fbpx
নতুন খবরপশ্চিমবঙ্গমতামতরাজনৈতিক

দুর্গাপুরের সভায় এসে পশ্চিমবঙ্গবাসীর কাছে ক্ষমা চেয়ে নিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। কিন্তু কেন? জেনে নিন।

সারা ভারত মতুয়া সংগঠনের আমন্ত্রণে আজকে প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদী ঠাকুরনগরে একটি জনসভায় যোগদান করেন। কিন্তু সেই জনসভায় কিছুটা বিশৃংখল পরিস্থিতি তৈরি হয় কারণ বিজেপি নেতৃত্বের ধারণা করা হয়নি যে এতটা পরিমাণ ভিড় হয়ে যাবে প্রধানমন্ত্রীর জনসভায়। আশানুরূপ যে ধারণা করা হয়েছিল তার থেকে অনেক অনেক বেশী ভিড় হয়েছিল এই দিনের জনসভায়, এর ফলে যে মাঠে জনসভার আয়োজন করা হয়েছিল সেই মাঠটি ছোট পড়ে গিয়েছিল। বহু মানুষের সমাগমে কিছুটা বিশৃংখল পরিস্থিতি তৈরি হয়। কিছুটা ঠেলাঠেলিতে আহত হয় অনেক বিজেপি কর্মী সমর্থকরা সঙ্গে মহিলারাও পর্যন্ত আহত হন। আর ঠাকুরনগরের সভায় মহিলা এবং শিশুদের অসুবিধার জন্য এই দিন দুর্গাপুরে সভায় গিয়ে প্রথমে সকলের কাছে ক্ষমা চেয়ে নেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

প্রচন্ড ভিড় হওয়ার ফলে ঠেলাঠেলিতে অনেক মানুষ আহত হয় প্রধানমন্ত্রী সভায়। প্রধানমন্ত্রীর সভা চলাকালীন পিছনের ভিড় সামনে ঠেলে দেয় ফলে অনেক মানুষ পড়ে যায় এবং চেয়ার ছোড়াছুড়ি শুরু হয়ে যায়। এরপরে পুলিশের তৎপরতায় গন্ডগোল কিছুটা আয়ত্তে আনা গেলেও অনেক মানুষ ইতিমধ্যে আহত হয়ে গিয়েছিলেন।
রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক প্রতাপ বন্দ্যোপাধ্যায় অভিযোগ করেছেন যে পুলিশ সেখানে থাকা সত্ত্বেও কোনো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা গ্রহণ করেনি পুলিশের সামনে সমস্ত ঘটনাটি ঘটে গেলেও পুলিশ তাৎপরতা দেখায়নি। এবং এই ঘটনা ঘটে যাওয়ার পরে দেরাদুন থেকে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ পরিস্থিতির খবর নেন ফোন করে।

এই পুরো ঘটনার দায় রাজ্য সরকার এবং পুলিশের উপর চাপানো হয়েছে বিজেপি রাজ্য নেতৃত্ব তরফ থেকে। এরপরই প্রধানমন্ত্রী সেখান থেকে চলে যান দুর্গাপুরে এবং দুর্গাপুরে গিয়ে তিনি মঞ্চে উঠে বলেন যে ঠাকুরবাড়িতে কিছুটা বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছিল। সেখানকার মা- বোনদের কিছুটা অসুবিধা হয়েছে সেই জন্য আমি ক্ষমাপ্রার্থী আমি ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি পশ্চিমবঙ্গবাসীর কাছে।
#অগ্নিপুত্র

Open

Close