এলাকায় ত্রাণ বিলি করছিল বিজেপি, ত্রাণের সামগ্রী লুট করে নিলো তৃণমূল!

করোনা পরিস্থিতি যত মারাত্মক হচ্ছে, বিপদাপন্ন দুঃস্থ মানুষের পাশে দাঁড়াতে বিভিন্ন সংস্থার পাশাপাশি এগিয়ে এসেছেন শাসক ও বিরোধী দলের নেতারাও। লকডাউনের প্রেক্ষিতে গৃহবন্দি মানুষের হাতে ত্রাণ তুলে দিচ্ছেন তাঁরা। এ বার সেই ত্রাণও চুরির অভিযোগ উঠল। খেজুরি-২ ব্লকের অন্তর্গত খেজুরির ঘটনা

প্রশাসন ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে,গত রবিবার বিকেলে খেজুরি-২ ব্লকের খেজুরি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় দুঃস্থদের নধ্যে ত্রাণ বিলির ব্যবস্থা নেয় স্থানীয় মণ্ডল বিজেপি নেতৃত্ব। তার জন্য তাঁরা একটি টোটো ভাড়া করে চাল, আলু, সয়াবিন ভর্তি করে নিয়ে যাচ্ছিলেন। অভিযোগ, সেই সময় রাস্তা থেকে টোটো ভর্তি ত্রাণসামগ্রী নিয়ে পালায় দুষ্কৃতীরা। স্থানীয় বিজেপি নেতৃত্বের অভিযোগ, এলাকার তৃণমূল নেতা প্রশান্ত প্রামাণিকের নেতৃত্বে শাসকদলের লোকেরাই ত্রাণসামগ্রী লুট করে নিয়ে গিয়েছে। তাঁরা এই বিষয়ে খেজুরি থানায় জানিয়েছেন। বিজেপির কাঁথি সাংগঠনিক জেলার সাধারণ সম্পাদক তাপস দলুইয়ের অভিযোগ, ‘‘প্রাথমিকভাবে পুলিশ বিষয়টিকে গুরুত্ব দিচ্ছিল না। পরে আমরা প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে সব জানাই। তারপরে তারা এলাকার এক তৃণমূল নেতার বাড়ি থেকে ওই ত্রাণ সামগ্রী উদ্ধার করে আমাদের হাতে তুলে দেয়।’’ এর পরে অবশ্য শতাধিক পরিবারের হাতে চাল ডাল এবং তরিতরকারি তুলে দেন বিজেপি নেতৃত্ব।

ত্রাণসামগ্রী লুটের অভিযোগ স্বীকার না করলেও, ঘটনাটি ভুল বোঝাবুঝির কারণে হয়েছে বলে দাবি করেছে শাসক দল। তৃণমূলের খেজুরি-২ পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি অসীম কুমার মণ্ডলের দাবি, ‘‘ওটা বিজেপির ত্রাণসামগ্রী বলে কেউ জানত না। বিজেপির যে নেতা ত্রাণসামগ্রী নিয়ে যাচ্ছিলেন, তিনি আমাদের দলেরই একজনের কাছ থেকে টাকা ধার নিয়েছিলেন। ওই টাকা দীর্ঘদিন শোধ দিতে পারেননি বলে টোটোয় থাকা জিনিসপত্র নিয়ে নেওয়া হয়েছিল।

পরে পুলিশের পক্ষ থেকে উভয়পক্ষকে নিয়ে আলোচনায় সমস্যা মেটে।’’ যদিও এই বিষয়ে স্থানীয় থানার পুলিশ আধিকারিকরা কোনও মন্তব্য করেননি।