ঠাকুর নগরের সভায় মোদীর এই বিশেষ বক্তব্য গুলি তৃণমূল কে একেবারে বিদ্ধস্ত করে দিল। একনজরে দেখে  নিন সেই বক্তব্য গুলি।

এইদিন ঠাকুরনগরে মঞ্চে উঠে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বাংলা ভাষাতে বক্তৃতা দিতে শুরু করেন। উনি মঞ্চে উঠে প্রথমে প্রণাম জানিয়ে নেন ঠাকুরনগরের হরিচাঁদ ঠাকুরকে, এরপর বিভূতিভূষণ বন্দোপাধ্যায় কে প্রণাম জানিয়ে নিজের বক্তব্য শুরু করেন।
উনি বক্তব্যের শুরুতেই প্রথমে তৃণমূলের অসামাজিক কাজকর্ম গুলি তুলে ধরে বলেন যে এই পশ্চিমবঙ্গ হচ্ছে স্বামী বিবেকানন্দ, রামকৃষ্ণ পরমহংস দেব, শ্রী চৈতন্য, কাজী নজরুল ইসলাম এবং শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের জন্মভূমি আর এই মুহূর্তে এই সব বিশিষ্ট ব্যক্তিদের জন্ম ভূমিতে অপশাসন চলছে।

এরপর প্রধানমন্ত্রী বলেন যে কেন্দ্রীয় সরকার গত সাড়ে চার বছর ধরে দেশের প্রত্যেকটি রাজ্যের মানুষের জীবনে পরিবর্তন আনার চেষ্টা করছে। বিভিন্ন প্রকার প্রকল্পের সুযোগ সুবিধা করে দিচ্ছে দেশের প্রতিটি রাজ্যের গরিব মানুষদের জন্য। তাদের চিকিৎসার জন্য বিভিন্ন প্রকল্পের সূচনা করেছে কেন্দ্র সরকার কিন্তু পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সেই সকল সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত করছেন পশ্চিমবঙ্গবাসী কে। এরপর প্রধানমন্ত্রী বলেন যে এই বাজেটে দেশের প্রতিটি মধ্যবিত্ত এবং কৃষক ফ্যামিলির জন্য বিভিন্ন উন্নয়নমূলক ঘোষণা করা হয়েছে এবং সেই সকল সুবিধা পাবে দেশের প্রতিটি নাগরিক।

এই দিন প্রধানমন্ত্রী সভায় অনেক মানুষের সমাগম হয়েছিল। সেই ভীড় দেখে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেন যে আমি খুবই খুশি হয়েছি এই ভিড় দেখে, এই মুহূর্তে এখানে এত মানুষের সমাগম দেখে সত্যিই আমি আপ্লুত। এবং সেই সাথে তিনি এটা বলেন যে এর থেকে সহজে বোঝা যাচ্ছে এই মুহূর্তে পশ্চিমবঙ্গের গণতন্ত্র বিপন্ন। তাই তিনি বলেন যে আপনারা বিজেপিকে আপনাদের রাজ্যে অনুন আমি কথা দিলাম আপনাদের কাউকে সিন্ডিকেট ট্যাক্স দিতে হবে না, অত্যাচারিত হতে হবে না, আপনাদের টাকা সরাসরি কেন্দ্র থেকে আপনাদের ব্যাংক একাউন্টে পাঠানো হবে; মাঝে কোন পার্টির নেতা বা মন্ত্রী সেটা খেতে পারবে না।

এরপর তিনি বলেন যে অন্য দেশে অত্যাচারিত জৈন, বৌদ্ধ, হিন্দু, মুসলিম সকল ধর্মের মানুষকে কেন্দ্র সরকার চেয়েছে ভারতের নাগরিকত্ব দিতে। কিন্তু তৃণমূল কংগ্রেস এই বিলের বিরোধিতা করে গিয়েছে বার বার। তাই আপনারা তৃণমূল কংগ্রেস কে সরিয়ে বিজেপিকে আনুন এতে দেশের সকলের ভাল হবে। এরপর তিনি বলেন “জয় হিন্দ, ভারত মাতা কি জয়।”
#অগ্নিপুত্র

Related Articles