এনকাউন্টারে ১২৪ কুখ্যাত অপরাধী শেষ, অপরাধ দমনে শীর্ষে যোগী সরকার

উত্তর প্রদেশ বিধানসভার আগামী অধিবেশনের জন্য সম্পূর্ণ ভাবে প্রস্তুত যোগী সরকার (Yogi Government)। এনকাউন্টার নিয়ে বিরোধীদের হাঙ্গামার কথা মাথায় রেখে সরকার প্রতিটি সম্ভাব্য প্রশ্নের উত্তরও প্রস্তুত করে ফেলেছে। উল্লেখ্য, ব্রাহ্মণের হত্যা আর এনকাউন্টার নিয়ে বিরোধীদের সরকার তাঁর সাড়ে তিন বছরের কার্যকালে এনকাউন্টার কর অপরাধীদের লিস্ট তৈরি করেছে। এই লিস্টের মাধ্যমেই বিরোধীদের জবাব দেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে সরকার। এই লিস্ট অনুযায়ী, ৯ আগস্ট ২০২০ পর্যন্ত রাজ্যে হওয়া এনকাউন্টারে মোট ১২৪ জন অপরাধী নিকেশ হয়েছে। আর সেটির মধ্যে সর্বাধিক ৪৫ জন সংখ্যালঘু আছে। আর ব্রাহ্মণ আছে ১১ জন।

উল্লেখ্য, বিধানসভায় এনকাউন্টার নিয়ে সম্ভাব্য প্রশ্নের উত্তর সরকার তৈরি করে নিয়েছে। সাড়ে তিন বছরের কার্যকালে ১২৪ জন দাগি অপরাধী এনকাউন্টারে নিকেশ হয়েছে। আর মৃত অপরাধীদের মধ্যে ৪৫ জন সংখ্যালঘু, ১১ জন ব্রাহ্মণ আর ৮ জন যাদব আছে। অন্য ৫৮ জন দাগি অপরাধীদের মধ্যে ঠাকুর, বৈশ্য, পিছিয়ে পড়া এসসি-এসটি জাতের অপরাধী আছে।

৩১ মার্চ ২০১৭ থেকে ৯ আগস্ট ২০২০ পর্যন্ত উত্তর প্রদেশে ১২৪ জন অপরাধী নিকেশ হয়েছে। গত ৮ মাসে ৮ জন ব্রাহ্মণ অপরাধী নিকেশ হয়েছে। এদের মধ্যে ৬ জন অপরাধী কানপুরের বিকারু গ্রামের বিকাশ দুবের গ্যাংয়ের সাথে যুক্ত ছিল। সবথেকে বেশি এনকাউন্টার মেরঠে হয়েছে। সেখানে ১৪ জন অপরাধীকে নিকেশ করা হয়েছে। এরপর মুজফরনগরে ১১, সাহারানপুরে ৯, আজমগড়ে ৭ আর শামলিতে ৫ জন অপরাধীকে নিকেশ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, বিকাশ ডুবে আর রাকেশ পাণ্ডের এনকাউন্টারের পর একটি জাতি বিশেষ অপরাধীদের এনকাউন্টার করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করা হয়। এবার সরকার এই পরিসংখ্যান তুলে ধরে এটাই বোঝানোর চেষ্টা করবে যে, অপরাধী কোন জাতি আর কোন ধর্মের সেটা না দেখে, কতটা ভয়ানক অপরাধী সেটা দেখা হয়। আর বিরোধীদের ব্রাহ্মণ ভোট ব্যাংক গড়ার পরিকল্পনা ব্যর্থ করতে সরকার এই লিস্ট বানিয়েছে।