মার খেয়েও দমে যায়নি পার্শ্ব শিক্ষকরা, ফের শুরু করল আন্দোলন

মাই ইন্ডিয়া ডেস্কঃ রবিবার সকাল হতেই ফের জমায়েত শুরু  করলেন পার্শ্ব শিক্ষকরা। তবে জায়গাটা একটু পাল্টে নিলেন তাঁরা। এবার খানিকটা কৌশল অবলম্বন করে কল্যাণী স্টেশনের বাইরে এদিন সকাল থেকেই জমায়েত শুরু করেন পার্শ্ব শিক্ষক ঐক্য মঞ্চের মাস্টারমশাই দিদিমণিরা। সমকাজে সমবেতন সহ আট দফা দাবিতে ফের শুরু হয়েছে অবস্থান। বক্তব্য একটাই, পুলিশ যাই করুক, দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে। শনিবার সন্ধে বেলা পুলিশের একাংশের হাতে বেধড়ক মার খেয়েছিলেন তাঁরা। বেপরোয়া লাঠিচার্জে ছত্রভঙ্গ হয়ে গিয়েছিল কল্যাণী সেন্ট্রাল বাস টার্মিনাসে প্রাথমিক ও উচ্চ প্রাথমিকের পার্শ্বশিক্ষকদের অবস্থান। তবুও দমে যাননি তাঁরা।

এদিকে পার্শ্ব শিক্ষকদের উপর পুলিশের লাঠিচার্জের ঘটনায় ঝড় বইছে রাজ্য রাজনীতিতে। সরগরম সোশ্যাল মিডিয়াও। পুলিশের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ তুলেছেন শিক্ষিকারা। তাঁদের দাবি, অন্ধকারে পেটানোর সময়েই একাধিক দিদিমণির পোশাক ছিঁড়ে দিয়েছে পুলিশ। এক শিক্ষিকা ক্যামেরার সামনে অভিযোগ করেছেন, তাঁর স্বামী তাঁর কাছে কিছু পোশাক আর ওষুধ দিতে এসেছিলেন। সেগুলিও কেড়ে নিয়ে স্বামীকে মারধর করেছে পুলিশ।

শুক্রবার সমকাজে সমবেতন-সহ আট দফা দাবি নিয়ে উল্টোডাঙা হাডকো মোড়ে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা পার্শ্ব শিক্ষকদের জমায়েতে কার্যত স্তব্ধ হয়ে যায় ভিআইপি রোড। যান চলাচলে প্রভাব পড়ে বাইপাসেও। পার্শ্ব শিক্ষকদের বিরাট মিছিল শুক্রবার বেলা সাড়ে বারোটার সময়ে রওনা দেয় বিকাশ ভবনের উদ্দেশ্যে। পার্শ্ব শিক্ষক ঐক্য মঞ্চের নেতারা বলেন, শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে তাঁরা তাঁদের দাবি জানবেন। কিন্তু তাঁদের মিছিল বিকাশ ভবন পৌঁছনোর আগেই শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় বিকাশ ভবন ছেড়ে সিজিও কমপ্লেক্সে সিবিআইয়ের জেরায় হাজিরা দিতে বেরিয়ে যান।

প্রবল বৃষ্টি আর পুলিশের সঙ্গে ধস্তাধস্তির পর পার্শ্ব শিক্ষকরা সিদ্ধান্ত নেন, তাঁরা বিকাশ ভবনের কাছেই অবস্থান করবেন। কিন্তু পুলিশ বসতে দেয়নি। এরপর ধর্মতলায় অবস্থানে বসার কথা ভাবেন তাঁরা। কিন্তু তাতেও রাজি হয়নি পুলিশ। এরপর কলকাতা থেকে কিছুটা দূরে তাঁরা চলে যান ব্যারাকপুরে। সেখানেও তাঁদের বসতে দেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ। এরপর তাঁর চলে যান কল্যাণী। কল্যাণী বাস টার্মিনালে বসার সিদ্ধান্ত নেন তাঁরা। পরিকল্পনা ছিল, সোমবার ফের জমায়েত করে বিকাশ ভবন যাবেন মিছিল নিয়ে। কিন্তু তার মধ্যেই এই ঘটনা। সোশ্যাল মিডিয়ায় শনিবার রাত থেকেই ভাইরাল হতে শুরু করে পার্শ্ব শিক্ষকদের উপর পুলিশি ‘হামলা’র ক্লিপিং ও ছবি।

পুলিশের বিরুদ্ধে কার্যত ফুঁসছেন ‘আক্রান্ত’ শিক্ষক-শিক্ষিকারা। এক পার্শ্ব শিক্ষিকা বলেন, “এটাই এখন এ রাজ্যের পুলিশের চরিত্র। এঁরা টালিগঞ্জ থানায় গুন্ডাদের হাতে মার খায়, আর ন্যায্য দাবিতে আন্দোলন করলে পেটায়।” ওই ঘটনার পর ছড়িয়ে ছিটিয়ে যান অবস্থানরত পার্শ্ব শিক্ষকরা। রবিবার সকাল থেকে ফের জমায়েতের ডাক দিয়েছেন তাঁরা। যদিও শিক্ষক-শিক্ষিকাদের উপর এ হেন আচরণ নিয়ে পুলিশ নীরব। প্রশাসনের তরফে কেউ কোনও প্রতিক্রিয়া দেননি।

 

Related Articles