কৃষকরা নিল দেশপ্রেমিক সিদ্ধান্ত! জল আর টমেটোর পর এবার এই জিনিসের জন্য হাহাকার পড়ে গেল পাকিস্তানে।

জম্মু কাশ্মীরের পুলওয়ামায় মর্মান্তিক জঙ্গি হামলায় ভারতের ৪০ জনের বেশি সিআরপিএফ জাওয়ান শহীদ হয়েছেন। আর সেই জঙ্গি সংগঠনের সাথে সরাসরি পাকিস্তানের যোগসূত্র থাকার পর থেকে সমগ্র দেশ জুড়ে পাকিস্তান কে কঠোর জবাব দেওয়ার আওয়াজ উঠছে। আর তারপর থেকে ভারত সরকার পাকিস্তানের উপর ক্রমাগত আর্থিক স্ট্রাইক করছে। পাকিস্তানের সাথে ব্যাবসা বন্ধ করে দেওয়ার কথা জানানো হয়েছে ভারতের তরফে। একদিকে ভারত সরকারের চাপে যখন পাকিস্তানের অবস্থা নাভিশ্বাস হয়ে উঠেছে সেই সময়ে মধ্যপ্রদেশের ছতরপুরের কৃষকরা পাকিস্তান কে দিল আরোও জোরালো ধাক্কা। তাঁরা নিজেদের দেশের জওয়ানদের উপর হওয়া নির্মম ঘটনার প্রতিবাদে দেশের সম্মানের কথা ভেবে পাকিস্তান কে দিল উচিত শিক্ষা।

মধ্যপ্রদেশের ছতরপুরের পান চাষীরা নিজেদের দেশপ্রেমের কর্তব্য পালন করেছেন এবং তারা সিদ্ধান্ত নিয়েছেন যে পুলওয়ামা ঘটনার জন্য তারা আর পান পাঠাবে না পাকিস্তানে। পান কৃষকদের কাছে এই সিদ্ধান্ত ছিল খুবই কঠিন একটা সিদ্ধান্ত, কারণ ছতরপুরে চারটি জেলাতে প্রচুর পরিমাণে পান উৎপন্ন হয় আর সেই পান পাকিস্তান চলে যায় উত্তরপ্রদেশের সাহারানপুর এবং মেরঠ থেকে। কিন্তু কৃষকরা নিজেদের স্বার্থের কথা না ভেবে দেশের জন্য এই কঠোর নিয়েছেন।
এই পান চাষিরা সিদ্ধান্ত নিয়েছেন যে, যে প্রচুর পরিমানে তাদের চাষ পান তারা সাহারানপুর ও মেরঠ দিয়ে পাকিস্তানে পাঠাতো সেটা আর তারা করবে না অর্থাৎ এখন আর কোনো পান তারা পাকিস্তানে পাঠাবে না।

এই সিদ্ধান্তের পরে চাষিদের অনেক পরিমানে লোকসান হবে। চাষিরা প্রত্যেক সপ্তাহে তিন দিন ৪৫ থেকে ৫০ বান্ডিল করে পান পাঠাতো পাকিস্তানে। এই প্রত্যেক বান্ডিলের দাম ৩০,০০০ টাকা। অর্থাৎ কৃষকদের মোট লোকসানের পরিমাণ হবে ১৩ থেকে ১৫ লক্ষ ভারতীয় টাকা।

এই ব্যাপারে পান কৃষকদের কাছে জানতে চাইলে তারা জানান যে, এখন আমরা লাভ বা লোকসানের কথা ভাবছি না আমাদের সেনা জাওয়ানদের জীবন আমাদের কাছে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। এছাড়াও ওনারা বলেন যে, দেশের সরকার যেখানে পাকিস্থানকে জল না দেওয়ার মত বড় সিদ্ধান্ত নিতে পারে সেখানে দেশের নাগরিক হিসেবে আমদের এই সিদ্ধান্ত নিতে কোনো অসুবিধা নেই।
#অগ্নিপুত্র

Related Articles