fbpx
দেশনতুন খবরমতামত

সুপ্রিমকোর্টের সিদ্ধান্তে মুখ পুড়ল হিন্দু বিরোধীদের, উৎসবে বাজি ফাটানো নিয়ে বড় সিদ্ধান্ত জানালো সুপ্রিমকোর্ট।

ভারত হিন্দুপ্রধান দেশ। আর হিন্দু ধর্ম মানেই উৎসবের বাহার। পয়লা বৈশাখ থেকে শুরু করে দোল উৎসব গিয়ে শেষ হয়। ভারতে এক অন্য বৈচিত্র্যের মধ্যে ফেলা হয় হিন্দু ধর্মের উৎসব গুলিকে। আর তার মধ্যে অন্যতম উৎসব হল দীপাবলী। দুদিন ধরে আলোর উৎসবে মেতে ওঠেন হিন্দু ধর্মাবল্মীরা শুধু আলোর উৎসবই নয় সঙ্গে থাকে মন মাতানো বাজি ফাটানো উৎসব। কিন্তু এতেই ঘোর আপত্তি বামপন্থী ও সেকুলারদের। প্রতিবছর এই আলোর উৎসবে বাজি ফাটানো নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হওয়া যেন এদের এক অভ্যাসে দাঁড়িয়েছে। জারি করা হয় পিটিশ। যা দেখে হিন্দুদের এই বিশেষ উৎসবের ওপরেও কিছু নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। যা আদতে ভারতের সংস্কৃতিকে ধীরে ধীরে নিশ্চিহ্ন করারই নামান্তর। যদিও বিজ্ঞানের ভাষায় দূষণ বাড়ে কিন্তু বহু দিন  ধরে চলে আসা এই বিশেষ উৎসবে বাধা দেওয়ার অধিকার কারোর নেই বলেই দাবি একাংশের।

কিন্তু এবার দীপাবলী উৎসবে বাজি ফাটানো মামলায় কোমড় বেঁধে মাঠে নামল সুপ্রিম কোর্ট। দূষণ সংক্রান্ত একটি মামলায় বিরোধীদের কড়া ভাষায় সুপ্রিম কোর্টের জবাব দূষণ ধোঁয়া থেকে হয়, তাহলে বাজির পিছনে পড়ে থাকার কারণ কি। মঙ্গলবার দূষণ সংক্রান্ত ওই মামলায় কেন্দ্রীয় সরকারকে গাড়ির ওপর সমীক্ষা চালানোর নির্দেষ দিয়েছে দেশের সর্বোচ্চ আদালত। পাশাপাশি সেই সমীক্ষার রিপোর্ট জমা দেওয়ার কথাও জানানো হয়েছে। এবং বলা হয়েছে গাড়ি থেকেও দূষণ হয় তাহলে বাজির পিছনে লোকের পড়ে থাকে কেন।

সুপ্রিম কোর্টের এই নির্দেশের ফলে রাতের ঘুম উড়ে যাওয়ার কথা সেকুলারদের। আসলে দীপাবলী নিয়ে দুরকমের সুরে অবাক সুপ্রিম কোর্ট। কারণ, এতদিন ধরে দীপাবলীর পর দূষণের কথা মাথায় রেখে বাজি ফাটানোর ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হত। সাধারণত, দাপাবলীর পরের দিন দিল্লীর আকাশে ধোঁয়াশার ছবিও সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত হয় প্রতিবছর নিয়ম করে।

দূষণ মানুষের জন্য ভয়ানক ক্ষতিকারক তা জেনেও সুপ্রিম কোর্টের এহেন মন্তব্যে বেশ অসন্তোষ এক বিজ্ঞান চেতনা মনস্ক ব্যক্তিরা কিন্তু অন্যদিকে আবার বেশ খুশি উৎসবে মাতোয়ারা হতে থাকা মানুষকজন। সকলের একটাই বক্তব্য বছরে তো একটা দিন। তবে বিতর্ক যে দিকেই যাক না কেন। আদৌ কি সুপ্রিম কোর্টের এই যুক্তি ধোপে টিকবে, নাকি আবার কোনো মামলা হবে এখন সেই দিকেই লক্ষ্য।

Close