fbpx
দেশনতুন খবররাজনৈতিক

লোকসভায় বাংলার প্রার্থী তালিকা নিয়ে আজ দিল্লীতে গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বের, থাকছে বড় চমক।

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের নির্ঘন্ট প্রকাশিত হয়েছে রবিবারই। রাজ্যজুড়ে বিভিন্ন জেলায় মোট সাত দফায় ভোট গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন। প্রথম দফার ভোট শুরু হচ্ছে 11 ই এপ্রিল থেকে। শেষ হচ্ছে 19 শে মে। এবং ফলাফল ঘোষনার তারিখ 23 শে মে। তৃণমূলের পক্ষ থেকে এখনও কে কোথায় দাঁড়াচ্ছেন তার তালিকা প্রকাশ না করলেও লোকসভা নির্বাচনে রাজ্যে প্রার্থী চূড়ান্ত করতে বিশেষ উদ্যোগ নিল বিজেপি। তাই সোমবারই ঠিক করা হবে কোন প্রার্থীকে কোন আসন থেকে দাঁড় করানো যেতে পারে। এই বিষয়ে সোমবার দিল্লীতে বিজেপির শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে প্রার্থীর তালিকা নিয়ে একটি বৈঠকে বসতে চলেছে রাজ্য বিজেপি নেতারা। সেই বৈঠকে উপস্থিত থাকতে চলেছেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ, অমিত শাহ, কৈলাশ বিজয়বর্গীয় সহ রাজ্যের আরও চার বিজেপি হেভিওয়েট নেতৃত্ব।

সূত্রে খবর, সোমবার সন্ধ্যে সাড়ে সাতটার পর দিল্লীর বিজেপি সদর দফতরে অনুষ্ঠিত হতে চলা ওই বিশেষ বৈঠকে আগে থেকে তৈরি করা একটি প্রার্থী তালিকা দেখাতে চলেছেন রাজ্য বিজেপি নেতৃত্বরা। তবে সেই তালিকা থেকে কত জনকে রাখা হবে আর কারা বাদ যাবেন তা সিদ্ধান্ত নেবেন বিজেপির শীর্ষ নেতারা। প্রার্থী বাছাই নিয়ে রাজ্য বিজেপি নেতাদের সঙ্গে শীর্ষ নেতাদের আলচনায় সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করবে বিজেপি। প্রসঙ্গত, কয়েকদিন আগে বিজেপির দিল্লী লোকসভা আসনে প্রার্থী হচ্ছেন বাইশ গজের নায়ক গৌতম গম্ভীর এমন সংবাদ প্রকাশিত হলেও সোমবার সন্ধ্যেতেই জানা যাবে নিশ্চিত কি না। লোকসভা ভোটের আগে বিজেপিতে অনেক সদস্য বেড়েছে। প্রাক্তন মন্ত্রী থেকে শুরু করে তৃণমূলের সাংসদ সহ একাধিক উচ্চপদস্থ নেতা-নেত্রীদের বিজেপি শিবিরে যোগদান আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির জয়ের আশা উস্কে দিয়েছে।

এই নিয়ে বিরোধীদের কাছে কম কটাক্ষের স্বীকার হতে হয়নি। অন্যদিকে কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরির বাড়িতে মুকুলের নৈশভোজের পর চরম অস্বস্তিতে পড়েছে বিরোধী দলগুলি। অধীরকে বিজেপিতে টানতে চাইছে মুকুল এরকম কথাও শুনতে হয়েছে। যদিও সে বিষয়ে বিস্তারিত কোনো খবর নেই। কিন্তু বিজেপি শিবিরে সোমবার প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত হয়ে গেলেও বহরমপুরে যে অধীর টিকিট পাচ্ছেন না তা নিশ্চিত। অন্যদিকে এদিনই প্রাক্তন মন্ত্রী শোভন চট্টোপাধ্যায়ের ভোটে দাঁড়ানোর খবর কতটা সত্যি তাও প্রমানিত হতে চলেছে। সব নিয়ে চরম সংকটে রয়েছে রাজ্যের বিরোধী দল। এককালে রাজ্যে যাদের দাপট চলত শাসক দলের সেই সমস্ত নেতৃত্বরা আজ অন্য শিবিরে তাই যতই 42-এ 42 জেতার কথা বলুক কিছুটা হলেও বেশ অসন্তোষে রয়েছে রাজ্যের শাসক দল।

প্রসঙ্গত, বিজেপির টানাপোড়েন কিছু কম নেই। কারণ, মাত্র কয়েক মাস আগে পাঁচ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনের ফল যেভাবে বিজেপির থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে তাতে তো মরার ওপরে খাঁড়ার ঘা-য়ের অবস্থা হয়েছে বিজেপির। তিন রাজ্যে বিজেপির থেকে ভোট বাক্সে এগিয়ে ছিল কংগ্রেস। সেই কথা মাথায় রেখে লোকসভা নির্বাচনের পশ্চিমবঙ্গে প্রার্থী নির্বাচনে যে কড়া পদক্ষেপ নেওয়া হতে চলেছে তা বলাই বাহুল্য। তাই প্রার্থী বাছাইয়ের জন্য রাজ্য নেতৃত্বদের থেকে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বরা বিশেষ দায়িত্ব গ্রহন করতে চলেছে।

Open

Close