এই ভারতীয় ট্রাক ড্রাইভাইরের নাম শুনে কেঁপে উঠে পুরো পাকিস্তান। একাই ৮০ জন পাকিস্তানি সেনাকে মেরেছিল এই সাহসী যোদ্ধা।

ভারতবর্ষের যুবকরা দেশের আসল হিরো ভারতীয় সেনাদের ভুলে গিয়ে নিজেদের সময় নষ্ট করছে মিথ্যা হিরো অর্থাৎ বলিউডের খানেদের পিছনে। ভারতীয় সেনাদের আদর্শ হিসাবে না মেনে ভারতের যুবকরা নিজেদের আদর্শ হিসাবে বেঁচে নিয়েছেন বলিউডের খানেদের। আসলে এর জন্য ভারতীয় যুবকদের দোষ দিলে হবে না এর জন্য দায়ী হল ভারতের কিছু দালাল মিডিয়া। ভারতের দালাল মিডিয়া গুলি এতটাই বেশি পরিমাণে বলিউডের খানদের নিয়ে মেতে থাকেন যে তাদের কাছে আড়াল হয়ে যায় ভারতীয় সেনা জাওয়ানরা। যদিও এই মুহূর্তে ভারতবর্ষের সমাজে পরিবর্তন লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এখন ভারতীয় যুবকরা খানদের ছেড়ে ভারতীয় সেনা জওয়ানদের নিজেদের আদর্শ হিসাবে মানছেন।

তবে আমাদের এই মহান ভারতবর্ষে এমন কিছু ব্যাক্তি রয়েছেন যারা দেশের সেনা না হওয়ার সত্ত্বেও দেশের জন্য সেনাবাহিনীর মতোই কাজ করেছেন। কিন্তু দুর্ভাগ্য ভারতবর্ষে কংগ্রেসের মত দুর্নীতিবাজ সরকার থাকার জন্য উনার সেই আত্মবলিদান সম্পূর্ণ রূপে বিফলে যায়। উনার অবদান পুরোপুরি ভাবে ধামাচাপা পরে যায়। আজ এমনই এক ব্যক্তির কথা আপনাদের সামনে তুলে ধরবো যিনি নিজের প্রাণ বাজি রেখে দেশের জন্য কাজ করে গিয়েছেন।

সেই মহান ব্যাক্তি হলেন পাঞ্জাবের বাসিন্দা কমল নয়ন। উনি নিজের ট্রাকে আখ বোঝায় করে পাঞ্জাবের এক রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিলেন। সেই সময় ছিল ১৯৬৫ সাল। সেই সময় ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে যুদ্ধ লেগে যায়। রাস্তায় উনাকে ভারতীয় জওয়ানের এক ব্যাটালিয়ন দাঁড় করিয়ে বলেন যে আপনি কি আমাদের সাহায্য করবেন? উনি সঙ্গে সঙ্গে নিজের ট্রাকের সমস্ত আখ ফেলে দিয়ে ভারতীয় জওয়ানদের সাহায্যের জন্য তৈরি হয়ে যান।
তারপর যুদ্ধের প্রয়োজনীয় গোলা-বারুদ, অস্ত্র-শস্ত্র এবং সেনা জাওয়ানরাদের নিয়ে উনি বেরিয়ে যান পাকিস্তানের উদ্দেশ্যে। রাস্তাতে বিভিন্ন ভাবে নয়ন কমল বাবুকে আক্রমন করে পাকিস্তানি সেনারা ট্রাক থামানোর জন্য কিন্তু উনি কিছুতেই ট্রাক থামান নি, উল্টে উনার ট্রাকের তলায় চাপা পড়ে মৃত্যু হয়েছিল ৮০ জন পাকিস্তানি সেনার।

উনার এই মহৎ কাজের দাম দেয় নি কংগ্রেস। কিন্তু মোদী সরকার আসার পর উনি পেয়েছেন যোগ্য সম্মান। মোদী সরকার উনাকে দিয়েছেন অশোক চক্র পুরস্কার। সেই সাথে উনাকে দেওয়া হয়েছে নানান সুযোগ সুবিধা।
#অগ্নিপুত্র

Related Articles