ভয় পেয়ে চীনকে ফোন করল পাকিস্তান! বলল আপনাদের দেওয়া ২টি JF-17 ফাইটার জেট উড়িয়ে দিয়েছে ভারত।

পুলওয়ামায় ভয়াবহ জঙ্গি হামলার বদলা নেওয়ার জন্য ভারতীয় বায়ুসেনা আজ ভোর রাতে পাকিস্তানের উপর এয়ার স্ট্রাইক করেছিল এবং পাকিস্তানের তিনটি বড় বড় জঙ্গি ঘাঁটিকে পুরোপুরি ধ্বংস করে দিয়েছে। এই এয়ার স্ট্রাইকের জন্য ব্যবহার করা হয়েছিল মিরাজ ফাইটার জেট বিমান। ভারতের এই প্রত্যাঘাত অর্থাৎ এয়ার স্ট্রাইক এর পর থেকে একের পর এক ভালো এবং উল্লেখযোগ্য খবর বাইরে আসছে। প্রথমে পাওয়া খবর অনুযায়ী জানা গিয়েছিল যে, ৩০০ জন আতঙ্কবাদী খতম হয়েছে তবে এইমাত্র পাওয়া খবরের ভিত্তিতে জানা গিয়েছে আতঙ্কবাদী মৃত্যুর সংখ্যা এখন ৪০০ পেরিয়ে গিয়েছে। উল্লেখিত এই স্ট্রাইক করতে ভারত কোনো ড্রোন ব্যবহার করেনি বরং যথেষ্ট সাড়া শব্দ করেই এই এয়ার স্ট্রাইক করা হয়েছে। তাছাড়াও ভারত যে এমনই কোনো আঘাত হানতে পারে সেটা ভালোভাবেই জানতো পাকিস্তান। কিন্তু তার সত্ত্বেও ভারতীয় বায়ুসেনা কে আটকাতে পারেনি পাকিস্তানী সেনাবাহিনী।

ভারতের মোট ১২ টি ফাইটার জেট পাকিস্তানে ঢুকেছিল। সেই খবর পেয়ে পাকিস্তানের ল্যান্ড ডিফেন্স সমস্ত রকম ভাবে চেষ্টা চালায় ভারত কে আটকানোর কিন্তু ব্যার্থ হয় পাকিস্তান। এর মাধ্যমে এটাই বোঝা যাচ্ছে যে ভারত পাকিস্তান কে জানিয়ে তাদের ঘরে ঢুকে তাদেরকে মেরে এল কিন্তু পাকিস্তান শুধু দর্শকের ভূমিকা পালন করল। পাকিস্তানের ল্যান্ড ডিফেন্স ভারত কে আটকানোই ব্যার্থ হওয়ার পর তারা ভারতীয় বায়ুসেনাকে আটকানোর জন্য F-16 ব্যবহার করে।

কিন্তু কোনো কাজে আসে নি F-16; এর ফলে পাকিস্তান তাদের পরম বন্ধু চীনের কাছে পাওয়া দুটি JF-17 নামায় ভারত কে আটকানোর জন্য কিন্তু দুঃখের বিষয় দুটি JF-17 কেই উড়িয়ে দেয় ভারতীয় বায়ুসেনা। চীনের কাছে পাওয়া JF-17 ও ভারত ওই আটকাতে পারেনি।

ভারতীয় বায়ুসেনা নিজেদের কাজ সম্পূর্ণ করে তারপরে কোনরূপ আঘাত ছাড়াই ভারতে ফিরে আসে। আর এই ঘটনার পরই পাকিস্তান চরম চাপে পড়ে যায় এবং তাদের একমাত্র বন্ধু চীনকে জানায় যে তাদের দেওয়া JF-17 ধ্বংস করে দিয়েছে ভারত। এরপর পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য এই মুহূর্তে পাকিস্তান এবং চীন একে অপরের সাথে পরামর্শ করছে। কিন্তু তাতে ভারতের কিছু আসে যায় না, কারণ ভারত এই মুহূর্তে সবসময় হাউএলার্ট এর মধ্যে রয়েছে এবং যেকোনো পরিস্থিতির শক্ত হাতে মোকাবিলা করতে প্ৰস্তুত।
#অগ্নিপুত্র

Related Articles