যবসায়ী দ্রব্য বিশেষ করে সিমেন্ট কিনতে চাইছে না ভারতের ব্যবসায়ীরা। আর এর ফলেই এই মুহূর্তে পাকিস্তানের পরিস্থিতি এমন জায়গায় এসে দাঁড়িয়েছে যে পাকিস্তানের সোনার থেকে সবজির দাম বেশি হয়ে যাবে কয়েকদিনে। এরকম চলতে থাকে তাহলে পাকিস্তান না খেতে পেয়ে মারা যাবে। তাই বাধ্য হয়ে ইমরান খান এখন ভারত সরকারের হাতে পায়ে ধরছে।
#অগ্নিপুত্র

Open

Close