fbpx
দেশনতুন খবরভারতীয় সেনা

পাকিস্তান ধ্বংসের পরিকল্পনা তৈরি, পাকিস্তানকে চার টুকরো করার জন্য কাজ শুরু করল মোদী সরকার।

ভারতের সেনাবাহিনী অন্যান্য দেশের তুলনায় অনেক শক্তিশালী হলেও দেশের সামরিক ভাণ্ডার কিন্তু ততটা শক্তিশালী নয় তা প্রতিবেশী সমস্ত দেশেরই জানা। এতদিন অবধি যেকোনো যুদ্ধতেই ভারতীয় বায়ুসেনা বা নৌসেনা  বা স্থলসেনা সকলকেই সেই মান্ধাতা আমলের অস্ত্রশস্ত্র ব্যবহার করতে হত শত্রুপক্ষের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য। কংগ্রেসের আমলে দেশের আর্থিক ভাণ্ডার ততটা শক্তিশালী নয় বলে দায় সাড়া হত। অগত্যা পুরানো অস্ত্রশস্ত্র ভরসা ছিল সেনাবাহিনীর কাছে। কিন্তু বর্তমান সরকারের কাছে তা অতীত। বিশেষ করে পুলওয়ামা কাণ্ডের পর দেশের সামরিক শক্তি বৃদ্ধির দিকে মন দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। বর্তমানে সামরিক শক্তির মধ্যে সবথেকে শক্তিশালী হল পারমানবিক বোমা। যুদ্ধক্ষেত্রে যেকোনো শত্রুকে দমন করতে যথেষ্ট। তবে সমস্ত দেশের সেনাবাহিনীই এই পারমানবিক বোমা সম্পর্কে অবগত আছেন। তাই পারমানবিক বোমা সঠিক ভাবে ব্যবহার করাটাই হল আসল কাজ।

তাই এবার পারমানবিক বোমা সাবমেরিন নামতে চলেছে যুদ্ধ ক্ষেত্রে। জলপথের জন্য বিশেষ ভাবে ব্যবহৃত সাবমেরিন জলের নীচে থাকার কারণে পারমানবিক বোমা দেখা কারোর পক্ষেই সম্ভব হবেনা। তাই কৌশল করে পাকিস্থানের স্থায়ী চিকিৎসার জন্য আরও একটি নতুন পারমানবিক সাবমেরিন ব্যবহার করতে চলেছে ভারতের নৌসেনারা। প্রসঙ্গত, গত ফেব্রুয়ারী মাসে পুলওয়ামা কাণ্ডের পর বালাকোট এয়ারস্ট্রাইক করে ভারত সরকার পাকিস্থানকে চাপে ফেলেছিল তাতে প্রায় দম বন্ধ হওয়ার জোগাড় হয়েছিল ইমরানের দেশের। আর এরপর ভারতীয় নৌসেনারা ভারতের সমস্ত জাহাজগুলি পাকিস্থানের দিকে আরব সাগরের এলাকায় দিক পরিবরিতন করে দিয়েছিল। ফলে জলপথেও যুদ্ধের আশঙ্কা প্রকাশ করেছিল পাকিস্থান। পাকিস্থানের ছোটো বড় সমস্ত বন্দরগুলিকে সাময়িক ভাবে বন্ধও করে দেওয়া হয়েছিল। এমনকি সন্ধ্যার পর বন্দর শহর গুলিতে নিরাপত্তা জারি হওয়াতে আলো নিভিয়ে রাখা হত।

ভারতের কাছে  ইতিমধ্যেই দুটি পারমানবিক সাবমেরিন রয়েছে যেগুলি হিন্দ সাগর ও বঙ্গোপসাগরে চিনকে বাধা দেওয়ার জন্য রয়েছে। কিন্তু এবার তৃতীয় পারমানবিক সাবমেরিন ব্যবহার করতে চলেছে মোদি সরকার। রাশিয়া থেকে এই বিশেষ সাবমেরিনের সাহায্যে পাকিস্থানকে টুকরো টুকরো করেত চায় ভারত। তাই রাশিয়ার সঙ্গে মিলে সেই পারমানবিক সাবমেরিন এবার আসবে ভারতে। এই তৃতীয় পারমানবিক সাবমেরিন আনতে ভারত ও রাশিয়ার 3.3 বিলিয়ন ডলারের চুক্তি হয়েছে। যেটি করাচির কিছু দূরেই থাকবে বলে জানা গিয়েছে। আর এই তৃতীয় পারমানবিক সাবমেরিনই ভারতকে পাকিস্থানের আক্রমন থেকে রক্ষা করে পাকিস্থানে রক্তপাত করাতে পারবে বলেই মত সকলের। অন্যদিকে বর্তমানে দেশের সামরিক শক্তি আগের তুলনায় অনেকটাই শক্তিশালী হয়েছে। কারণ, একে-230 রাইফেলের সংখ্যা আগের তুলনায় বেড়েছে।

পাশাপাশি সুপারসনিক রাইফেলের রেঞ্জও বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে রাশিয়া ভারতের বুকে বানাতে চলেছে অ্যাসল্ট পাওয়ার রাইফেল। তারপরে এই পারমানবিক সাবমেরিন আগুণে ঘি ঢালবে পাকিস্তানের। তাই এখন শুধু পাকিস্তানই নয় সেই সাথে পাকিস্তানের পরম বন্ধু চিনও ভয় পাচ্ছে ভারত কে।

Open

Close