Connect with us

দেশ

বড় খবর! কাশ্মীরে শুরু হল সেনাবাহিনী বিশেষ অভিযান: ” অপারেশন-২৫”

Published

on

পুলওয়ামার সেনা জাওয়ানদের উপর এইভাবে জঙ্গি হামলার পর থেকে দেশজুড়ে জ্বলছে প্রতিশোধের আগুন। আর দিনের পর দিন সেই প্রতিশোধের আগুন আরও জোড়ালো হচ্ছে। দেশের মানুষ যেকোনো মূল্যে সেনা জওয়ানদের মৃত্যুর বদলা চাই। আর সেই জন্য এই মুহূর্তে সেনা জাওয়ানরা একটি বড় চ্যালেঞ্জ নিয়েছেন। তাদের চ্যালেঞ্জ পুলওয়ামার ঘটনার মাস্টারমাইন্ড গাজী রশিদ কে তাড়াতাড়ি ধরা এবং তাকে উপযুক্ত শাস্তি দেওয়া। এই গাজী রাশেদ জঙ্গীদের ট্রেনিং দিয়ে তৈরি করে ভারতের বিরুদ্ধে হামলা করার জন্য। এই মুহূর্তে সেনা জওয়ানরা জানিয়েছেন যে বিস্ফোরণ ঘটার পরে সঙ্গে সঙ্গে গোটা এলাকাটি কে ভালোভাবে ঘিরে ফেলা হয়েছে এর ফলে গাজী রশিদ এখন এই পুলওয়ামাতেই রয়েছে, সেখান থেকে ২৫ কিলোমিটারের বেশি যেতে পারেনি। এই মুহূর্তে সেই স্থানে রয়েছে এবং অপেক্ষা করছে কখন সেনা তাদের তল্লাশি হালকা করে এবং সে সেখান থেকে পালাতে পারে। আর তাকে ধরবার জন্য এই মুহূর্তে সেনা জওয়ানদের নতুন চ্যালেঞ্জ “অপারেশন ২৫”।

এছাড়াও এই মুহূর্তে কাশ্মীর পুলিশ এবং সেনাবাহিনী আরো একটি বিশেষ প্রক্রিয়া শুরু করেছেন। তারা এখন জঙ্গী ছাড়াও আরো নানান দিকে নজর রাখছে, জানা গিয়েছে যে কাশ্মীর পুলিশ এবং সেনাবাহিনীর একটি বিশেষ টিম এই মুহূর্তে কাশ্মীরি এলাকার বিভিন্ন যুবক-যুবতী এবং মহিলাদের প্রতি নজর রাখছেন। যারা জঙ্গিদের বিভিন্ন ভাবে সাহায্য করেছে এবং ভারতীয় সেনাবাহিনীর বিভিন্ন তথ্য তুলে দিয়েছে তাদেরকে চিহ্নিত করার প্রক্রিয়া শুরু করেছে এবং তাদেরকে চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছে ভারতীয় সেনাবাহিনী।

পুলিশ এবং সেনাবাহিনীর একটি বিশেষ টিম বিশেষ করে প্রাক্তন কয়েকজন কর্মীকে নিয়ে একটি টিম তৈরি করা হয়েছে। তারা বেছে বেছে কয়েকটি গ্রাম কে চিহ্নিত করেছেন এবং সেই গ্রামগুলির প্রতিটি মানুষের ব্যাংকের খাতা, কর্মস্থল এবং তাদের মোবাইল এর প্রতিটি জিনিস খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে দেখছে যাতে তারা কোন ভাবে জঙ্গি সংগঠনের সাথে যুক্ত নাকি সেটা জানা যায়। এছাড়াও কাশ্মীর পুলিশ মনে করছেন এই জঙ্গি সংগঠনের মূল চালিকা শক্তি হচ্ছে এই সকল লোকাল নেটওয়ার্ক, এদেরকে ধরে ফেলতে পারলেই মূল মাথাটিকে তাড়াতাড়ি বের করা যাবে এবং উপযুক্ত শাস্তি দেওয়া হবে। এই জন্য এই মুহূর্তে খুব সক্রিয় হয়ে উঠেছে ভারতীয় সেনাবাহিনী সহ কাশ্মীর পুলিশের আধিকারিকরা।
#অগ্নিপুত্র

দেশ

জম্মু কাশ্মীরে সেনার হাতে খতম পাকিস্তানি জঙ্গি

Published

on

By

উত্তরি কাশ্মীরের বারামুলা জেলায় শনিবার সেনার এনকাউন্টারে খতম হয় এক জঙ্গি। বারামুলা জেলার বোনিয়ার এলাকায় শনিবার সেনা আর জঙ্গিদের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। সংঘর্ষ চলাকালীন সেনার গুলিতে খতম হয় এক জঙ্গি। মৃত জঙ্গির থেকে হাতিয়ার আর প্রচুর পরিমাণে বিস্ফোটক উদ্ধার হয়েছে। জঙ্গির পরিচয় জইশ এর কম্যান্ডার লুকমান এর নামে হয়েছে। মিডিয়া রিপোর্টস অনুযায়ী, জইশ এর কম্যান্ডার দক্ষিণ কাশ্মীর থেকে উত্তর কাশ্মীর যাচ্ছিল। সেখানে গিয়ে সে পাকিস্তান এবং অনান্য জঙ্গিদের নিয়ে জঙ্গি কার্যকলাপ চালাত। সেনা গোপন সুত্রে খবর পায় যে জইশ এর কম্যান্ডার দক্ষিণ কাশ্মীরের বারামুলা জেলায় লুকিয়ে আছে। গোপন খবর পাওয়ার পরেই সেখানে অভিযান চালায় সেনা।

কিছুদিন আগের রিপোর্টে উঠে এসেছিল যে, পুলওয়ামা হামলার পর ভারতীয় সেনা আরও দ্রুত গতিতে অপারেশন অলআউট চালিয়ে উপত্যকা থেকে ১২৫ জঙ্গিকে খতম করেছে এ বছরেই। মে মাসের সেশে দিকের রিপোর্টে বলা হয়েছে যে, ফেব্রুয়ারি মাসের পর সেনার অপারেশন অলআউটে ১০১ জন জঙ্গিকে খতম করা হয়েছে।

রিপোর্ট অনুযায়ী, সেনা কাশ্মীরে প্রায় ১২৫ জন জঙ্গিকে খতম করেছে। শুধু জুন মাসেই প্রায় ২৪ জঙ্গিকে খতম করা হয়েছে। ওই জঙ্গিরা লস্কর, হিজবুল আর জইশ এর জঙ্গি সংগঠন গুলোর সাথে যুক্ত ছিল। বিগত কয়েকটি এনকাউন্টারে সেনা প্রচুর পরিমাণে হাতিয়ারও উদ্ধার করেছে।

 

Continue Reading

দেশ

উন্নয়ন হয়নি বলে, পঞ্চায়েত সেক্রেটারিকে ল্যাম্পোস্টে বেঁধে পেটাল জনতা

Published

on

By

উন্নয়ন করা হয়নি কেন? পঞ্চায়েতের সেক্রেটারিকে ল্যাম্পোস্টে বেঁধে পেটাল সাধারণ জনতা। মধ্যপ্রদেশের রতলাম জেলার ভীমা খেদি গ্রামে দীর্ঘ দিন ধরে নূন্যতম উন্নয়ন করা হয়নি বলে অভিযোগ পঞ্চায়েতের বিরুদ্ধে। গ্রামবাসীদের অভিযোগ, দীর্ঘদিন ধরেই এলাকায় কোনও উন্নয়ন হয়নি। নূন্যতম পরিষেবাটুকুও তাঁরা পান না কিছুতে। নিত্যদিন প্রবল প্রতিকূলতার মুখোমুখি হতে হচ্ছে। এমনকী চলার মতো রাস্তাঘাটও নেই। অথচ রাস্তা নির্মাণের সামগ্রী মজুত করা হলেও রাস্তা নির্মানের কাজ সম্পন্ন হয়নি।

শুক্রবার এই অবস্থায় শুক্রবার ভীমা খেদি গ্রামে পরিদর্শনে গিয়েছিলেন পঞ্চায়েত সেক্রেটারি। সেখানেই তাঁকে গ্রামবাসীদের বিক্ষোভের মুখে পড়তে হয়। শুধু বিক্ষোভ দেখিয়েই শান্ত থাকেনি ওই গ্রামের ক্ষুব্ধ জনতা। ল্যাম্পোস্টে বেঁধে বেধড়ক মারধোর করা হয় পঞ্চায়েত সেক্রেটারিকে। পরে পুলিশ এসে তাঁকে উদ্ধার করে।

আক্রান্ত পঞ্চায়েত সেক্রেটারি বলেছেন, “ওই গ্রামের যাবতীয় নির্মাণ কাজ দ্রুত সম্পন্ন করার জন্য ইঞ্জিনিয়ার নিয়ে কাজের মূল্যায়ন করতে গিয়েছিলাম। কিন্তু কিছু মানুষ আমার উপরে হামলা করল। আমাকে ল্যাম্পোস্টে বেঁধে পেটানো হল।”

Continue Reading

দেশ

রাস্তায় অসুস্থ মহিলাকে দেখে যা করলেন স্মৃতি ইরানি, জানলে আপনি গর্ব করবেন

Published

on

By

কেন্দ্রীয় মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি শনিবার নিজের সংসদীয় এলাকা আমেঠির সফরে যান। সেখানে গিয়ে তিনি এক অসুস্থ মহিলার সাহায্য করে মানুষের মন জয় করে নেন। ওনার কনভয় যখন বরৈলিয়া গ্রাম থেকে বেড়িয়ে যাচ্ছিল, তখন রাস্তা দিয়ে একটি মহিলাকে স্ট্রেচারে করে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। এটা দেখেই তিনি ফট করে নিজের গাড়ি থেকে নেমে পড়েন, এবং নিজের সুরক্ষা ব্যাবস্থায় থাকা সরকারি অ্যাম্বুলেন্স দিয়ে ওই অসুস্থ মহিলাকে হাসপাতালে পাঠান।

পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, ওই মহিলা প্যারেলাইসিসে আক্রান্ত, আর এর জন্য উনি নিজের পায়ে আর চলা ফেরা করতে পারেন না। আজ ওনার পরিবারের লোকেরা ওনাকে ওনার ট্রাই সাইকেল স্ট্রেচারে করে হাসপাতালে নিয়ে যাচ্ছিলেন। তখন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী স্মৃতি ইরানিও ভাগ্যক্রমে ওই রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিলেন, উনি ওই মহিলার এই অবস্থা দেখে গাড়ি থামিয়ে ওনার শারীরিক অবস্থার খবরা খবর নেন, এবং ওনাকে নিজের সুরক্ষায় থাকা অ্যাম্বুলেন্স করে হাসপাতালে পৌঁছে দেন।

কেন্দ্রীয় মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি গোয়ার মুখ্যমন্ত্রী প্রমোদ সাওয়ান্ত এর সাথে শনিবার ২২ জুন আমেঠির দুই দিবসিয় সফরে যান। স্মৃতি ইরানি আমেঠির বরৌলিয়া গ্রামে যান, কারণ গোয়ার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মনোহর পরিকর সাংসদ থাকাকালীন এই গ্রামকে দত্তক নিয়েছিলেন। উনি এই গ্রামে উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। গোয়ার বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘যদি উত্তর প্রদেশ সরকার চায়, তাহলে আমরা শ্রী মনোহর পরিকরের এর স্মরণে এই গ্রামে শিক্ষা, স্বাস্থ, রাস্তা, বিদ্যুৎ, জল এবং অনান্য সমস্ত রকম অসুবিধা গুলো দূর করব।”

 

Continue Reading

Trending