ব্যার্থ হয়নি ISRO, ভারতের চন্দ্রযান-২ মিশন নিয়ে পজেটিভ প্রতিক্রিয়া দিল বিদেশী মিডিয়া।

শনিবার যখন চন্দ্র পৃষ্ঠ থেকে মাত্র ২.১ কিলোমিটার দূরে ছিল তখন ভারতীয় স্পেস রিসার্চ অর্গানাইজেশনের (ইসরো) ল্যান্ডার বিক্রমের(চন্দ্রায়ণ -২) ইসরো সদর দফতরের সাথে যোগাযোগ হারিয়ে যায়।  বিশ্ব জুড়ে সবার নজর ছিল ভারতের চন্দ্রায়ণ -২ এর উপর। এই মিশনের জন্য বিদেশ থেকেও অভিনন্দন গৃহীত হয়েছিল।  সবকিছু যাতে ঠিকঠাক হয় তার জন্য পার্থনাও করা হয়েছিল। তবে শেষ মুহুর্তে গিয়ে হতাশার সম্মুখীন হতে হয়, যার ফলে সকল ভারতীয়রা দুঃখী হয়ে গেছিল। যদিও মিশনের ৫% নষ্ট হয়েছে ৯৫% এখনও সঠিক রয়েছে। এখনও ল্যান্ডারের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা চলছে যা ঠিক হলে পুরো ১০০% মিশন সফলতা পাবে।

এই মিশনটি খুব বিশেষ ছিল এবং এখনও আছে। ভারতে এই বিমানটি সারা বিশ্ব জুড়েই খবরে ছিল। কেবল ভারতই নয়, গোটা বিশ্বই ইসরোর প্রশংসা করছে। চন্দ্রায়ণ -২ নিয়ে বিদেশি মিডিয়াও পজেটিভ বার্তা প্রদান করেছে। চন্দ্রযান-২ নিয়ে বিদেশী মিডিয়ার দ্বারা প্রকাশিত বার্তা নীচে দেওয়া হলো।

আমেরিকান ম্যাগাজিন ওয়ার্ড

চন্দ্রায়ণ -২ এর অবতরণ সম্পর্কে আমেরিকান ম্যাগাজিন ওয়্যার্ডের অনলাইন সংস্করণ লিখেছিল, ‘ভারতের মহাকাশ কর্মসূচির জন্য একটি বড় ধাক্কা, তবে মিশনটি শেষ নয়’।

ওয়াশিংটন পোস্ট:
ওয়াশিংটন পোস্ট লিখেছিল, ‘ভারতের ল্যান্ডার চাঁদে অবতরণের চেষ্টা করার সময় যোগাযোগ হারিয়ে ফেলেছিল।’ প্রবন্ধে লেখা হয়েছে, “এই ঘটনা ভারতের মহাকাশ উচ্চাভিলাষ বাড়িয়ে তুলবে। আমেরিকান দৈনিকটি অব্যাহত রেখেছে, “চাঁদে 38 টি সফট ল্যান্ডিং প্রয়াসের মধ্যে অর্ধেকই (৫০%) সফল হয়েছে। ভারত আশা করেছিল যে তার চন্দ্রায়ণ -২ মিশন চীনে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া এবং চীনের পরে চতুর্থ দেশ হবে।

নিউইয়র্ক টাইমস:
নিউইয়র্ক টাইমস ভারতের ইঞ্জিনিয়ারিং অগ্রগতি এবং কয়েক দশকের অন্তরীক্ষ বিকাশকে তার বৈশ্বিক উচ্চাকাঙ্ক্ষার সাথে যুক্ত করেছে। নিউইয়র্ক টাইমস লিখেছিল, ‘কক্ষপথটি চালু রয়েছে, চন্দ্র পৃষ্ঠে অবতীর্ণ দেশগুলির অন্যতম সেরা ক্লাবে যোগ দিতে ভারত কিছুটা কম হয়ে গেল।’

লে ম্যান্ডে:
ফরাসী দৈনিক লে ম্যান্ডে চাঁদে অবতরণের সাফল্যের হার উল্লেখ করেছে। এতে বলা হয়েছে, “বিজ্ঞানীর মতে, মাত্র ৪৫ শতাংশ এই মিশনে সফল হয়েছিল।” লে ম্যান্ডে তার নিবন্ধটি ‘ভাঙা স্বপ্ন’ শব্দটি দিয়ে শুরু করেছিলেন।

ওয়েবসাইটটি ন্যাশনাল অ্যারোনটিকস অ্যান্ড স্পেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের (নাসা) এক বিশেষজ্ঞের বরাত দিয়ে বলেছে, ‘কল্পনা করুন কোনও মহাকাশযান একটি বিমানের চেয়ে দশগুণ দ্রুতগতিতে এবং তারপরে আস্তে আস্তে পৃথিবীতে  নামে আরও গুরুত্বপূর্ণভাবে কোনও মানুষের হস্তক্ষেপ ছাড়াই কয়েক মিনিটের মধ্যে।

দ্যা গার্ডিয়ান:
ব্রিটিশ সংবাদপত্র দ্য গার্ডিয়ান তার নিবন্ধে শিরোনামে লিখেছিল, ভারতের মুন ল্যান্ডিংয়ের শেষ মুহুর্তে যোগাযোগ হারায়। এটাও বলা হয়েছিল, ‘ভারত চলেছে যেখানে আগত 20 বছর, 40 বছর বা 100 বছরে মানুষের ভবিষ্যতের বসতি থাকবে।’

Related Articles