যোগী রাজ্য উত্তরপ্রদেশ যেমন থাকছে। তেমনি থাকছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর গড় গুজরাতও। কিন্তু সাধারণতন্ত্র দিবসের প্যারেডে ফের কেন্দ্রীয় বঞ্চনার শিকার হয়েছে বাংলা। রাষ্ট্রসঙ্ঘ বিশেষ সম্মান জানালেও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্বপ্নের প্রকল্প ‘কন্যাশ্রী’ থিমের ট্যাবলো বাদ দিয়ে দিয়েছে মোদী সরকার। এছাড়াও নবান্নের পাঠানো আরও দুটি থিম- ‘সেভ গ্রিন, স্টে ক্লিন’ এবং ‘জল ধরো জল ভরো’কে অনুমোদন দেয়নি কেন্দ্র। কিন্তু সবাইকে অবাক করে দিয়ে হঠাতই প্রজাতন্ত্র দিবসের প্যারেডে জায়গা করে নিল কলকাতা পোর্ট ট্রাস্টের ট্যাবলো! দিন কয়েক আগেই বন্দরের ১৫০ বছর পূর্তির অনুষ্ঠানে এসে বন্দরের নাম পরিবর্তন করে শ্যামাপ্রসাদ মুখ্যোপাধ্যায়ের নামে করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। আর এবারে গোটা দেশের কাছে শ্যামাপ্রসাদের নামাঙ্কিত বন্দরকেই ‘মুখ’ করে তুলতে চাইছে তাঁর সরকার!

জানা গিয়েছে, কলকাতা পোর্ট ট্রাস্টকে ট্যাবলো ভাবনায় ফুটিয়ে তুলেছে কেন্দ্রীয় জাহাজ মন্ত্রক। আস্ত হাওড়া ব্রিজ,খেটে খাওয়া কুলি-মজুর, এবং পোর্টের ইতিহাস ফুটে উঠেছে ট্যাবলোয়। সম্প্রতি কলকাতা বন্দরের ১৫০ তম বর্ষপূর্তি পালন করা হয় মহাসমারোহে। খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এসে উদযাপন করেন। মমতার যোগ দেওয়া নিয়ে রাজনৈতিক চাপান-উতর শুরু হলেও শেষমেশ একই মঞ্চে মোদী-মমতাকে দেখা গিয়েছে। কিন্তু কেন্দ্রের ট্যাবলো প্রত্যাখ্যানের ক্ষোভ জাহির করতে ভোলেননি মমতা। প্রজাতন্ত্র দিবসের প্যারেড থেকে বাংলার ট্যাবলোকে বাদ দেওয়ায় বিস্তর রাজনৈতিক তরজাও শুরু হয়। তবে শুধু বাংলাই নয়, পাশাপাশি মহারাষ্ট্র, কেরালার ট্যাবলোও বাতিল করে কেন্দ্র। ফলে এই সিদ্ধান্তকে রাজনৈতিক প্রতিহিংসা বলেই দাবি করেছে বিরোধীরা।